হামাসের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব জাতিসংঘে প্রত্যাখ্যান | বিশ্ব | DW | 07.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মধ্যপ্রাচ্য সংকট

হামাসের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব জাতিসংঘে প্রত্যাখ্যান

ফিলিস্তিনের হামাসকে ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন আখ্যা দিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আনা এক নিন্দা প্রস্তাবে ‘না' করে দিয়েছে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ৷

সাধারণভাবে অর্ধেকের বেশি ভোটে প্রস্তাব পাস হলেও, এই প্রস্তাবের ক্ষেত্রে শর্ত দেয়া হয় দুই-তৃতীয়াংশ ভোটের৷ খসড়া এই প্রস্তাবের পক্ষে ভোট পড়েছে ৮৭টি, বিপক্ষে ৫৮টি৷ ৩২টি দেশ ভোটদানে বিরত থাকে, আর অনুপস্থিত ছিল ১৬টি দেশ৷ খসড়া গ্রহণের পক্ষে ভোট দিয়েছে জার্মানি৷

তবে খসড়া প্রস্তাবে ভোটের আগে আরেকটি ভোট অনুষ্ঠিত হয়৷ আরব দেশগুলির দাবি অনুযায়ী, এই ভোটে অর্ধেকের বেশি নয়, শর্ত দেয়া হয় দুই-তৃতীয়াংশ ভোট পাওয়ার৷ অল্প ভোটের ব্যবধানে এই প্রস্তাবটি পাস করে জাতিসংঘ৷ যুক্তরাষ্ট্র অবশ্য দাবি জানিয়েছিল অন্যান্য প্রস্তাবের মতোই এই প্রস্তাবটিও সংখ্যালঘুর মতের ভিত্তিতেই নির্ধারণ হোক৷

‘দুই-তৃতীয়াংশ' শর্তের এই প্রস্তাবের পক্ষে ভোট পড়ে ৭৫টি, বিপক্ষে ৭২টি৷ ২৬টি দেশ ভোটদানে বিরত ছিল৷ তবে বেশ কয়েকটি দেশ শেষ মুহূর্তে তাঁদের অবস্থান পরিবর্তন করে পক্ষে ভোট দেয়৷

খসড়া প্রস্তাবে ভোটের আগে জাতিসংঘে মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি সাধারণ পরিষদকে বলেন, এই প্রস্তাব পাস হলে তা ইতিহাস হবে, এবং হামাসের জন্য বড় একটি ধাক্কা হবে৷ হামাসকে তিনি বিশ্বের সবচেয়ে ‘উদ্ভট' জঙ্গি সংগঠন বলেও আখ্যা দেন৷

হ্যালি বলেন, ‘‘আজ জাতিসংঘ যে সিদ্ধান্ত নেয়, তাতেই পরিষ্কার হবে, ইহুদিবিদ্বেষের বিরুদ্ধে প্রতিটি দেশ কতটা সোচ্চার৷'' তিনি বলেন, ‘‘ইহুদি রাষ্ট্র ও ইহুদি জনগণের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসকে সন্ত্রাস না বলার চেয়ে বড় ইহুদিবিদ্বেষ আর কিছু নেই৷''

হামাসকে আগেই ‘জঙ্গি সংগঠন' আখ্যা দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও জাতিসংঘ৷

হামাস কর্মকর্তা সামি আমু জুহরি সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, ‘‘খসড়া প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান হওয়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য বড় একটি আঘাত৷ এর ফলে এটাই প্রমাণ হয়েছে, আমাদের প্রতিরোধের বৈধতা রয়েছে৷''

ফিলিস্তিনের ক্ষমতা নিয়ে দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের দল ফাতাহ'র সাথে হামাসের দ্বন্দ্ব থাকলেও আব্বাস জাতিসংঘে প্রস্তাব প্রত্যাখ্যানের ঘটনাটিকে স্বাগত জানিয়েছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘ফিলিস্তিনিদের জাতীয় সংগ্রামকে নিন্দা জানায়, এমন কোনো কর্মকাণ্ডকে স্বাগত জানাবে না ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্সি৷''

এডিকে/এসিবি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন