হ্যালো ভিসি সাহেব, প্লিজ সরে যান | বিশ্ব | DW | 23.09.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

হ্যালো ভিসি সাহেব, প্লিজ সরে যান

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক খোন্দকার নাসিরউদ্দিনের অপসারণ চেয়ে বৈরি আবহাওয়ার মধ্যেও আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা৷

তার আগে সন্ত্রাসীদের হাতে বেধড়ক মার খেয়েছেন তারা৷ শিক্ষকদেরও একটি বড় অংশ এই আন্দোলনে সংহতি জানিয়েছেন৷ অর্থাৎ, শুধু ছাত্রছাত্রীরাই নয়, সহকর্মীরাও উপাচার্যের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতার পাশাপাশি দুর্নীতির অভিযোগ তুলে তাঁর অপসারণ চাইছেন৷

এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ক্যাম্পাস সাংবাদিক ফাতেমা-তুজ-জিনিয়াকে বহিষ্কার করেন উপাচার্য নাসিরউদ্দিন৷ সমালোচনার মুখে ওই বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে৷ তবে তার আগে সারা দেশের মানুষ শুনেছে সন্তানতুল্য ওই শিক্ষার্থীকে শাসিয়ে কোন ভাষায় কথা বলেছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির সর্বোচ্চ অভিভবাক৷

মাননীয় উপাচার্য, আপনার পরিকল্পনাতেই আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা হয়েছে বলে আপনার সহকারী প্রক্টর ড. হুমায়ুন কবির অভিযোগ করেছেন৷ শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে বিবেকের তাড়নায় পদত্যাগও করেছেন তিনি৷ এখন কী বলবেন আপনি? পদ আকড়ে থাকতে আপনি শিক্ষার্থীদের ওপর যত জুলুম চালানো যায় তার সবই চালিয়েছেন৷ বিশ্ববিদ্যালয়টিকে কী মগের মুল্লুক বানাতে চাইছেন?

উপাচার্য মহোদয়, মনে রাখুন গায়ের জোরে, পেটোয়া বাহিনী লেলিয়ে দিয়ে কেউ কখনো পদে টিকে থাকতে পারেনি৷ ছাত্র আন্দোলনের মুখে পদত্যাগে বাধ্য হওয়া বাঘা বাঘা উপাচার্যদের মুখগুলো স্মরণ করুন৷ এখনো সময় আছে, প্লিজ সিদ্ধান্তে আসুন৷

ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানে নিজের বুক পেতে দিয়ে ছাত্রদের রক্ষা করেছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. শামসুজ্জোহা৷ পাকিস্তানি জোয়ানদের হাত থেকে নিজের ছাত্রদের বাঁচাতে তিনি বলেছিলেন, ''ডোন্ট ফায়ার, আই সেইড, ডোন্ট ফায়ার! কোনো ছাত্রের গায়ে গুলি লাগার আগে যেন আমার গায়ে গুলি লাগে৷’’ কথা রেখেছিলেন ড. জোহা৷ গুলিতে ঝাঁজড়া হয়ে শহীদ হয়েছিলেন তিনি৷ মাননীয় উপাচার্য, দেরি করবেন না, প্লিজ, এখনই সরে পড়ুন৷ যাদের জন্য আপনি উপাচার্য হতে পেরেছেন, সেই শিক্ষার্থীদের প্রতিপক্ষ বানিয়ে কখনো ওই পদে থাকা যায় না৷

Mohammad Shahidul Islam Khan

শহীদুল ইসলাম, ডয়চে ভেলে

দলীয় লোক না হলে ভিসি হওয়া যায় না, এটা আজ প্রতিষ্ঠিত সত্য৷ কিন্তু সব শিক্ষক এক রকমের না, সব ভিসির চরিত্রও এক না৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষকের মানসম্মান নষ্ট করবেন না, প্লিজ৷ শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে আর জল ঘোলা না করে পদ ছেড়ে দিন৷

শুধু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ই নয়, দীর্ঘ দিন ধরে অস্থিরতা চলছে জাহাঙ্গীরনগর এবং ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়েও৷ রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের পর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে চার বছরের জন্য উপাচার্য নিয়োগ দিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় যে প্রজ্ঞাপন জারি করে, সেখানে বলা থাকে, রাষ্ট্রপতি প্রয়োজন মনে করলে যে-কোনো সময় এই নিয়োগ আদেশ বাতিল করতে পারবেন৷ মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আচার্য দয়া করে এই প্রয়োজনটুকু মনে করুন৷ কারণ, ওই চেয়ারের লোভ ছেড়ে স্বেচ্ছায়-সসম্মানে তিনি বিদায় নেবেন বলে মনে হচ্ছে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন