হিজাব বিতর্ক সুপ্রিম কোর্টে | বিশ্ব | DW | 11.02.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

কর্ণাটক

হিজাব বিতর্ক সুপ্রিম কোর্টে

কর্ণাটক হাইকোর্টের মন্তব্যকে চ্যালেঞ্জ করে হিজাব বিতর্ক নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে মামলা হলো।

কর্ণাটক হাইকোর্টের তিন বিচারপতির বেঞ্চে হিজাব বিতর্কের শুনানি চলছে। বিচারপতিরা জানিয়েছেন, পরবর্তী শুনানি হবে সোমবার। তার আগে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখতে কিছু পদক্ষেপের কথা জানিয়েছেন বিচারপতিরা। যার অন্যতম, যতদিন এই মামলা চলবে, ততদিন পর্যন্ত রাজ্যের স্কুল-কলেজে শুধুমাত্র ইউনিফর্ম পরেই যেতে হবে। কোনোরকম ধর্মীয় পোশাক ব্যবহার না করাই ভালো। অর্থাৎ, এই কয়দিন স্কুল-কলেজে যেতে হলে হিজাব পরা যাবে না। গেরুয়া চাদরও ব্যবহার করা যাবে না।

হাইকোর্টের এই বক্তব্যকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এবার সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করেছেন কর্ণাটকেরই এক ব্যক্তি। সেখানে বলা হয়েছে, আদালতের ওই সিদ্ধান্তের পুনর্বিবেচনা করতে হবে।

হিজাব বিতর্ক নিয়ে তুমুল উত্তেজনা চলছে কর্ণাটকে। যার রেশ এসে পড়েছে দেশের বেশ কয়েকটি অন্য রাজ্যেও। মধ্যপ্রদেশ, পুঁদুচেরি, উত্তরপ্রদেশেও বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক দানা বেঁধেছে। কর্ণাটক সরকার জানিয়েছে, যতদিন আদালতে বিষয়টি বিচারাধীন, ততদিন তারা এবিষয়ে কোনো মন্তব্য করবে না। পদক্ষেপও নেবে না। আদালতে শুনানি শুরু হয়েছে।

বস্তুত, মামলাটি প্রথমে কর্ণাটকের একজন বিচারপতির এজলাসে উঠেছিল। বিচারপতি জানান, এত গুরুত্বপূর্ণ মামলার বিচার বেঞ্চে হওয়া উচিত। ফলে প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে গঠিত তিনজনের বেঞ্চে মামলাটি নতুন করে উঠেছে। তারই প্রথম দিনের শুনানিতে নতুন নির্দেশ দিয়েছিল আদালত।

ঘটনার সূত্রপাত উদুপির একটি কলেজে। অভিযোগ, সেখানে কলেজে মেয়েদের হিজাব পরে ক্লাসে ঢোকা নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তারপরই বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গোলমাল শুরু হয়। ছাত্রীদের হিজাবের পাল্টা হিসাবে বেশ কয়েকটি জায়গায় ছাত্ররা গেরুয়া স্কার্ফ বা শাল গায়ে ক্লাসে আসে। বিভিন্ন জায়গায় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে হিজাব বনাম গেরুয়া শাল বা স্কার্ফ নিয়ে বিরোধ তুঙ্গে ওঠে। ভাইরাল হয় মুসকান নামে এক ছাত্রীর হিজাব পরে কলেজে ঢোকার ভিডিও। যেখানে দেখা যায়, পিছনে বেশ কিছু ছাত্র গেরুয়া শাল নিয়ে কার্যত তাকে তাড়া করতে করতে জয় শ্রীরাম স্লোগান দিচ্ছে। পাল্টা ওই ছাত্রীও স্লোগান দেন। গোটা বিষয়টি নিয়ে অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে কর্ণাটক। প্রশাসন তিনদিনের জন্য স্কুল-কলেজ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়।

এদিকে উদুপির কলেজের যে ছয়জন মেয়ের হিজাব পরা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়, তাদের ফোন নম্বর ফাঁস হয়ে গেছে। নেটমাধ্যমে তাদের ফোন নম্বর ছড়িয়ে পড়েছে। ছাত্রীদের অভিভাবকরা এনিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এসজি/জিএইচ (পিটিআই)