৩০ দিনের সিলেবাসের মূল্যায়নে কী হবে? | বিশ্ব | DW | 26.10.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

৩০ দিনের সিলেবাসের মূল্যায়নে কী হবে?

মাধ্যমিক পর্যায়ে ৩০ দিনের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস করে তার ভিত্তিতে মূল্যায়ন করে পরবর্তী শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়৷ তবে প্রশ্ন হলো, তাতে শিক্ষার্থীদের মান পরীক্ষা হবে কীভাবে? এর উদ্দেশ্যই বা কী?

বাংলাদেশে করোনার কারণে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে৷ এরমধ্যে অনলাইনে ক্লাস চালিয়ে যাওয়ার নানা চেষ্টা চলছে৷ তবে তা তেমন সফল হচ্ছে না৷ কারণ বাংলাদেশের বিশেষ করে গ্রামের শিক্ষার্থীদের অনলাইন সুবিধা নাই বললেই চলে৷ আর সংসদ টেলিভিশন স্যাটেলাইট হওয়ায় এর মাধ্যমে যে পাঠদান করা হচ্ছে তাও সবাই নিতে পারছে না৷

স্বাস্থ্য পরিস্থিতি বিবেচনায় এরইমধ্যে এইচএসসি পরীক্ষায় অটোপাস পাচ্ছেন সব পরীক্ষার্থী৷ পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষা হবে না সে সিদ্ধান্ত আগেই জানানো হয়েছে৷ তবে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে মাধ্যমিক পর্যায়ে ৩০ দিনের সিলেবাসে মূল্যায়ন করা হবে৷ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম মো. ফারুক জানান, নভেম্বর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে এই ৩০ দিনের সিলেবাসে প্রতি সপ্তাহে একটি করে অ্যাসাইনমেন্ট দেয়া হবে৷ শিক্ষার্থীরা বাসায় বসে সেই এসাইনমেন্ট শেষ করে স্কুলে জমা দেবে৷ তার ভিত্তিতেই তাদের মূল্যায়ন করা হবে৷

তিনি বলেন, ‘‘উদ্দেশ্য হচ্ছে যে বিষয়গুলোর ধারাবাহিকতা পরবর্তী ক্লাসেও থাকবে সেটা সেটায় শিক্ষার্থীরা কতটা দক্ষ তা যাচাই করা৷ সেভাবেই সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তৈরি হচ্ছে৷ পরবর্তী ক্লাসের জন্য শিক্ষার্থীরা যোগ্য কিনা সেটাই দেখা হবে৷ আমার শিক্ষার্থীদের দুর্বলতাও জানতে পারব৷’’

অডিও শুনুন 02:46

পরবর্তী ক্লাসের জন্য শিক্ষার্থীরা যোগ্য কিনা সেটাই দেখা হবে: মাউশি মহাপরিচালক

যাদের অনলাইন সুবিধা আছে তারা অনলাইনে এসাইনমেন্ট নেয়া ও জমা দিতে পারবেন৷ যাদের নাই তাদের অভিভাবকেরা শিক্ষকদের সঙ্গে যোগাযোগ করে এসাইনমেন্ট নেবেন ও জমা দেবেন৷ আর যারা করোনার কারণে অন্য এলাকায় চলে গেছেন তার তাদের কাছের স্কুল থেকে এই সুবিধা নিতে পারবেন৷ প্রয়োজন হলে সরাসরি মাউশি থেকেও এসাইনমেন্ট নেয়া ও জমা দেয়া যাবে৷

মাউশির মহাপরিচালক জানান, ‘‘সিলেবাস চূড়ান্ত হলে ওয়েব সাইটে আপ করে দেয়া হবে৷ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও পঠানো হবে৷ আর এসাইনমেন্টের প্রশ্নগুলো এমন হবে যে শুধু বই দেখে উত্তর দেয়া যাবে না৷ পড়াশুনা করে বুঝতে হবে৷’’

