হিন্দির আগ্রাসনের অভিযোগ, প্রতিবাদ পশ্চিমবঙ্গে | বিশ্ব | DW | 29.08.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

পশ্চিমবঙ্গ

হিন্দির আগ্রাসনের অভিযোগ, প্রতিবাদ পশ্চিমবঙ্গে

হিন্দি আগ্রাসনের অভিযোগ তুলে প্রতিবাদ শুরু হয়েছে পশ্চিমবঙ্গে৷ হিন্দির আধিপত্য অস্বীকার করে বাংলা ভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় প্রতিবাদ দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন জায়গায়৷ কোথাও মোছা হচ্ছে হিন্দি ভাষায় লেখা বোর্ড, কোথাও পড়ছে পোস্টার৷

‘হিন্দি ভারতের রাষ্ট্রভাষা', এমন একটা মিথ দেশের মানুষের মধ্যে প্রচলিত রয়েছে৷ ভারতের কোনো রাষ্ট্রভাষা আদৌ নেই, এই কথাটাই তুলে ধরতে চাইছে ‘বাংলা পক্ষ' সংগঠনটি৷ শুধু প্রচার নয়, হিন্দির বিরুদ্ধে তারা বেশ ক্ষুরধার আন্দোলনও গড়ে তুলছে৷ তবে সব কাজকর্ম সরাসরি এই সংগঠন করছে না৷ সম্প্রতি নানা ভাবে প্রতিবাদ দেখা যাচ্ছে, যা বাংলা ভাষার মর্যাদার পক্ষে সোচ্চার দাবি তুলে ধরছে৷

সম্প্রতি একটি ভিডিও নেট দুনিয়ায় ভাইরাল হয়েছে৷ কলকাতার কাছে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার মধ্যমগ্রাম স্টেশনের ভিডিওটি তোলা হয়৷ এই স্টেশনের ওভারব্রিজে হিন্দিতে ‘মধ্যমগ্রাম' লেখা রেল কর্তৃপক্ষের একটি বোর্ড রয়েছে৷ সেই বোর্ডে কালি লেপে দেওয়া হয়েছে৷ ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, এক ব্যক্তি কালি লেপে দিচ্ছেন হিন্দি বোর্ডে৷ প্রতিবাদীদের বক্তব্য, যে রাজ্যে ৮৬ শতাংশ মানুষ বাংলাভাষী, সেখানে কেন শুধু হিন্দিতে লেখা বোর্ড লাগাবে রেল৷

বাংলা ভাষার পক্ষে লড়াই চালানো সংগঠনটি এর আগে পশ্চিমবঙ্গের সীমানায় থাকা রেল স্টেশনে শুধু হিন্দি ও ইংরেজিতে বোর্ড লাগানোর প্রতিবাদ করেছে৷ তারা বলছে, কেন বোর্ডে বাংলায় স্থানের নাম বা অন্য কোনো বিজ্ঞপ্তি লেখা থাকবে না৷ কেন বাংলাভাষীদের অন্য দুটি ভাষায় বোর্ড পড়তে হবে৷ ঝাড়খণ্ড লাগোয়া আসানসোল ডিভিশনে রেলের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ ওঠে৷ যুক্তি মেনে নিয়ে দ্রুত বোর্ড পরিবর্তনের আশ্বাস দিয়েছেন রেল কর্তৃপক্ষ৷

সাম্প্রতিককালে, পশ্চিমবঙ্গের ট্রেনে-বাসে নজরকাড়া পোস্টার চোখে পড়ছে৷ একাধিক পোস্টারের বক্তব্য, হিন্দি রাষ্ট্রভাষা নয়৷ বাংলায় থাকলে বাংলা জানতে হবে৷ এই ধরনের মন্তব্য কিছু দিন আগে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখ থেকে শোনা গিয়েছিল৷ তাঁর মুখ থেকে শোনা গিয়েছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘জয় বাংলা' স্লোগানও৷ পাকিস্তানি দখলদার ও রাজাকারদের বিরুদ্ধে আন্দোলনের এই তেজদীপ্ত স্লোগান তোলার পরিস্থিতি কি আজকের পশ্চিমবঙ্গে আছে? বাংলা পক্ষের শীর্ষ সংগঠক গর্গ চট্টোপাধ্যায়ের বক্তব্য, ‘‘বিজেপি একটি হিন্দি সাম্রাজ্যবাদী দল৷ তাদের আমলে হিন্দির আগ্রাসন বেড়েছে৷ পশ্চিমবঙ্গে রেল পরিষেবায় বাঙালিদের নিয়োগ করা হচ্ছে না৷ আমাদের দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক করে তোলা হচ্ছে৷’’

অডিও শুনুন 02:50

বাঙালি হিন্দু, মুসলমান উভয়েই হিন্দি সাম্রাজ্যবাদের শিকার: গর্গ চট্টোপাধ্যায়

পশ্চিমবঙ্গে বাংলা যে অবহেলিত, সেটা যে কেউ কলকাতায় পা রাখলে বুঝতে পারবেন৷ কলকাতার এমন অনেক রাস্তা রয়েছে, যেখান দিয়ে হাঁটলে বোঝা যাবে না, এটা পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী৷ দোকানের বোর্ডে চোখ রাখলে এটা সবচেয়ে ভালো বোঝা যায়৷ কান পাতলে মানুষের আলাপচারিতায় হিন্দির প্রাধান্য নজর এড়াবে না৷ অনেক সময়ই মনে হতে পারে, হিন্দিই এখানকার প্রধান ভাষা৷ আপনি বাংলা বললেও অসুবিধা নেই! প্রয়াত সাহিত্যিক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে এ নিয়ে আন্দোলন হয়েছিল৷ তিনি প্রশ্ন তুলেছিলেন, দোকানের সাইনবোর্ডে কেন বাংলা থাকবে না? পুরসভা বাংলায় সাইনবোর্ড লেখা বাধ্যতামূলক করেছে বহু বছর আগেই৷ তার পরেও কলকাতা আছে সেই কলকাতাতেই৷

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতি এখন একটি বিশেষ সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে৷ ধর্মীয় মেরুকরণ ক্রমশ তীব্র হচ্ছে৷ গত লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলে তার ইঙ্গিত মিলেছে৷ এই রাজ্যের একটা বড় অংশের হিন্দিভাষী বিজেপির বিরুদ্ধে, হিন্দির আধিপত্যের বিরুদ্ধে লড়াই এদের কাছে কি ভুল বার্তা দেবে না? এ বিষয়ে গর্গ চট্টোপাধ্যায়ের বক্তব্য, ‘‘আমাদের আন্দোলনের মধ্যে ধর্ম কোথায়? বাঙালি হিন্দু, মুসলমান উভয়েই হিন্দি সাম্রাজ্যবাদের শিকার৷ যে হিন্দিভাষীরা বাঙালিবিরোধী নন, এই আগ্রাসনকে সমর্থন করেন না, তাঁরা আমাদের পাশে দাঁড়াবেন৷ নইলে পরোক্ষে আক্রমণকারীদেরই মদত জোগাবেন৷’’

শিক্ষাবিদ, প্রাক্তন উপাচার্য পবিত্র সরকার এই প্রতিবাদকে সমর্থন করেছেন৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘রেলের মতো কেন্দ্রীয় সরকারি প্রতিষ্ঠানে হিন্দি, ইংরেজি থাকবে৷ তার সঙ্গে বাংলাও থাকতে হবে আমাদের রাজ্যে৷ না থাকলে যদি কেউ হিন্দি মুছে দেন, সেটা একটা শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ৷ তবে বাংলা থাকলেও হিন্দি মুছে দেওয়া হবে চরমপন্থি পদক্ষেপ৷ এখানে যে অবাঙালিরা থাকেন, তাঁরা বাংলা শিখবেন, আমার ভাষাকে মর্যাদা দেবেন, এটা আমরা আশা করতেই পারি৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন