১১ কোম্পানির দুধে সীসা পেল সরকারি প্রতিষ্ঠান | বিশ্ব | DW | 16.07.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

১১ কোম্পানির দুধে সীসা পেল সরকারি প্রতিষ্ঠান

জাতীয় নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ১১টি কোম্পানির পাস্তুরিত দুধে সীসা পাওয়ার কথা মঙ্গলবার হাইকোর্টকে জানিয়েছে৷ এই কোম্পানিগুলোর দুধ জনস্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ বলে জানিয়েছিল আরেক সরকারি প্রতিষ্ঠান বিএসটিআই৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ বলছে, বাংলাদেশ এগ্রিকালচারাল রিসার্চ ইনস্টিটিউট, বিসিএসআইআর, প্লাজমা প্লাস, ওয়াফেন রিসার্চ, পারমাণু শক্তি কমিশন ও আইসিডিডিআরবির ল্যাবে দুধ পরীক্ষা করা হয়েছে৷

মোট ১৪টি কোম্পানির দুধ পরীক্ষা করা হয়৷ এর মধ্যে মিল্কভিটা, ডেইরি ফ্রেশ, ইগলু, ফার্ম ফ্রেশ, আফতাব মিল্ক, আল্ট্রা মিল্ক, আড়ং ডেইরি, প্রাণ মিল্ক, আইরান, পিউরা ও সেইফ মিল্কের দুধে সীসা পাওয়া যায়৷

নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের আইনজীবী ফরিদ বলছেন, ২০০২ সালে বিএসটিআই পাস্তুরিত দুধের যে মান নির্ধারণ করেছিল তার ভিত্তিতেই দুধের নমুনা পরীক্ষা করে এই প্রতিবেদন দেয়া হয়েছে৷ তবে দুধে অ্যান্টিবায়োটিক বা ডিটারজেন্টের উপস্থিতি পরীক্ষা করা হয়নি৷

উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি মাসে সরকারি প্রতিষ্ঠান জাতীয় নিরাপদ খাদ্য গবেষণাগার (এনএফএসএল) এর এক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছিল৷ এতে দুধে গ্রহণযোগ্য মাত্রার চেয়ে বেশি কীটনাশক, অ্যান্টিবায়োটিক ও সীসা পাওয়া যাওয়ার কথা জানানো হয়েছিল৷ জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) আর্থিক সহায়তায় ঐ গবেষণাটি করা হয়৷

বিভিন্ন দৈনিকে ঐ গবেষণার ফল প্রকাশিত হলে ১১ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে বিএসটিআই, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ও কেন্দ্রীয় নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটিকে ১৫ দিনের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দিতে বলেছিল৷

গত ২৫ জুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওষুধ প্রযুক্তি বিভাগের অধ্যাপক আ ব ম ফারুক এক সংবাদ সম্মেলনে বাজারে প্রচলিত বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সাতটি প্যাকেটজাত (পাস্তুরিত) দুধের নমুনা পরীক্ষা করে সেগুলোতে মানুষের চিকিৎসায় ব্যবহৃত শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিকের উপস্থিতি পাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন৷ এরপর শুরু হয় আলোচনা৷

জেডএইচ/জেডএ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন