হয়রানির কারণে স্যোশাল মিডিয়া ছাড়ছে মেয়েরা | বিশ্ব | DW | 05.10.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সামাজিক মাধ্যম

হয়রানির কারণে স্যোশাল মিডিয়া ছাড়ছে মেয়েরা

স্যোশাল মিডিয়ার ব্যবহার বাড়ার সাথে সাথে মেয়েদের হয়রানি, নিপীড়নও বাড়ছে৷ ২২টি দেশের স্যোশাল মিডিয়া ব্যবহারকারী শতকরা ৬০ ভাগ মেয়ে হয়রানির কারণে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ছাড়ছেন৷

প্ল্যান ইন্টারন্যাশনালের এক গবেষণায় এ তথ্য জানানো হয়৷

২২টি দেশের মেয়েদের নিয়ে করা একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, প্রায় শতকরা ৬০ ভাগ অল্প বয়সি মেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনো না কোনোভাবে নিপীড়ন বা হয়রানির মুখোমুখি হয়েছে৷ সবচেয়ে বেশি হয়রানির শিকার হয়েছে ফেসবুকে, এর পরে রয়েছে ইনস্টাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপ এবং স্ন্যাপচ্যাট৷

প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল পরিচালিত এই সমীক্ষায় ২২টি দেশের ১৫ থেকে ২৫ বছর বয়সি মোট ১৪,০০০ মেয়ে অংশ নিয়েছে ৷ গবেষকরা ভুক্তভোগী অনেকের খুঁটিনাটি বিষয়ে সাক্ষাৎকারও নিয়েছেন ৷ জরিপে অংশ নেয়া দেশগুলোর মধ্যে ব্রাজিল, বেনিন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারতও রয়েছে৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হয়রানির শিকার যারা হয়েছেন, তাদের মধ্যে শতকরা ৩৯ জন ফেসবুকে এবং বাকিরা ইন্সটাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপ, স্ন্যাপচ্যাট, টুইটার ও টিকটকের মাধ্যমে৷

আপত্তিকর ভাষা ব্যবহার, বিব্রতকর কথাবার্তার কারণে অনেকে স্যোশাল মিডিয়ার ব্যবহার বন্ধ করে দিয়েছে বা খুবই কম ব্যবহার করছে৷ অংশগ্রহণকারীদের ২২ শতাংশ জানিয়েছেন, তারা শারীরিক নির্যাতনের ভয়ে স্যোশাল মিডিয়া থেকে দূরে সরে গেছেন৷ সংখ্যালঘু, জাতিগত বৈষম্য বা অন্যান্য সম্প্রদায়ের অন্তর্গত মেয়েদের ক্ষেত্রে হয়রানির ঘটনা অনেক বেশি ঘটে থাকে বলেও গবেষণা প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে৷

প্ল্যান ইন্টারন্যাশনালের সিইও অ্যান-বির্গিট আলব্রেক্টসেন বলেন, ‘‘অনলাইনে হয়রানি শারীরিকভাবে না হলেও এতে মেয়েরা ভয়ে থাকে, যা তাদের মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে বাধাগ্রস্ত করে৷’’ তাঁর মতে, মেয়েদের নিজেদেরই আত্মবিশ্বাসের সাথে অনলাইন সহিংসতাকে মোকাবেলা করতে হবে৷

যদিও ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রাম এ ব্যাপারে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানিয়েছে৷ তবে সমীক্ষায় দেখা গেছে, কোনো কিছুই এখনও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মেয়েদের হয়রানি বন্ধ করতে পারেনি৷

টানিকা গডবোল/এনএস