৫০ বছরে পররাষ্ট্রনীতি: একাত্তরের শত্রুও কাছে, বন্ধু ভারত আরো কাছে | বিশ্ব | DW | 25.03.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

৫০ বছরে পররাষ্ট্রনীতি: একাত্তরের শত্রুও কাছে, বন্ধু ভারত আরো কাছে

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান কারো অজানা নয়৷ আর তখন পশ্চিম পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধ করেই তো স্বাধীন হয়েছে বাংলাদেশ৷

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে এই দুই দেশসহ একাত্তরের সব ‘শত্রু-মিত্রের’ সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কটা কেমন?

বিশ্বের পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে মুক্তিযুদ্ধের পর বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিপক্ষে অবস্থান নেয়া দেশগুলোর সাথেও সম্পর্ক স্থাপন করে বাংলাদেশ৷ তাই ভারত নয়, চীন এখন বাংলাদেশের বড় উন্নয়ন সহযোগী৷ তারপরও বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি এখন অনেকটাই ভারতমুখী বলে মনে করেন কোনো কোনো বিশ্লেষক৷

এবার পাকিস্তানের প্রজাতন্ত্র দিবসে (২৩ মার্চ) বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও সেদেশের জনগণকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন৷ তিনি কোভিড আক্রান্ত ইমরান খানের সুস্থতাও কামনা করেছেন৷ আর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকীতে ২৬ মার্চ, অর্থাৎ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসেই আসছেন ঢাকায়৷

সাবেক পররাষ্ট্র সচিব তৌহিদ হোসেন মনে করেন জাতীয় দিবসে ইমরান খানকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর এই শুভেচ্ছা একটি আনুষ্ঠানিকতা৷ এটা দিয়ে বন্ধুত্ব বা শত্রুতা নির্ধারণ করা যায় না৷ রিপাবলিক দিবসে এক দেশ আরেক দেশকে শুভেচ্ছা জানায়৷ বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক না হলেও জানায়৷

অডিও শুনুন 04:49

পররাষ্ট্রনীতির ক্ষেত্রে স্থায়ী কোনো বন্ধু থাকেনা, স্থায়ী কোনো শত্রু থাকেনা: ড. তারেক শামসুর রহমান

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানের পক্ষ নিয়ে অ্যামেরিকা, চীন ও সৌদি আরবসহ আরো অনেক মুসলিম দেশ বাংলাদের স্বাধীনতা চায়নি৷ কিন্তু তখন বিশ্ব ছিল দুই ব্লকে বিভক্ত৷ ভারত, রাশিয়া বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে কাজ করেছে৷ কিন্তু এখন বিশ্ব রাজনীতিতে পরিবর্তন এসেছে৷ বিশ্ব এখন বলতে গেলে এককেন্দ্রিক৷ তাই বাংলাদেশও আর কোনো ব্লকের দিকে নয়, সব রাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করে চলছে৷

রাশিয়ার সাথে সম্পর্ক থাকলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক থাকবে না, আবার ভারতের সাথে সম্পর্ক থাকলে চীনের সাথে থাকবে না- সেটা এখন আর হয়না৷ তাই বাংলাদেশ ভারতের সাথেও সম্পর্ক রাখছে, চীনের সাথেও সম্পর্ক রাখছে৷ রাশিয়ার সাথে সম্পর্ক আছে আবার যুক্তরাষ্ট্রের সাথেও সম্পর্ক আছে৷ বাংলাদেশের যে বিনিয়োগ দরকার, অবকাঠামো দরকার সেখানে ভারত তেমন কিছুই দিতে পারবে না৷ তাই চীনকে আমাদের লাগছে৷ কিন্তু ভারতের সাথেও আমাদের সুসম্পর্ক রাখতে হবে৷ বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রতিবেশী ভারত৷ আমাদের দেশের তিন দিকে তাদের অবস্থান৷

বিশ্বরাজনীতি, ভূরাজনৈতিক গুরুত্ব এবং ব্যবসা ও বিনিয়োগের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশের সাথেও সম্পর্ক রাখছে বাংলাদেশ৷ এখন বিশ্বপরিস্থিতিই এমন যে সবার সাথে সবার সম্পর্ক রাখতে হয়৷

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. তারেক শামসুর রহমান বলেন, ‘‘পররাষ্ট্রনীতির ক্ষেত্রে স্থায়ী কোনো বন্ধু থাকে না, স্থায়ী কোনো শত্রু থাকে না৷ মুক্তিযুদ্ধের সময় চীন আমাদের তীব্র বিরোধিতা করলেও এখন সবচেয়ে বড় উন্নয়ন সহযোগী৷ আমার স্বার্থে যাকে প্রয়োজন, তার সঙ্গেই সম্পর্ক করা৷’’

অডিও শুনুন 05:36

রাষ্ট্রের স্বার্থের চেয়ে দলীয় স্বার্থ বিবেচনায় হচ্ছে: মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক

তিনি বলেন, ‘‘বঙ্গবন্ধুর এই কূটনৈতিক দূরদর্শিতা ছিল৷ আর এই কারণেই তিনি ১৯৭৫ সালের প্রথম দিকে কে এম কায়সারকে চীনে পাঠিয়েছিলেন, চীন যাতে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয় তা নিশ্চিত করতে৷ তিনি এটাও উপলব্ধি করেছিলেন যে, ইসলামি বিশ্বের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক জরুরি৷ আর সে কারণেই তিনি ওআইসি সম্মেলনে গিয়েছিলেন৷’’

তিনি মনে করেন, সামনের দিনগুলোতে এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চল গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে৷ যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত মিলে চীনকে আটকানোর প্রক্রিয়া আছে৷ বাংলাদেশ এক্ষেত্রে কোনো দিকে না গিয়ে ভারসাম্য বজার রাখার যে অবস্থানে আছে তা অব্যাহত রাখতে হবে৷ তবে তার মতে, ‘‘ভারত দ্বিপাক্ষিক অনেক সমস্যারই সমাধান করছে না৷ আমাদের খেয়াল রাখতে হবে ভারত যেন সব সময় বেশি না নিয়ে নেয়৷’’

তবে গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের কূটনীতিতে ভারত নির্ভরতা বাড়ছে বলে মনে করেন সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক৷ তিনি মনে করেন, স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের বিদেশ-নীতি বহুপাক্ষিক দিকেই ধাবিত হয়৷ আর সেটাই সঠিক৷ কিন্তু ১০-১২ বছরে আবার যেন বাংলাদেশ ভারত ব্লকভুক্ত হচ্ছে৷ বিশেষ করে গত দুই বছরে ভারতের ওপর ব্যাপকভাবে নির্ভর হয়ে গেছে বাংলাদেশ৷ তবে তিনি মনে করেন, ‘‘এটা রাষ্ট্রের স্বার্থের চেয়ে দলীয় স্বার্থ বিবেচনায় হচ্ছে৷’’ তার প্রশ্ন, ‘‘এখন বাংলাদেশের জন্য ভারতের কন্ট্রিবিউশন কী? তাহলে ভারতের ওপর কেন এই নির্ভরতা?’’

এই সাবেক কূটনীতিক আরো বলেন, ‘‘১৯৭৪ সালে  পাকিস্তানে ওআইসি সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু গিয়েছিলেন ভারতকে উপেক্ষা করে৷ তিনি সেই ধরনের রাষ্ট্রনায়ক ছিলেন৷ তিনি দেশের স্বার্থটা দেখেছেন৷’’

সংশ্লিষ্ট বিষয়