1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ইন্দোনেশিয়ার বোর্নিও দ্বীপ
ইন্দোনেশিয়ার বোর্নিও দ্বীপছবি: picture-alliance/blickwinkel/Agami/H. van Diek
পরিবেশইন্দোনেশিয়া

১০ কোটি গাছের প্রকল্প

২৭ জুলাই ২০২২

ইন্দোনেশিয়ার বোর্নিও দ্বীপে পাম তেল চাষের জন্য অনেক বন জঙ্গল কেটে ফেলা হয়েছে৷ এতে পরিবেশের ব্যাপক বিপর্যয় দেখা দিয়েছে৷ ১০ কোটি গাছের একটি প্রকল্প সেখানে স্বস্তির আভাস দিচ্ছে৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A7%A7%E0%A7%A6-%E0%A6%95%E0%A7%8B%E0%A6%9F%E0%A6%BF-%E0%A6%97%E0%A6%BE%E0%A6%9B%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A6%B2%E0%A7%8D%E0%A6%AA/a-62607942

ইন্দোনেশিয়ার বোর্নিও দ্বীপের চাষী লিঙ্গা কাসান৷ গেল কয়েক বছরে তার সাত হেক্টর বিরান জমিতে প্রায় এক হাজার গাছ লাগিয়েছেন৷ তিনি একে ভবিষ্যতের জন্য বিনিয়োগ হিসেবে দেখেন৷

একটি গাছ দেখিয়ে তিনি বলেন, ‘‘এই গাছটি কেটে ফেলবো৷ তবে এর ব্যাসার্ধ ৩০ সেন্টিমিটার হওয়া পর্যন্ত হয়ত অপেক্ষা করব৷ তাহলে এটা বেচে সবচেয়ে বেশি টাকা পাবো৷''

লিঙ্গা কাসানের পাম ও রাবার গাছও আছে৷ কিন্তু সেগুলো থেকে তেমন লাভ হয় না৷ তাই ২০১৬ সালে যে ক'জন প্রথম নতুন বনায়নের উদ্যোগে যুক্ত হয়েছেন, তার একজন তিনি৷ এর লক্ষ্য টেকসই বনায়ন এবং স্থানীয়দের স্বাবলম্বী করা৷ এই উদ্যোগে রয়েছে একশস্যের বাইরে এসে ভিন্ন ভিন্ন শস্য ফলানো৷

চাষীরা চাইলে বড় গাছ কেটে বিক্রি করতে পারেন৷ এক হাজারেরও বেশি চাষীকে এই ১০ কোটি গাছ লাগানোর প্রকল্পে যুক্ত করা হয়েছে৷ গত ২০ বছরেইন্দোনেশিয়া তাদের প্রায় পাঁচ ভাগের এক ভাগ বন হারিয়েছে৷এমন সোনার খনির জন্য কেটে ফেলা হয়েছে অনেক গাছ৷ সোনার খনির কারণে পরিবেশের অপরিসীম ক্ষতি হয়৷

ডাবের পানির প্লাস্টিক

বনায়ন প্রকল্পের উদ্যোক্তা ফেয়ারভেঞ্চার্সের মোনালিসা পুত্রি কাহারাপ বলেন, ‘‘এখানে একটি বন ছিল৷ এক বছরের মাথায় এটির এ অবস্থা৷ তারা বালিকে ওপরে নিয়ে আসে এবং ওপরের মাটিকে নীচে নিয়ে যায়৷ তাই এসব জায়গায় পুনরায় বনায়ন অসম্ভব৷ আর এটা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ কাজ৷ কারণ তারা খনির কাজে পারদ ব্যবহার করে৷ এটা পরিবেশ ও মানুষের জন্য ক্ষতিকর৷ দুঃখজনক হলো, স্থানীয়দের আয়ের একটি অন্যতম উপায় এটি৷''

তাই আয়ের বিকল্প উপায় বের করা জরুরি৷ মোনালিসা খনি শ্রমিকদের কাছে গিয়ে তাদের বনায়ন প্রকল্পে যুক্ত করার চেষ্টা করছেন৷

মোনালিসা বলেন, ‘‘তারা আসলে নতুন কাজ করতে আগ্রহী, যদি না কাজটি অবৈধ হয় এবং তাদের জীবনের ঝুঁকি না থাকে৷ আমরা ফেয়ারভেঞ্চার্সের ১০ কোটি গাছ প্রকল্পে তাই করতে চাইছি৷''

পাম তেল চাষের জন্য এই বনকে জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছিল৷ এখন নতুন বন তৈরির জন্য চেষ্টা চলছে৷ স্থানীয় গ্রামবাসীরা এগিয়ে আসছেন৷ এতে তারা কিছুটা আয়ও করতে পারছেন৷ ব্যক্তি পর্যায়ের এবং জার্মান সরকারের ইন্টারন্যাশনাল ক্লাইমেট ইনিশিয়েটিভের অর্থে এ উদ্যোগ চলছে৷

চাষীরা ফেয়ারভেঞ্চারের কাছ থেকে সরাসরি বীজ সংগ্রহ করেন৷ তার আগে তাদের কেমন করে ও কোথায় তা লাগাতে হবে সে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়৷

রিস, ফালাহ/জেডএ

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

পুটিন ও জেলেন্সকি

ইউক্রেন সংকট কি এবার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে?

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান