‘হয় সামনে আসুন, নইলে অভিযোগ বন্ধ করুন′ | বিশ্ব | DW | 27.11.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

‘হয় সামনে আসুন, নইলে অভিযোগ বন্ধ করুন'

ইমপিচমেন্ট প্রক্রিয়া সম্পর্কে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিযোগ বন্ধ করতে সংসদীয় কমিটি তাঁকে সরাসরি আমন্ত্রণ জানিয়েছে৷ তিনি না এলেও ডিসেম্বর মাসে তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ করার প্রস্তুতি চলছে৷

প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ইমপিচমেন্ট তদন্তে কোনো বিলম্ব চাইছে না অ্যামেরিকার বিরোধী ডেমোক্র্যাটিক দল৷ ট্রাম্প ও তাঁর রিপাবলিকান দল এতকাল গোটা প্রক্রিয়াকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হিসেবে তুলে ধরে বিরোধীদের উপর চাপ সৃষ্টি করে চলার পর ডেমোক্র্যাটরা উলটে ট্রাম্পের উপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি করতে তাঁকে আগামী ৪ঠা ডিসেম্বর নিজের বক্তব্য পেশ করতে আমন্ত্রণ জানিয়েছে৷ সেই আমন্ত্রণ গ্রহণ করলে ট্রাম্প সংসদের নিম্ন কক্ষের বিচার বিভাগীয় কমিটির সামনে তাঁর আপত্তির কারণগুলি তুলে ধরার সুযোগ পাবেন৷ তাঁর বিরুদ্ধে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ পেলে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আনতে পারে সংসদীয় কমিটি৷

এমন আমন্ত্রণ ট্রাম্পকে যথেষ্ট বিড়ম্বনায় ফেলতে পারে৷ কারণ আমন্ত্রণ গ্রহণ করলে একদিকে প্রেসিডেন্ট ও তাঁর আইনজীবীরা কংগ্রেসের ইমপিচমেন্ট প্রক্রিয়ায় সরাসরি অংশ নিতে পারবেন, সাক্ষীদের তলব করা বা তাঁদের জেরা করার সুযোগ পাবেন৷ সে ক্ষেত্রে এই প্রক্রিয়াকে আর ‘একপেশে' হিসেবে তুলে ধরা যাবে না৷ অন্যদিকে প্রেসিডেন্ট নিজে যে বক্তব্য রাখবেন, সে সব তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবহার করা যেতে পারে৷ রবিবার সন্ধ্যা ছ'টার মধ্যে তাঁকে আমন্ত্রণ গ্রহণ করতে হবে৷ হোয়াইট হাউস এ বিষয়ে এখনো কোনো মন্তব্য করেনি৷

সংসদীয় কমিটির প্রধান জেরল্ড নাডলার এক বিবৃতিতে বলেন, প্রেসিডেন্টের সামনে দুটি পথ রয়েছে৷ তিনি এই সুযোগ গ্রহণ করে ইমপিচমেন্ট সংক্রান্ত শুনানিতে অংশ নিতে পারেন৷ অথবা তিনি এই প্রক্রিয়া সম্পর্কে অভিযোগ বন্ধ করতে পারেন৷ প্রেসিডেন্ট আমন্ত্রণ গ্রহণ করবেন বলে নাডলার আশা প্রকাশ করেন৷

ট্রাম্প নিজে সংসদীয় কমিটির সামনে না এলে কমিটি আর বিলম্ব না করে চূড়ান্ত রিপোর্ট প্রস্তুত করবে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ রুদ্ধদ্বার ও প্রকাশ্য শুনানিতে যা কিছু জানতে পারা গেছে, সে সব রিপোর্টে স্থান পাবে৷ প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ পেলে কমিটি আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আনার পরামর্শ দিতে পারে৷ সে ক্ষেত্রে ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি নিম্ন কক্ষে এ বিষয়ে ভোটাভুটি হবে৷ নিম্ন কক্ষ সেই প্রস্তাব অনুমোদন করলে বিষয়টি উচ্চ কক্ষে চলে যাবে৷ সেখানে রিপাবলিকান দলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় প্রস্তাব অনুমোদনের সম্ভাবনা প্রায় নেই বললেই চলে৷ তবে এমন পরিস্থিতিতে প্রেসিডেন্ট ও তাঁর দলের উপর আরও চাপ সৃষ্টি হবে৷ সেনেটের অনুমোদন পেলে জানুয়ারি মাসেই মূল ইমপিচমেন্ট তদন্ত শুরু হতে পারে৷

মঙ্গলবার ফক্স নিউজ চ্যানেলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প দাবি করেন, তিনি তাঁর আইনজীবী রুডি জুলিয়ানির মাধ্যমে ইউক্রেনের উপর চাপ সৃষ্টি করার কোনো চেষ্টা চালাননি৷ প্রতিপক্ষ জো বাইডেন ও তাঁর পুত্রের বিরুদ্ধে তদন্ত চালানোর শর্তে ইউক্রেনের জন্য বরাদ্দ সামরিক সাহায্যের অপব্যবহার করেননি৷ জুলিয়ানি ‘যোদ্ধা'-র মতো নিজেই যা করার করছেন বলে ট্রাম্প মন্তব্য করেন৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন