১৯ ঘণ্টায় মহাকাশ কেন্দ্রে স্পেসএক্স-এর ড্রাগন | বিশ্ব | DW | 01.06.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

মহাকাশ

১৯ ঘণ্টায় মহাকাশ কেন্দ্রে স্পেসএক্স-এর ড্রাগন

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা থেকে যাত্রা শুরুর ১৯ ঘণ্টা পর রবিবার ভূ-পৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৪২২ কিলোমিটার উঁচুতে অবস্থিত আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্র, আইএসএস-এ পৌঁছেছেন দুই মার্কিন নভচারী৷

বেসরকারি কোম্পানি স্পেসএক্স-এর তৈরি ‘ক্রু ড্রাগন' মহাকাশযানে করে আইএসএস-এ পৌঁছেন নাসার নভচারী ডুগ হার্লে ও বব বেনকেন৷ ইলেকট্রিক গাড়ি নির্মাতা টেসলার প্রধান নির্বাহী এলন মাস্ক স্পেসএক্স-এর প্রতিষ্ঠাতা৷

স্পেসএক্স-এরই তৈরি ফ্যালকন রকেটে করে ক্রু ড্রাগন ফ্লরিডা থেকে রওয়ানা হয়েছিল৷

ক্রু ড্রাগন খুব ভালোভাবে ডক করেছে বলে জানিয়েছেন হার্লে ও বেনকেন৷ তাঁরা এক থেকে চার মাস আইএসএস-এ থাকবেন৷


এই প্রথমবারের মতো বেসরকারি কোনো কোম্পানির তৈরি মহাকাশযানে করে আইএসএস-এ গেলেন নভচারীরা৷

এছাড়া ২০১১ সালে নাসার স্পেস শাটল কর্মসূচি বন্ধ হওয়ার পর এই প্রথম মার্কিন নভচারীরা রাশিয়ার সহায়তা ছাড়া মহাকাশ কেন্দ্রে পৌঁছলেন৷

স্পেস শাটল কর্মসূচি বন্ধের পর রাশিয়ার সয়ুজ যানে করে আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে যাতায়াত করছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের নভচারীরা৷

স্পেসএক্স-এর তৈরি ক্রু ড্রাগন স্ৱয়ংক্রিয়ভাবে আইএসএস-এ ডক করতে পারে৷ এছাড়া এটি চালাতেও নভচারীদের খুব বেশি সক্রিয়তার প্রয়োজন হয় না৷

নাসা আশা করছে, স্পেসএক্স-এর সঙ্গে সহযোগিতা ভবিষ্যতে চাঁদ ও মঙ্গলগ্রহ পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়বে৷

বিমান তৈরির প্রতিষ্ঠান বোয়িং-ও মহাকাশযান তৈরির চেষ্টা চালাচ্ছে৷ আগামী বছর এটি চালু হতে পারে৷

জেডএইচ/এসিবি (এপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন