1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
এনডিটিভি আদানির হাতে
ছবি: Indranil Aditya/ZUMA Press/picture alliance

৩৮ বছরের লড়াই শেষ, এনডিটিভি থেকে পদত্যাগ প্রণয়-রাধিকার

৩০ নভেম্বর ২০২২

নিউ দিল্লি টেলিভিশনের পরিচালন গোষ্ঠী থেকে ইস্তফা দিয়েছেন সাংবাদিক দম্পতি প্রণয় এবং রাধিকা রায়। সংস্থা এখন আদানি গোষ্ঠীর হাতে।

https://p.dw.com/p/4KHMx

ভারতের অন্যতম শিল্পগোষ্ঠী এবং মোদী-ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত আদানি গ্রুপ এবার এনডিটিভি পরিচালনা করবে। এনডিটিভি-র পরিচালন গোষ্ঠীতে তারা তিনজন নতুন ব্যক্তিকে বসিয়েছে। বুধবার এনডিটিভি বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, এনডিটিভির প্রতিষ্ঠাতা প্রণয় এবং রাধিকা রায় পরিচালন গোষ্ঠী থেকে ইস্তফা দিয়েছেন। ডিরেক্টরের পদ ছেড়েছেন রাধিকা। নতুন পরিচালন সমিতি অবশ্য প্রণয়কে সংস্থার চেয়ারম্যানের পদে থাকার জন্য অনুরোধ করেছে। তবে প্রণয় এখনো এবিষয়ে কোনো জবাব দেননি।

চলতি বছরের অগাস্টে প্রথম এনডিটিভি-র মালিকানা নিয়ে জল্পনা-কল্পনা শুরু হয়। ওই সময় আদানি গোষ্ঠী জানিয়েছিল, খুব দ্রুত এনডিটিভি-র সিংহভাগ শেয়ার তাদের হাতে আসতে চলেছে। সংবাদমাধ্যমটির ২৯ শতাংশ শেয়ার দ্রুত তাদের হাতে চলে আসবে বলে জানিয়েছিল তারা। কিন্তু এনডিটিভি-র তৎকালীন পরিচালন গোষ্ঠী এবিষয়ে বিশেষ কোনো মন্তব্য করেনি।

আরআরপিআরএইচ গোষ্ঠীর হাতে ছিল এনডিটিভি পরিচালনার ক্ষমতা। সোমবার ওই সংস্থা ৯৯ দশমিক পাঁচ শতাংশ শেয়ার আদানি গোষ্ঠী অধিকৃত ভিসিপিএল-এর হাতে তুলে দেয়। যার অর্থ, এনডিটিভির যে ২৯ শতাংশ শেয়ার আরআরপিআরএইচ গোষ্ঠীর হাতে ছিল, তা আদানি গোষ্ঠীর হাতে চলে যায়। কীভাবে ঘটল এই ঘটনা?

২০০৮ সালে আর্থিক মন্দার পর এনডিটিভি খাতায় কলমে বিপুল আর্থিক সংকটের মুখোমুখি হয়। ২০০৯ সালে ভিসিপিএল গোষ্ঠীর কাছ থেকে এনডিটিভি-র পরিচালন সংস্থা আরআরপিআরএইচ গ্রুপ ৪১৩ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছিল। ঋণের শর্ত ছিল, যে কোনো সময় আরআরপিএইচ গ্রুপের ২৯ দশমিক ১৮ শতাংশ এনডিটিভির শেয়ার ভিসিপিএল অধিগ্রহণ করতে পারবে। কিন্তু বাস্তবে কখনোই তা হয়নি। 

সম্প্রতি ভিসিপিএল-কে অধিগ্রহণ করে আদানি গোষ্ঠী। তারপরেই আরআরপিআরএইচ-এর উপর চাপ সৃষ্টি শুরু হয়। তাদের হাতে থাকা এনডিটিভি-র শেয়ার দ্রুত হস্তান্তর করার কথা বলা হয়। এনডিটিভি সূত্র ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছে, প্রণয় এবং রাধিকা প্রাথমিকভাবে বিষয়টি আটকানোর চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত তা সফল হয়নি। সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে আরআরপিআরএইচ তাদের ৯৯ দশমিক পাঁচ শতাংশ শেয়ার ভিসিপিএল অর্থাৎ আদানি গোষ্ঠীর হাতে তুলে দিয়েছে। ফলে এনডিটিভির পরিচালন সংস্থাই বদলে গেল।

বস্তুত, এদিনই তিনজন নতুন বোর্ড অফ ডিরেক্টর্স নিয়োগ করেছে আদানি গোষ্ঠী। তারা হলেন, সুদীপ্ত ভট্টাচার্য, সঞ্জয় পুগালিয়া এবং সিন্থিল সিনিয়াহ চেঙ্গালভারায়ণ। নতুন কর্তারা প্রণয়কে চেয়ারম্যান পদে থেকে যাওয়ার অনুরোধ করেছেন। কিন্তু প্রণয় এবিষয়ে এখনো কিছু প্রকাশ্যে জানাননি।

গত অগাস্টে আদানি গোষ্ঠী জানিয়েছিল, এনডিটিভি-র ২৬ শতাংশ শেয়ার, যা বাজারে আছে, তা তারা কিনে নিতে চায়। ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে শেয়ার হোল্ডাররা ২৯৪ টাকায় ওই শেয়ার বিক্রি করে দিতে পারবেন বলে জানানো হয়েছিল। ওই শেয়ারের বাজারদর এখন ৪২৬ টাকায় উঠে গেছে। এই শেয়ারও আদানির হাতে চলে এলে এনডিটিভি-র সিংহভাগ শেয়ারও তাদের হাতে থাকবে।

১৯৮৪ সালে প্রণয় রায় এবং রাধিকা রায় নিউ দিল্লি টেলিভিশন লিমিটেড শুরু করেছিলেন। প্রাথমিকভাবে সংবাদের প্রোডাকশন কোম্পানি হিসেবে পথ চলা শুরু করেছিল এনডিটিভি। ভারতের টেলিভিশন দুনিয়ায় এনডিটিভি সংস্থা প্রথম স্বাধীন সংবাদসংস্থা হিসেবে কাজ করতে শুরু করে। গোটা টেলিভিশন দুনিয়া তখন সরকারি দূরদর্শনের হাতে। এনডিটিভি সেই সময় থেকে নিউজ প্রোডাকশন হাউস হিসেবে কাজ করতে শুরু করে। ১৯৯৮ সাল থেকে এনডিটিভি ভারতের প্রথম ২৪ ঘণ্টার স্বাধীন সংবাদ চ্যানেল হিসেবে কাজ করতে শুরু করে। সে সময় স্টার ইন্ডিয়ার সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে কাজ শুরু করেছিল এনডিটিভি। ২০০৩ সালে এনডিটিভি ২৪ ঘণ্টার হিন্দি চ্যানেল এবং পরবর্তী সময়ে ২৪ ঘণ্টার বিসনেস চ্যানেলও শুরু করে।

স্টার ইন্ডিয়ার সঙ্গে এনডিটিভি-র যৌথ উদ্যোগ আগেই শেষ হয়ে গেছিল। তবে আরআরপিআরএইচ-এর পরিচলনায় চলছিল সংবাদমাধ্যমটি। গত কয়েকবছরে একাধিকবার নিজেদের ক্ষতির হিসেব দিয়েছে এনডিটিভি। অন্যদিকে, ২০২২ সালে ভিপিসিএল-কে যখন আদানি গোষ্ঠী অধিগ্রহণ করে তখন ওই সংস্থার মোট বাজারমূল্য ছিল ১১৩ কোটি টাকা।

ভারতের বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকারের বিরোধী চ্যানেল হিসেবেই পরিচিত ছিল এনডিটিভি। লাগাতার সরকারের নীতির সমালোচনা করেছে তারা। মোদী-ঘনিষ্ঠ আদানি গোষ্ঠীর হাতে যাওয়ার পর চ্যানেলের অবস্থান বলায় কি না, সেদিকেই তাকিয়ে এনডিটিভি-র দর্শকেরা।

এসজি/জিএইচ (পিটিআই, এনডিটিভি)

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ইউক্রেন

প্যারিসে জেলেনস্কির সঙ্গে বৈঠকে মাক্রোঁ, শলৎস

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান