হোমিওপ্যাথি: মেডিকেল থেরাপি, নাকি কুসংস্কার? | আলাপ | DW | 26.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

হোমিওপ্যাথি: মেডিকেল থেরাপি, নাকি কুসংস্কার?

হোমিওপ্যাথিকে প্রায়ই এক ন্যয়সঙ্গত ঔষধ, যা বিভিন্ন রোগ সারানোয় কার্যকর হিসেবে উপস্থাপন করা হয়৷ কিন্তু হোমিওপ্যাথি আসলে কী? এখানে থাকছে আটটি প্রশ্ন এবং উত্তর৷

হোমিওপ্যাথি কী?

২০০ বছর আগে স্যামুয়েল হানেমান নামের এক চিকিৎসক হোমিওপ্যাথি চিকিৎসাপদ্ধতি উদ্ভাবন করেছিলেন৷ এই চিকিৎসার তত্ত্ব হচ্ছে, কোনো একজন সুস্থ ব্যক্তির দেহে কোনো একটি ‘সাবস্টেন্স’ বা উপাদান প্রয়োগ করা হলে যে প্রতিক্রিয়া হয়, সেই একই প্রতিক্রিয়া দেখানো রোগীকে সুস্থ করতে সেই সাবস্টেন্স ব্যবহার করতে হবে৷ আর একজন রোগীকে চিকিৎসার ক্ষেত্রে তাঁর শারীরিক লক্ষণগুলোর পাশাপাশি মানসিক এবং আবেগী অবস্থাকেও মূল্যায়ন করেন হোমিওপ্যাথরা৷ তাঁরা একটি ঔষধে যেসব উপাদান ব্যবহার করেন, তা এতটাই দ্রবীভূত করা হয় যে, তার মধ্যে থাকা উপাদানটি বিশ্লেষণ করে আর মূল উপাদান সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায় না৷ 

কিন্তু তারপরও তাহলে হোমিওপ্যাথিক ঔষধে কাজ হয় কীভাবে?
 
হানেমান এক্ষেত্রে এক গূঢ় ব্যাখ্যা দিয়ে গেছেন৷ তিনি বিশ্বাস করতেন, হোমিওপ্যাথিক ঔষধে এক ধরনের ‘স্পিরিট-লাইক পাওয়ার’ রয়েছে৷ একটি উপাদানকে যখন রীতিনীতি মেনে ক্রমাগত অ্যালকোহল বা জলে দ্রবীভূত করে লঘু করা হতো, তখন তা সেই উপাদানে প্রবেশ করতো৷ বলা বাহুল্য, এ ধরনের কথাবার্তার কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই৷

Deutschland Arzt, Apotheker und Chemiker Samuel Hahnemann

হোমিওপ্যাথির জনক ক্রিস্টিয়ান ফ্রিডরিশ সামুয়েল হানেমান

ছোট্ট বলগুলোতে আসলে কী আছে?

হোমিওপ্যাথি চিকিৎসায়ব্যবহৃত উপাদানগুলো নানাভাবে আসে৷ এতে খুবই বিষাক্ত রাসায়নিক উপাদান আর্সেনিক এবং প্লুটোনিয়াম প্রায়ই ব্যবহার করা হয়৷ হোমিওপ্যাথি ঔষুধ তৈরির উপাদানের তালিকায় পটাশিয়াম সায়ানাইড এবং মার্কারি সায়ানাইডও রয়েছে৷ এছাড়া বিভিন্ন হার্বাল এবং অ্যানিমেল প্রোডাক্টও হোমিওপ্যাথি চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়৷ 

একজন রোগী কি জানেন তাঁকে ঠিক কী ঔষধ দেয়া হচ্ছে?

এটা আসলে অনেকটা চিকিৎসক বা হোমিওপ্যাথি চর্চা করা ব্যক্তির উপর নির্ভর করে৷ তবে অধিকাংশ রোগীই জানেন না যে, তিনি ঔষধ হিসেবে ঠিক কী গ্রহণ করছেন৷ আর ফার্মেসিতে হোমিওপ্যাথিক ঔষধগুলো শুধু সেসবের ল্যাটিন নাম দিয়ে চিহ্নিত করা থাকে৷ হোমিওপ্যাথির সমালোচকরা অবশ্য বারংবার দাবি করে আসছেন যে, একজন রোগীকে যেসব ঔষধ দেয়া হয় সেগুলোতে যাতে সেসবের জার্মান (অন্য দেশে হতে পারে ইংরেজি) নাম যোগ করা হয়, যাতে করে একজন রোগী বুঝতে পারেন যে তিনি ঔষুধ হিসেবে কী গ্রহণ করছেন৷

হোমিওপ্যাথিক ঔষধে আর কী থাকে? 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

গোল ‘পিল’ আকারের হোমিওপ্যাথিক ঔষধগুলোর মূল উপাদান হচ্ছে ‘ক্রিস্টাল সুগার’৷ আর তরল অবস্থায় হোমিওপ্যাথি সাবস্টেন্সগুলোকে আসলে অ্যালকোহল বা পানির বাইরে আর কিছু বলা যায় না৷ কেননা, অ্যাক্টিভ কম্পোনেন্টগুলোকে দ্রবীভূত করে এতটাই পাতলা করে ফেলা হয় যে, সেগুলো শনাক্ত করা অত্যন্ত জটিল ব্যাপার৷

ন্যাটোরোপ্যাথির সঙ্গে এটির সম্পর্ক কী?
 
ন্যাটোরোপ্যাথি এবং পাইথ্যোথেরাপিকে বিজ্ঞানসম্মত মনে করা হয়৷ তবে এসবের সঙ্গে হোমিওপ্যাথির কোনো সম্পর্ক নেই৷ যেমন হার্বাল চায়ের মধ্যে অনেক শনাক্ত করা যায় এমন সক্রিয় উপাদান রয়েছে, আর হোমিওপ্যাথিক ঔষধে অসনাক্তযোগ্য উপাদানই বেশি৷ 

হোমিওপ্যাথিক থেরাপির সবচেয়ে বড় ঝুঁকি কী? 

অকার্যকর হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা নিতে একজন রোগী যে সময় ব্যয় করেন, সেই সময়ের কারণে তাঁর রোগ আরো জটিল আকার ধারণ করতে পারে৷ যেমন, একজন ক্যানসার রোগী যদি কেমোথেরাপি বা রেডিওথেরাপির বদলে হোমিওপ্যাথিক উপায়ে রোগ সারানোর পথ বেছে নেন, তাহলে পরবর্তীতে তাঁর ক্যানসার চিকিৎসা করা দুরূহ হয়ে পড়তে পারে৷ আর এ ধরনের ক্ষেত্রে রোগীর মৃত্যুর আশঙ্কা বেড়ে যায়৷ তাছাড়া জার্মানিতে কোনো অভিভাবক যদি তাঁর সন্তানকে প্রচলিত চিকিৎসা ব্যবস্থাথেকে জোর করে বাইরে রেখে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা গ্রহণে বাধ্য করেন, তাহলে তিনি আইনি জটিলতায় পড়তে পারেন৷ 

তাহলে হোমিওপ্যাথির সাফল্য কিসের উপর নির্ভরশীল? 

হোমিওপ্যাথরা সাধারণত একজন রোগীকে এবং তাঁর রোগ সম্পর্কে জানতে বেশ কয়েক ঘণ্টা সময় ব্যয় করেন৷ তাঁরা সহানুভূতি প্রকাশের মাধ্যমে রোগীর দুর্বলতা সম্পর্কে জানার চেষ্টা করেন এবং নিবিড় আলোচনার মাধ্যমে এমন এক পরিস্থিতি তৈরি করেন যাতে রোগী নিজেকে গুরুত্বপূর্ণ ভাবতে শুরু করেন৷ আর এ কারণে হোমিওপ্যাথিকে মেডিসিনের বদলে সাইকোথেরাপি হিসেবে বিবেচনা করেন অনেকে৷ এভাবে আসলে একজন মানুষের ‘সেল্ফ-হিলিং’ ক্ষমতাকে জাগিয়ে তোলার চেষ্টা করা হয়৷ ঔষধ এখানে গৌণ ব্যাপার৷ হোমিওপ্যাথি তাই বিশ্বাসের ব্যাপার, যুক্তির নয়৷

ফাবিয়ান স্মিডট/এআই

প্রতিবেদনটি কেমন লাগলো জানান নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়