1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাছবি: Xinhua News Agency/picture alliance

হিন্দুদের প্রতি শেখ হাসিনার অনুরোধ ও বিপরীত বাস্তবতা

হারুন উর রশীদ স্বপন ঢাকা
১৯ আগস্ট ২০২২

‘‘নিজেদের সংখ্যালঘু মনে করবেন কেন?’’- প্রধানমন্ত্রীর এই প্রশ্নের জবাবে সংখালঘু নেতারা বলেছেন, ‘‘আমরা নিজেদের সংখ্যালঘু মনে করি না, কিন্তু আমাদের সংখ্যালঘু করে রাখা হয়েছে৷’’

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%B9%E0%A6%BF%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A6%E0%A7%81%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A4%E0%A6%BF-%E0%A6%B6%E0%A7%87%E0%A6%96-%E0%A6%B9%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%85%E0%A6%A8%E0%A7%81%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%BE%E0%A6%A7-%E0%A6%93-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%AA%E0%A6%B0%E0%A7%80%E0%A6%A4-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%AC%E0%A6%A4%E0%A6%BE/a-62871071

তাদের কথা, ‘‘সংবিধানে যখন ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম করা হয় তখন অন্যান্য ধর্ম গৌণ হয়ে যায়৷’’

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার জন্মাষ্টমী উপলক্ষে শ্রী শ্রী জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ এবং বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের নেতাদের সঙ্গে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে বলেন, ‘‘এই মাটিতে আপনাদের সমান অধিকার৷ আমার যতটুকু অধিকার, আপনাদেরও সেই অধিকার৷ এভাবে সকলেরই সমান অধিকার আছে৷ কাজেই এখানে আপনারা কখনোই নিজেদেরকে সংখ্যালঘু বা ওই রকম মনে করবেন কেন?’’ তিনি আরো বলেন, ‘‘আপনারা মনে করবেন আপনারা এই দেশেরই নাগরিক৷ সমানভাবে নাগরিক অধিকার আপনারা ভোগ করবেন এবং আমরা সেইভাবেই আপনাদেরকে দেখতে চাই৷কখনো নিজের ভেতর ওই হীনমন্যতা নিয়ে আসবেন না বা নিজেদেরকে আলাদা কিছু ভাববেন না৷’’

‘আমাদের সাংবিধানিক সংখ্যালঘুতে পরিণত করা হয়েছে’

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য প্রসঙ্গে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাসগুপ্ত বলেন, ‘‘পাকিস্তান আমলে সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রীয়ভাবেই আমাদের সংখ্যালঘু করে রাখা হয়েছিল৷ সংবিধানে বলা ছিল পাকিস্তান রাষ্ট্রে সংখ্যালঘুরা হলো রাষ্ট্রের পবিত্র আমানত৷ কিন্তু সংখ্যালঘু সম্প্রদায় ধর্মীয় বা জতিগত সংখ্যালঘু থাকার জন্য মুক্তিযুদ্ধ করেনি৷ তাই সেভাবেই ৭২-এর সংবিধান রচনা করা হয়েছিল৷ কিন্তু যখন সেই সংবিধান পরিবর্তন করে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করা হলো, তখন আমরা ফের সংখ্যালঘু হয়ে গেলাম৷ সেটা এখনো আছে৷ এখন আমরা চাই বা না চাই বাংলাদেশে মুসলিম ছাড়া অন্য ধর্মের লোকেরা সাংবিধানিকভাবে ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘুতে পরিণত হয়েছে৷’’

রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করার মধ্য দিয়ে আমাদের হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকে পরিণত করা হয়েছে: রানা দাসগুপ্ত

তিনি আরো বলেন, ‘‘সবাই আইনের চোখে সমান- সংবিধানে এই কথা লেখা থাকলেও রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করার মধ্য দিয়ে আমাদের হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকে পরিণত করা হয়েছে৷ এর সমাধান হলো ৭২-এর সংধিানে পুরোপুরি ফিরে যাওয়া৷’’

তিনি অনেকটা আক্ষেপ এবং হতাশা নিয়েই বলেন, ‘‘আমাদের প্রতি সমান আচরণও করা হয় না৷ সেটা হলে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের প্রয়োজন হতো না৷ আমরা তো সংখ্যালঘু থাকতে চাই না৷’’

‘আমাদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকে পরিণত করা হয়েছে’

