হেরাত, গজনি তালেবানের হাতে | বিশ্ব | DW | 13.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

আফগানিস্তান

হেরাত, গজনি তালেবানের হাতে

আফগানিস্তানের আরো দুইটি গুরুত্বপূর্ণ শহর তালেবানের দখলে। সূত্র জানাচ্ছে, কান্দাহারও তালেবান দখল করেছে। তবে আফগান প্রশাসন এখনো তার সত্যতা স্বীকার করেনি।

কাবুল থেকে তালেবানের দূরত্ব এখন আর মাত্র ১৫০ কিলোমিটার। বৃহস্পতিবার তালেবান ফৌজ দখল করে নিয়েছে গজনি। সেখানে গভর্নরের বাসভবনে তারা তালেবানের পতাকা লাগিয়ে দিয়েছে। পুলিশ স্টেশন তাদের দখলে। জেল থেকে ছাড়া হয়েছে আটক তালেবান বন্দিদের। একই ঘটনা ঘটেছে হেরাতেও। আফগানিস্তানের তৃতীয় বৃহত্তম শহরে তালেবান ফৌজ সমস্ত সরকারি দফতরে ঢুকে পড়েছে। স্থানীয় মানুষেরা সংবাদসংস্থা ডিপিএ-কে জানিয়েছেন, পুলিশ হেডকোয়ার্টারে তালেবান ঢুকে পড়েছে। আফগান প্রশাসনেরএক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা সংবাদসংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন, হিরাট ছেড়ে পালিয়ে গেছে সরকারি বাহিনী। এখন আর সেখানে লড়াই হচ্ছে না। তালেবান পুরো শহরের দখল নিয়ে নিয়েছে।

স্থানীয় সূত্র কোনো কোনো সংবাদসংস্থাকে জানিয়েছে, কান্দাহার শহরও তালেবানের দখলে চলে গেছে। কিন্তু এই তথ্যের সত্যতা এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি। হেরাত আফগানিস্তানের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। ইরান এবং তুর্কমেনিস্তানের সীমান্ত অঞ্চল বাণিজ্যের জন্য প্রসিদ্ধ। হেরাতের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়েও বহু মানুষ যাতায়াত করেন। সেই বিমানবন্দরেও তালেবান নিজেদের ঘাঁটি তৈরি করেছে।

অ্যামেরিকা-যুক্তরাজ্যের সেনা

অ্যামেরিকা এবং যুক্তরাজ্য জানিয়েছে, তারা আফগানিস্তানে নতুন করে সেনা পাঠিয়েছে। দেশের সমস্ত কূটনৈতিক অফিস এবং দূতাবাস বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। সেখানকার কর্মীদের দ্রুত ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কর্মীরা যাতে ঠিকমতো ফিরতে পারেন, তার জন্য সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। কর্মীরা ফিরলে সেনাও ফিরে যাবে। যুক্তরাজ্য জানিয়েছে, তালেবান ক্ষমতায় এলে আফগানিস্তানে যুক্তরাজ্যের কোনো কর্মীকে রাখা হবে না। ন্যাশনাল সিকিওরিটি কাউন্সিলের প্রধান ডিডাব্লিউকে জানিয়েছেন, তালেবান আফগানিস্তানে ক্ষমতায় এলে ইউরোপে জঙ্গি কার্যকলাপ বৃদ্ধি পাবে বলে তারা মনে করছেন।

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস জানিয়েছেন, তালেবান ক্ষমতায় এলে জার্মানি আফগানিস্তানকে আর কোনো সাহায্য করবে না। আর্থিক এবং অন্যান্য দিক থেকে জার্মানি বিপুল সাহায্য করে আফগানিস্তানকে। সেই সমস্ত কিছু বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে জার্মানি। জাতিসংঘ ফের তালেবান বাহিনীকে লড়াই থামিয়ে আলোচনার মাধ্যমে সমঝোতায় আসার প্রস্তাব দিয়েছে।

তালেবানের কর্মকাণ্ড

বিশ্ব যা-ই বলুক, তালেবান বাহিনী তাতে কান দিচ্ছে না। বৃহস্পতিবার হেরাত এবং গজনির বেশ কিছু ছবি তারা প্রকাশ করেছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে, দুইটি শহরেই প্রকাশ্য রাস্তায় তারা ঘুরে বেড়াচ্ছে। ওই ছবিগুলি দিয়েই শহর দুইটি দখলের প্রমাণ দিয়েছে তালেবান।

এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, ডিপিএ, এএফপি)