হোয়াইট হাউসে ‘রিসেট′ বোতাম টিপলেন ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 01.08.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

হোয়াইট হাউসে ‘রিসেট' বোতাম টিপলেন ট্রাম্প

হোয়াইট হাউসে নতুন ‘চিফ অফ স্টাফ' নিয়োগ করে ও যোগাযোগ বিভাগের প্রধানকে বরখাস্ত করে নিজের টিমে ব্যাপক রদবদল করছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ দেশে-বিদেশে নানা চ্যালেঞ্জের মুখে জেরবার হচ্ছেন তিনি৷

প্রেসিডেন্ট হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজের ঘর সামলাতেই হিমশিম খাচ্ছেন৷ হোয়াইট হাউসে কোন্দল, কেলেঙ্কারি ও অরাজকতার ফলে বার বার চাপের মুখে পড়ছেন তিনি৷ ভেতরের সেই সব খবর ফাঁস হয়ে যাচ্ছে, অপদস্থ হতে হচ্ছে প্রেসিডেন্টকে৷ তাঁর নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি পালন করতে শক্তিশালী পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হচ্ছে হোয়াইট হাউস৷ ‘ওবামাকেয়ার' বাতিল করে নতুন আইন প্রণয়ন করতে গিয়ে বার বার ব্যর্থ হয়েছেন ট্রাম্প৷নিজের টিমে রদবদল করেও শান্তি আসছে না৷

এবার ‘চিফ অফ স্টাফ' পদে জেনারেল জন কেলিকে এনে স্থিতিশীলতা আনার চেষ্টা চালালেন ট্রাম্প৷ তাঁর সেই দায়িত্ব সহজ করতে সদ্য নিযুক্ত যোগাযোগ বিভাগের প্রধানকে বরখাস্তও করলেন তিনি৷ কিন্তু সমালোচকদের ধারণা, ট্রাম্প যতদিন না নিজের আচরণ বদলাবেন, ততদিন এই অরাজকতা বন্ধ হবার সম্ভাবনা তৈরি হবে না৷

১০ দিন আগে ওয়াল স্ট্রিটের ব্যাংকিং জগত থেকে অ্যান্টনি স্কারামুচি-কে হোয়াইট হাউসে নিয়ে এসে তাঁকে যোগাযোগ বিভাগের প্রধান হিসেবে নিযুক্ত করার পর পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটে৷ একদিকে ট্রাম্প-এর জয়গান, অন্যদিকে হোয়াইট হাউসের বিভিন্ন কর্মকর্তা সম্পর্কে প্রকাশ্যে কটু, প্ররোচনামূলক ও অশ্লীল মন্তব্য করে ‘মুচ' নামে পরিচিত যোগাযোগ বিভাগের প্রধান উলটে আরও অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেন৷ ‘চিফ অফ স্টাফ' রেন্স প্রিবাসও তাঁর শ্লেষের শিকার হয়েছিলেন৷

প্রথমে প্রিবাস, তারপর স্কারামুচিকে বরখাস্ত করে নতুন সূচনা করতে চাইছেন ট্রাম্প৷ নতুন ‘চিফ অফ স্টাফ' জেনারেল জন কেলি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারবেন, এমনটাই তাঁর আশা৷ তবে প্রথা অনুযায়ী হোয়াইট হাউসের সব কর্মী ও কর্মকর্তা ‘চিফ অফ স্টাফ' হিসেবে জেনারেল কেলির সরাসরি নিয়ন্ত্রণ মেনে নেবেন কিনা, তা স্পষ্ট নয়৷

এই রদবদলের পর ট্রাম্প টুইট করে মন্তব্য করেন, যে হোয়াইট হাউসের জন্য এটা বড় ভালো দিন৷

তিনি অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা মন্ত্রণালয়ে সীমান্ত নিরাপত্তার ক্ষেত্রে জেনারেল কেলির কাজের ভূয়সী প্রশংসা করেন৷ হোয়াইট হাউসেও তিনি অসাধারণ কাজ করবেন বলে পূর্ববাণী করেন ট্রাম্প৷

‘ওবামাকেয়ার' বাতিল, কর ব্যবস্থার আমূল সংস্কারের মতো অভ্যন্তরীণ চ্যালেঞ্জের পাশাপাশি উত্তর কোরিয়ার মতো গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি সামলাতে হোয়াইট হাউসকে আরও তৎপর হতে হবে৷ এই অবস্থায় এমন রদবদল সেই প্রত্যাশিত ফল নিয়ে আসে কিনা, সেদিকে নজর রাখবেন পর্যবেক্ষকরা৷

এসবি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়