তবে এবার করোনায় শিক্ষা এবং এর নানা পদ্ধতি নিয়ে অসন্তোষ আছে অভিভাবকদের মধ্যে৷ মতিঝিল আইডিয়াল স্কুলের একজন অভিভাবক শহীদুল ইসলাম মনে করেন, করোনায় নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে অনেক সময় পার করা হয়েছে৷ অনলাইন ক্লাসে শিক্ষার্থীদের তেমন সম্পৃক্ত করা যায়নি৷ কারণ একদিকে শিক্ষকদের আন্তরিকতার অভাব, অন্যদিকে ইন্টারনেট সুবিধা সবার না থাকা৷ এখন যে এসাইমেন্টের কথা বলা হচ্ছে সেটা অনলাইনের চেয়ে ভালো৷ তবে এটা আরো অনেক আগে শুরু করলে ভালো হতো৷

তার মতে, ‘‘এখন যেভাবেই পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হোক না কেন তার উদ্দেশ্য বেতন এবং পরীক্ষা ফি আদায়৷ আমরা বেতন দিলাম কিন্তু পড়াশুনা হলো না৷’’

দেশের গ্রামাঞ্চলে যে করোনায় অনলাইন শিক্ষা সম্ভব হয়নি তা বোঝা যায় দক্ষিণের জেলা পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকায় অবস্থিত মিরুখালি স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আলমগীর হোসেন খানের সঙ্গে কথা বলে৷ তিনি জানান, ‘‘এখানে অনলাইনে ক্লাস নেয়া সম্ভব নয় বলে গত চার মাস ধরে আমরা এসাইনমেন্ট পদ্ধতিতে ক্লাস নিচ্ছি৷ প্রতি সপ্তাহে অভিভাবকরা এসে অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে যান সপ্তাহ শেষ হলে উত্তর জমা দিয়ে নতুন এসাইনমেন্ট নিয়ে যান৷ এটা আমরা প্রচলিত সিলেবাস ধরে করছি৷’’

অডিও শুনুন 03:24

পরবর্তী ক্লাসের জন্য শিক্ষার্থীরা যোগ্য কিনা সেটাই দেখা হবে: অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ

৩০ দিনের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস হলে সেটাও পারা যাবে বলে জানান তিনি৷ তার কথা, ‘‘এই করোনায় শিক্ষার্থীদের যোগাযোগের আওতায় রাখাই ছিলো আমাদের মূল উদ্দেশ্য৷’’

করোনা যেমন সংকট তৈরি করেছে, তেমনি অনেক সম্ভাবনাও তৈরি করেছে৷ কিন্তু শিক্ষা ক্ষেত্রে সেটা কাজে লাগানো হয়নি বলে মনে করেন শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ৷ তার মতে, এই সময়ে শিক্ষার্থীরা বাসায় আছে৷ তাদের যদি শুরু থেকেই এসাইনমেন্ট দিয়ে তা আদায় করা হতো তাহলে অনেক কাজে দিত৷ কিন্তু তা করা হয়নি৷ নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে তাদের অস্থিরতার মধ্যে রাখা হয়েছে৷ ফলে তারা পরের শ্রেণিতে যাবে কিন্তু ভিত কাঁচা থাকবে৷ তিনি বলেন, ‘‘সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে অ্যাসাইনমেন্ট ভিত্তিক মূল্যায়ন মন্দের ভালো৷ কিন্তু শিক্ষার্থীদের যেসব বিষয়ে দুর্বলতা থাকবে তারা আগামী এক বছরে তা কিভাবে পুষিয়ে নেবে তার পরিকল্পনা এখনই করতে হবে৷ নয়তো তারা পাস করবে কিন্তু তাতের শিক্ষায় গলদ থেকে যাবে৷’’

এদিকে প্রাথমিকে কী ব্যবস্থা হবে তা এখনো চূড়ান্ত হয়নি৷ সেখানেও সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে অ্যাসাইনমেন্ট ভিত্তিক মূল্যায়নের একটি প্রস্তাব আছে৷ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম আল-হোসেনকে বদলি করা হয়েছে৷ তিনি এই মাসের ৩১ তারিখ পর্যন্ত আছেন৷ তিনি জানান, ‘‘এ বিষয়ে নতুন সচিব এসে সিদ্ধান্ত নেবেন৷ আমার কোনো পরামর্শ নেই৷’’

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন