হিজাব, জিন্স, টিপ পরার অধিকার সবার আছে | আলাপ | DW | 08.04.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

হিজাব, জিন্স, টিপ পরার অধিকার সবার আছে

টিপ পরা নিয়ে এক নারীকে সম্প্রতি এক পুলিশ সদস্যের কটূক্তি বেশ আলোচিত হয়েছে৷ পোশাকের স্বাধীনতা নিয়ে কথাও হচ্ছে বেশ কিছুদিন ধরে৷ এই স্বাধীনতা কতটুকু আছে বাংলাদেশে? আইন ও সংবিধান কী বলছে?

ধর্ষণের জন্য নারীর পোশাককে দায়ী করা তো বাংলাদেশে সাধারণ ঘটনায় পরিণত হয়েছে৷

ধর্ষণের জন্য নারীর পোশাককে দায়ী করা তো বাংলাদেশে সাধারণ ঘটনায় পরিণত হয়েছে৷

টিপ নিয়ে আলোচনার মধ্যেই প্রবলভাবে আলোচিত হয়েছে হিজাব পরার স্বাধীনতা৷ আর না পরার স্বাধীনতাও উলটো পিঠের আলোচনায় আছে৷ হিজাব নিয়েও কটূক্তি হয়েছে৷ আবার জিন্স প্যান্ট পরার কারণেও নারীকে হেনস্তার শিকার হতে হয়েছে৷ এই সব ঘটনার মধ্যে ধর্মান্ধতা যেমন আছে, তেমনি ধর্মের বিরুদ্ধে অবস্থানও আছে৷ এমন নানা বিতর্কের মধ্যে পোশাকের কোনটি ধর্মীয় আর কোনটি ঐতিহ্যের, সেটাও বড় প্রশ্ন হয়ে দেখা দিয়েছে৷

টিপ পরায় নারীকে হেনস্তাকারী পুলিশ সদস্যের পক্ষ নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে প্রচুর পোস্টও দেখা গেছে৷ তারা ওই পুলিশ কনস্টেবলকে ‘নুরানী চেহারার ইসলাম প্রিয় ভাই' বলে সম্বোধন করে তার অপকর্মকে নানাভাবে বৈধতা দেয়ার চেষ্টা করেছেন৷

সামাজিক মাধ্যমে হিজাব নিয়েও কটাক্ষ করতে দেখা যায়৷ এছাড়া নিজস্ব পছন্দের পোশাক পরার কারণে সামাজিক মাধ্যমে অনেককে ‘চরিত্রহীন' আখ্যা দেয়া হচ্ছে হরহামেশাই৷ ধর্ষণের জন্য নারীর পোশাককে দায়ী করা তো বাংলাদেশে সাধারণ ঘটনায় পরিণত হয়েছে৷

কিন্তু বাংলাদেশের আইন ও সংবিধানে নারী-পুরুষের পোশাকের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে৷ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান বলেন, ‘‘আমাদের সংবিধানে পোশাকের বিষয়ে কোনো বাধানিষেধ নাই৷ যার ইচ্ছা হবে হিজাব পরবে, যার ইচ্ছা হবে জিন্স, টি-শার্ট পরবে৷ তবে কেউ যদি আবার পোশাকই না পরেন সে ব্যাপারে আইনে বাধা আছে৷ এটাকে আইন পাবলিক ন্যুইসেন্স হিসেবে দেখে৷ সেটার জন্য কেউ আইনের আওতায় প্রতিকার পেতে পারেন৷''

তার কথা, যদি কোনো নারীর পোশাক, টিপ বা সাজগোজের জন্য কেউ তাকে কুরুচিপূর্ণ, ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য বা অঙ্গভঙ্গি করেন তাহলে তার বিরুদ্ধে ইভটিজিং বা যৌন হয়রানির মামলা করতে পারেন৷

তবে কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ড্রেস কোড থাকতে পারে বলে মনে করেন তিনি৷ সেই ড্রেস কোড মেনেই শিক্ষার্থীদের সেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে হবে৷ ড্রেস কোড বিষয়টি প্রচলিত আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক নয় বলে জানান ইশরাত হাসান৷

ইশরাত হাসান, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট

ইশরাত হাসান, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট

ব্যারিস্টার মিতি সানজানা বলেন, ‘‘এখানে ধর্মীয় স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে৷ কিন্তু এটা কারুর উপর চাপিয়ে দেয়া যাবে না৷ কেউ ধর্মীয় পোশাক পরতে পারেন আবার কেউ নাও পরতে পারেন৷ এটা যার যার স্বাধীনতা৷ ব্যক্তির স্বাধীনতা আছে৷ প্রাইভেট লাইফের স্বাধীনতা আছে৷ আছে স্বাধীনভাবে চলাফেরার স্বাধীনতা৷ এটা কারুর পছন্দ বা অপছন্দ দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না৷''

সমাজে অসহিষ্ণুতা বাড়ছে তারই প্রতিফলন এখন দেখা যাচ্ছে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্ব ধর্ম ও সাংস্কৃতিক বিভাগের অধ্যাপক মো. শেখ ফরিদ৷ তার কথা, এখানে মৌলবাদের প্রভাবও বাড়ছে৷ এই মৌলবাদ সব ধর্মের মধ্যেই আছে৷ ব্যক্তির আচরণেও মৌলবাদ প্রকাশ পাচ্ছে৷ একজন যেটা বিশ্বাস করে তার বাইরে কিছু হলেই তার বিরুদ্ধে অবস্থান নিচ্ছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘কোনো ধর্মই অন্যের ব্যক্তি স্বাধীনতার ওপর হস্তক্ষেপের কথা বলেনি৷ কিন্তু সেটা আমরা ধর্মের নামে দেখতে পাচ্ছি৷''

মিতি সানজানা, ব্যারিস্টার

মিতি সানজানা, ব্যারিস্টার

অধ্যাপক ফরিদ বলেন, ‘‘কেউ টিপ পরবেন, কেউ পরবেন না৷ এটা তাদের ব্যক্তিগত স্বাধীনতার বিষয়৷ কেউ ধর্মীয় পোশাক পরতে পারেন, কেউ না পরতে পারেন৷ কেউ দাড়ি রাখতে পারেন, কেউ নাও রাখতে পারেন৷ এটা যার যার ব্যক্তি ও ধর্মীয় স্বাধীনতা৷ এটা নিয়ে জোর জবরদস্তি চলে না৷''

তিনি জানান, ‘‘কোনো নারী জিন্স, টি-শার্ট পরলে যেমন কখনো হেনস্তার শিকার হন৷ আবার বিশ্ববিদ্যালয়ে দেখেছি কেউ হিজাব পরার কারণে তাকে আলাদা গোত্রের বলে চিহ্নিত করা হয়৷ দুইটিই অগ্রহণযোগ্য৷''

তার কথা, একই ধর্মের মধ্যেও নানা গ্রুপ, উপ-গ্রুপ থাকতে পারে৷ তাদেরও তাদের মতো স্বাধীনতা আছে৷

বাংলাদেশে নিজস্ব ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির সঙ্গে ইসলামি সংস্কৃতির একটা টানাপোড়েন দীর্ঘদিন ধরেই চলছে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উইমেন অ্যাণ্ড জেন্ডার স্ট্যাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দ শাইখ ইমতিয়াজ৷ তবে তার কথা, ‘‘আমি মনে করি বাঙালি ঐহিত্যকে ধারণ করেই এই জনপদের মানুষকে এগিয়ে যেতে হবে৷ বঙালির উন্নয়ন, উন্নতি তার নিজস্ব ঐতিহ্যের হাত ধরেই হবে৷''

তিনি মনে করেন, বাংলাদেশে পোশাক নিয়ে ধর্মের নামে বাড়াবাড়ি শুরু হয়েছে৷ কেউ চাইলে হিজাব পরবেন, এটা তার স্বাধীনতা৷ আবার কোনো নারী চাইলে জিন্স টি-শার্ট পরবেন, এটা তার স্বাধীনতা৷ কিন্তু ৯০-এর পর থেকে এখানে মধ্যপ্রাচ্যের কালচার আমদানির চেষ্টা করা হচ্ছে৷ এর জন্য বিনিয়োগও হচ্ছে বলে জানান তিনি৷

অধ্যাপক ইমতিয়াজ বলেন, ‘‘পেশার বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ একজন পুলিশ সদস্য এক নারীর টিপ পরা নিয়ে কোনোভাবেই মন্তব্য করতে পারেন না৷ এটা তার পেশার সাথে কোনোভবেই যায় না৷''

তিনি মনে করেন, ‘‘আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা, পরিবার ও সামাজিক ব্যবস্থায় গলদ আছে৷ যার প্রকাশ আমরা দেখতে পাচ্ছি৷''