তবে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক চন্দ্রনাথ পোদ্দার মনে করেন প্রধানমন্ত্রী ঠিকই বলেছেন৷ রাষ্ট্রের নাগরিক কেউ সংখ্যালঘু হতে পারে না৷ তারপরও তার কথা, ‘‘আমরাও নিজেদের সংখ্যালঘু ভাবি না৷ আমরা সংখ্যালঘু সহওয়ার জন্য মুক্তিযুদ্ধ করিনি৷ কিন্তু আমরা দেখি কোনো কোনো রাজনৈতিক দল আমাদের সংখ্যালঘু হিসেবে অভিহিত করছে৷ তারা বলছে, তারা ক্ষমতায় গেলে সংখ্যালঘুরা ভালো থাকবে৷ আমাদেরকে সংখ্যালঘু ভাবার একটি মাইন্ডসেট এখানে তৈরি হয়েছে৷’’

তিনি বলেন, ‘‘এখন কল্যাণ ট্রাস্ট আছে৷ সেখানে মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য বাজেটে বরাদ্দ হয়৷ অন্য ধর্মের জন্যও জনসংখ্যা অনুপাতে বরাদ্দ হওয়া উচিত৷ কিন্তু সেটা হয় না৷ তাছাড়া ৭২-এর সংবিধান পরিবর্তন করে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করে আমাদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকে পরিণত করা হয়েছে৷”

চন্দ্রনাথ পোদ্দার আরো বলেন, ‘‘তোমরা সংখ্যালঘু, তোমাদের আমরা দেখভাল করবো- এই কথার মধ্য দিয়েই আমাদের হেয় করা হয়৷ আমরা তখন হীনমন্যতায় ভুগি৷’’

আমাদেরকে সংখ্যালঘু ভাবার একটি মাইন্ডসেট এখানে তৈরি হয়েছে: চন্দ্রনাথ পোদ্দার

‘রাষ্ট্রের আচরণেও আমরা সংখ্যালঘু’

অমুসলিমদের নেতাদের অনেকেই মনে করেন, রাষ্ট্রের আচরণ এবং ভূমিকাও তাদের সংখ্যালঘু করে রেখেছে৷ বিশেষ করে তাদের ওপর নানা অজুহাতে হামলা এবং তার বিচার না হওয়ার বিষয়গুলো এক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রেখেছে বলে তারা মনে করেন৷ তারা মনে করেন, হামলার সময় পুলিশ প্রশাসনের ভূমিকায়ও প্রমাণ হয় যে মুখে যা-ই বলা হোক না কেন তাদের আসলে সংখ্যালঘু হিসেবই দেখা হচ্ছে৷  বাংলাদেশ বুদ্ধিষ্ট ফেডারেশনের এক্জিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট অশোক বডুয়া বলেন, ‘‘রামুতে হামলার সময় আমরা দেখেছি সেখানকার পুলিশ কর্মকর্তা হামলাকারীদের বলেছেন- আমার গায়ে পুলিশের পোশাক না থাকলে আমিও আপনাদের সঙ্গে অংশ নিতাম৷’’

তিনি বলেন, ‘‘আমরা এই যে ট্রাইবালরা আছি, তারা বাংলাদেশে সমান অধিকার পাচ্ছি না৷ শহরে হয়ত আমরা ভালো আছি, কিন্তু দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে আমরা প্রতিবেশীদের হুমকির মুখে থাকি৷ রাষ্ট্রধর্ম যদি ইসলাম থাকে, তাহলে তো আমরা সংখ্যালঘুই হয়ে যাই৷ আমি নিজেও একজন মুক্তিযোদ্ধা৷ আমার স্বপ্ন ছিল সবার মতো আমাদেরও একই অধিকার থাকবে৷’’

তার মতে, ‘‘এখন সরকারে উচিত হবে মাইনরিটি রাইট কমিশন করে তাদের অধিকার আগে নিশ্চিত করা৷ কেউ সংখ্যালঘু নয়, এটা বলে বৈষম্য দূর করা যাবে না৷’’

‘তাদের দুর্বল করা হয়েছে’

মানবাধিকার কর্মী নূর খান মনে করেন, ‘‘তাদের সাথে যে আচার-আচরণ করা হয়, যেভাবে হামলা করা হয়, তাতে তারা আর মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারেন না৷ ফলে তারা নিজেদের সংখ্যালঘু ছাড়া আর কিছু ভাবতে পারেন না৷’’

তিনি বলেন, ‘‘তবে মূল কথা হলো, সংবিধানে যখন রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করা হলো তখন সংবিধানকে একটি ধর্মীয় লেবাস পড়িয়ে অন্য ধর্মকে আলাদা করা হলো৷ ওই সব ধর্ম আর সমান মর্যাদায় থাকলো না৷ ফলে তারা নিজেদের সংখ্যালঘুর কাতারেই দেখতে পেলো৷ তাদের দুর্বল করা হলো বা তারা নিজেদের দুর্বল ভাবতে শুরু করলো৷’’

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

Symbolbild Euro Crash

ইউরোজোনে মূল্যস্ফীতি রেকর্ড

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান