হঠাৎ বন্যায় অসহায় সিলেট | বাংলাদেশ | DW | 24.06.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

হঠাৎ বন্যায় অসহায় সিলেট

সিলেটের এবারের বন্যাকে ১২২ বছরের ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ বলে আখ্যা দিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী৷ একজন বিশেষজ্ঞ বলছেন, ১২২ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত এবার হয়নি৷ তাহলে বন্যা কেন এত ভয়াবহ রূপ নিলো?

বিছনাকান্দির পর গত কয়েক বছর ধরে সিলেটের ভোলাগঞ্জের সাদাপাথর হয়ে উঠেছে বাংলাদেশি ভ্রমণ পিপাসুদের আরেক জনপ্রিয় গন্তব্য৷ ধলাই নদীর বাংলাদেশ উৎসে সাদাপাথর আর জলের খেলায় মেতে অনেক পর্যটক মেঘালয়ের সৌন্দর্য দেখে সীমান্তে দাঁড়িয়ে আফসোসও করেন৷

কিন্তু কজন খবর রাখেন,এবার সিলেটে হঠাৎ বন্যার যে পানি হানা দিয়েছে, তার বড় একটা অংশ মেঘালয়ের পাহাড় থেকে নেমে এসেছে এই অগভীর ধলাই নদ দিয়েই৷ কারণ সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার এই ভোলাগঞ্জ থেকে সোজা উত্তরের পাহাড়ে পৃথিবীর সবেচেয়ে বৃষ্টিপাতপ্রবণ এলাকা চেরাপুঞ্জি৷

ভারতীয় আবহাওয়া বিভাগ গত ১৬ জুন এই চেরাপুঞ্জিতে ৯৭ সেন্টিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে৷ যা দেশটির আবহাওয়া বিভাগের কাছে থাকা ১২২ বছরের রেকর্ডে তৃতীয় সর্বোচ্চ৷ তথ্য উপাত্ত বলছে,সর্বোচ্চ ১৫৬ দশমিক ৩ সেন্টিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছিল ১৯৯৫ সালে৷

এবারের ১৬ জুনের আগে-পরেও ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে মেঘালয় ও আসামে৷ সেই পানি নেমে এসে ভাসিয়ে দিয়েছে বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলকে৷

এরমাঝেই বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা: মো: এনামুর রহমান বলেন, সিলেটের এই বন্যা ১২২ বছরের ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যা৷

পরিবেশ বিজ্ঞানী ও পানি সম্পদ বিশেষজ্ঞ,যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ার লক হ্যাভেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ১২২ বছরে এবার তৃতীয় সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে৷ সর্বোচ্চ না৷ কিন্তু এবারের বন্যাটা এত তীব্র কেন-সেটা হচ্ছে মূল কথা৷ 

মেঘালয় থেকে আসা আন্তঃসীমান্ত নদীগুলোকে আমরা সেভাবে আমলে নিচ্ছি না: আব্দুল হাই আল হাদী

‘তীব্র বন্যার যত কারণ’

ড. খালেকুজ্জামানের মতে,আগের দুইবারের তুলনায় কম বৃষ্টিপাত হলেও দীর্ঘদিন ধরে ভূমি ব্যবহার বদলে যাওয়ায় এবার বেশি বন্যা হচ্ছে৷

তিনি বলেন,আমাদের হাওরের নদীনালা খালবিলগুলো অনেক পরিবর্তন হয়ে গেছে৷ নদীবক্ষ ভরাট হয়ে গেছে৷

‘‘সিলেটের সুরমা নদীর কথাই যদি ধরি, সেটার তলদেশ এখন ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে৷ ময়লা আবর্জনা, সিলেটে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা তেমনভাবে নেই৷ সিলেট শহরের ছড়া ও নালা-নর্দমা, সুয়ারেজ সিস্টেমও অনেকটা অকেজো হয়ে পড়েছে৷ তাই এখন আগের সমপরিমাণ বৃষ্টি হলেও বন্যার তীব্রতা অনেক বেড়ে যায়৷”

অবশ্য সিলেটে সারি নদী বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি আব্দুল হাই আল হাদী এই আলোচনায় দৃষ্টান্ত হিসাবেও সুরমাকে শুরুতেই সামনে আনতে নারাজ৷

তার মতে, সুরমা-কুশিয়ারার দেশের গুরুত্বপূর্ণ নদী হলেও এই বন্যাকে বুঝতে হলে দৃষ্টি দিতে হবে অন্য নদীগুলোর দিকে৷

সিলেটের পূর্ব সীমান্ত দিয়ে আসাম থেকে এই দুই নদী বাংলাদেশে এসেছে৷ এর মাঝে সুরমা এসেছে জকিগঞ্জ দিয়ে৷

হাদীর মতে, এই জকিগঞ্জের পর থেকে কানাইঘাট, জৈন্তাপুর, গোয়াইনঘাট, কোম্পানিগঞ্জ; সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার,ছাতক,তাহিরপুর; এমনকি নেত্রকোণা পর্যন্ত মেঘনা বেসিন৷ এই বেসিনের প্রায় ৫০টার মত নদী মেঘালয় থেকে  এসেছে৷

তার অভিযোগ, মেঘালয় থেকে আসা আন্তঃসীমান্ত নদীগুলোকে আমরা সেভাবে আমলে নিচ্ছি না৷ সুরমা-কুশিয়ারা নিয়েই আছি৷ অথচ এই নদীগুলোর চরিত্র সম্পূর্ণ আলাদা৷ পাহাড়ে রাতে বৃষ্টি হলে সকাল হতে না হতে হঠাৎ বন্যার পানিতে এখানকার জনপদ-সম্পদ-জীবন সবকিছু উলটপালট হয়ে যায়৷

তিনি বলেন, আড়াআড়িভাবে সোজা উপর থেকে নিচে পড়ার কারণে এগুলোর পানির বেগ থাকে প্রচণ্ড৷ এ কারণে জানমালের বিশাল ক্ষতি হয়৷

সিলেট অঞ্চলের নদী রক্ষা আন্দোলনের এই সংগঠক বলছেন, এই নদীগুলোর কোনটাই ঠিক অবস্থায় নাই৷ এগুলো দিয়ে প্রচুর পাথর ও বালি আসে৷ মানুষজন এগুলোকে ক্ষতবিক্ষত করে ফেলেছে৷ প্রায় নদীই ভরাট হয়ে গেছে৷ অনেকগুলো নদী প্রায় বিলীনের পথে৷

তার মতে, দ্বিতীয় কারণ নদীর প্লাবনভূমি না থাকা৷

তিনি বলেন,ফ্লাশ ফ্লাডের সময় এ সব প্লাবনভূমিতে পানি জমা হতো৷ অনেক নদীর সেই প্লাবন ভূমি এখন আর নেই৷

পানির প্রবাহ নষ্ট করা অবকাঠামো সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন,এখানের প্রধান সড়ক যদি ধরেন৷ সিলেট-শিলং রোড ১৯২০ সালে ব্রিটিশরা করেছিল৷ উত্তর-পূর্ব অংশের পানি এখানে বাধাগ্রস্ত হয়৷ সিলেট-ভোলাগঞ্জ রোড৷ এটা অনেক উঁচু একটা রোড৷ এবার কোমর সমান পানি এই রাস্তার উপর দিয়ে গেছে৷ছাতক দোয়ারাবাজারে অনেক রোড হচ্ছে৷ নেত্রকোণার অলওয়েদার রোড৷

‘হাওরে বন্যা-বাঁধ-অলওয়েদার সড়কের দায়’

কিশোরগঞ্জের ইটনা,মিঠামইন ও অষ্টগ্রামকে যুক্ত করে নির্মিত হয়েছে অলওয়েদার সড়ক৷ এর নির্মাণে যথাযথ সতর্কতা অবলম্বন করা হয়নি বলে মনে করেন লক হ্যাভেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড.মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান৷

নির্মাণের আগে এটির অন্তত ৩০ ভাগ এলিভেটেড করারও পরামর্শ দিয়েছিলেন তিনি৷ কিন্তু তার সেই পরামর্শে কর্ণপাত করেনি কর্তৃপক্ষ৷ তবে সম্প্রতি হাওরের সব সড়ক এলিভেটেড করতে মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্তকে নিজের সেই অবস্থানের বিজয় হিসাবেই দেখছেন তিনি৷

সিলেটের বন্যায় এই অলওয়েদার সড়কের দায় সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন,সিলেট ও সুনামগঞ্জ থেকে অষ্টগ্রাম, ইটনা ও মিঠামইনের সড়ক অনেক ভাটিতে৷ তাই এই বন্যার সাথে এই সড়কের খুব একটা সম্পর্ক নেই৷

‘‘তবে বন্যা যখন আস্তে আস্তে কিশোরগঞ্জে নেমে আসবে,তখন এই সড়ক স্বাভাবিক পানি চলাচলে কিছুটা বাধা দিতে পারে৷ তখন ওই রাস্তার একদিকে বন্যার তীব্রতা কিছুটা বেশি হতে পারে৷”

এখনকার বন্যায় ভূমিকা না থাকলেও হাওরের পরিবেশে এই সড়কের দায় আছে বলে মনে করেন তিনি৷

এটা বোঝাতে তিনি হাওর বোঝার উপর গুরুত্ব দেন৷

তার মতে,বৃহত্তর সিলেট ও ময়মনসিংহ অঞ্চলে প্রায় ৩৭৩টা হাওর রয়েছে৷ বর্ষাকালে এগুলো একটার সাথ আরেকটা সংযুক্ত হয়ে মিঠাপানির সাগরে পরিণত হয়৷ সাগর থেকেই অপভ্রংশ হাওর৷এটা প্রকৃতির অন্যন্য সাধারণ একটা উপাদান৷

‘‘এটা প্রাকৃতিকভাবে তৈরি হয়েছে৷ এর বৈশিষ্ট্যই হচ্ছে,পানির অবাধ চলাচল৷ মাছের অবাধ চলাচল৷ কৃষক-মাঝি-জেলেরাও যেন বর্ষাকালে হাওরের যে কোন জায়গায় যাতায়াত করতে পারে৷”

‘‘এখন আপনি যদি হঠাৎ করে একটা অলওয়েদার রাস্তা করে ফেলেন৷ তাহলেতো সেই বৈশিষ্ট্যটা অক্ষুন্ন থাকছে না৷ এটাকে নষ্ট করে ফেলছেন৷ কারণ পানির অবাধ চলাচল থাকছে না৷ মাছের অবাধ বিচরণক্ষেত্র থাকছে না৷ মাঝি-জেলে যেতে পারছে না৷

"কিন্তু এখানে ৩০-৩৫ শতাংশ উড়াল সেতু করা হলে পানির অবাধ চলাচল থাকতো৷”

তিনি বলেন,এই সড়কের পশ্চিম পাশে ধনু,পূর্বপাশে কালনী নদী৷ একটা নদীতে বেশি পানি হলে সেটা গড়িয়ে অন্য নদীতে যেতে পারতো৷

এক প্রশ্নের জবাবে ফসল রক্ষা বাঁধ নিয়ে কথা বলেন তিনি৷ তার মতে,এ সব বাঁধ দিয়ে অনেক ক্ষেত্রেই ফসল রক্ষা হয় না৷ এটা বরং মানুষকে ফলস সেন্স অব সিকিউরিটি দেয় যে,এগুলো আমাদেরকে রক্ষা করবে৷

খালেকুজ্জামান বলেন, এই বাঁধের কারণে ভূউপরিউস্থ পানি,বৃষ্টির পানি গড়িয়ে গিয়ে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে৷ পানিপ্রবাহ বাধাগ্রস্ত হয়ে গতি কিছুটা স্লথ হয়ে পড়ে৷ তাতে করে পানিটা সরতে গিয়ে সময় লাগে৷ বন্যাটা আরো বেশি প্রলম্বিত হয়৷

ফসল রক্ষা বাঁধ না করলে চলবে কী করে-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,না করে করতেই পারলে ভালো৷ আমি নিজে কৃষি বিজ্ঞানী না৷ তবে হাজার বছর ধরে আমাদের পূর্বপুরুষরা নিশ্চয়ই ফসল রক্ষা বাঁধের উপর নির্ভর করতেন না৷ করলেও তখন বাঁধগুলো ছিল ভিন্ন৷ যেমন,তখন বলা হতো অষ্টমাসি বাঁধ৷ আট মাস ধরে বাঁধ থাকবে৷ তারপর সেটাকে সরিয়ে দেয়া হবে৷ প্রকৃতির সাথে মিল রেখে বাঁধ৷

এই অষ্টমাসি বাঁধকে মাথায় রেখে নতুন কিছু করা যেতে পারে বলে মত তার৷

তিনি বলেন,হাওর অঞ্চলের সব পানিই নিষ্কাসিত হয় ভৈরব ব্রিজের নিচ দিয়ে৷ সেখানে আগে একটা ব্রিজ ছিল৷ এখন আরো দুইটা ব্রিজ হয়েছে৷ ভৈরবের বাঁধের নিচে একটা বটল নেক তৈরি হয়েছে৷ আগে বলেছি,ভাটিতে নদীর প্রস্থ বাড়তে হয়৷

‘‘কিন্তু এখানে উল্টো হয়েছে৷সেখানে পানি ধারণ ক্ষমতা কমে গেছে৷ সংকুচিত হয়ে গেছে৷ পিলারের কারণে পলি জমে ধারণ ক্ষমতা আরো কমে গেছে৷ তাই কেবল এই বন্যা নয়৷ অন্যান্য  বন্যায়ও পানি সরতে সময় বেশি নেয়৷ এ কারণে হাওরের বন্যা আরো বেশি জলাবদ্ধতা তৈরি করে,আরো বেশি ক্ষতির কারণ হয়৷”

হঠাৎ করে প্রকল্প গ্রহণের বিরোধিতা করে তিনি বলেন, অলওয়েদার সড়ক কিন্তু ডেল্টা প্লানেও নেই৷ হাওর মাস্টার প্লানেও নেই৷

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ভবিষ্যতে বন্যা আরো বাড়বে: ড.মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান

বন্যার দুর্দশা ও ভবিষ্যতের প্রস্তুতি

এবারের হঠাৎ বন্যায় থমকে যায় সিলেট অঞ্চল৷ কেবল খাদ্য-পানি-আর আশ্রয়ের সংকটই ছিল না৷ বিদ্যুৎ চলে যায়, মোবাইল নেটওয়ার্ক বন্ধ হয়ে যায়৷ চার্জের কারণেও অনেকে মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারেননি৷

সিলেটের সাংবাদিক দ্বোহা চৌধুরী এই বন্যা খুব কাছে থেকে কাভার করছেন৷ বন্যার শুরু থেকেই সিলেট-সুনামগঞ্জ অঞ্চলের নানা এলাকা তিনি চষে বেড়িয়েছেন৷ ‘৮০০ টাকার নৌকা ভাড়া এখন ৫০ হাজার'-শিরোনামে তার একটি  প্রতিবেদন ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে৷

এই প্রতিবেদনের পেছনের গল্প  প্রসঙ্গে গিয়ে তিনি বলেন,শুরুতেই ডুবে যাওয়া কোম্পানিগঞ্জ ও গোয়াইনঘাট উপজেলায় যেতে সিলেটের সালুটিকর থেকে বড় নৌকা বা ট্রলার যায়৷

 ‘‘আগের দিনই (১৭ জুন)সিলেটের লোকাল গ্রুপগুলোতে চোখে পড়েছে যে, অনেকে বলেছে, নৌকা ভাড়া অনেক বেশি৷ সেই কারণে তারা ত্রাণ নিয়ে যেতে পারছে না৷”

‘‘পরদিন গিয়েও দেখলাম,নৌকা ভাড়াটা বেশি চাচ্ছে৷"অনেক বেশি টাকা দিয়েও অনেকে নৌকা পাচ্ছিলেন না৷ কিছু কিছু ক্ষেত্রে এমনও হয়েছে৷ তখন ওখানে গিয়ে এই সিনারিটা চোখে পড়লো৷”

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,প্রথম দুই তিন দিনে এটা কমন হয়েই গিয়েছিল৷ এই দুই উপজেলার অনেক মানুষ সিলেট শহরে চাকরি করেন,সিলেট শহরে থাকেন৷ ফ্যামিলি ওখানে থাকে৷ সাপ্তাহিক ছুটির দিনে যান, আবার শহরে চলে আসেন৷

‘‘ওইদিকে পানি রাতারাতি বাড়ছে৷ তাই আগে থেকে ওইদিকে যাওয়া বা তাদেরকে নিয়ে আসার সুযোগ হয় নাই৷ নেটওয়ার্ক বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে৷ যোগাযোগও করতে পারছেন না৷ এমন একটা পরিস্থিতি হয়েছে যে, সব মানুষ ওখান থেকে রওনা দিতে চাচ্ছে৷ এটাও একটা কারণ,এর ফলে সেখানকার মাঝিরা তৎক্ষণাত একটা সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করেছে৷”

‘‘নিয়মিত মাঝিদের পাশাপাশি বালু ও পাথর পরিবহনের ট্রলারগুলোও সালুটিকর ঘাটে এসে পরিবহন করছিল৷ তারাও অনেক বেশি চার্জ করছিল৷কারণ ডিমান্ড ছিল টু-মাচ৷”

তবে এখন পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি৷

তিনি বলেন,দুইদিন আগেও (২০ জুন)ত্রাণের একটি নৌকাকে ভাড়া দিতে হয়েছে ১০ হাজার টাকা৷ এখন (২২জুন)অনেকে কমেছে৷ তবে কিছু কিছু জায়গায় অনেক কম টাকায় বা বিনামূল্যেও কেউ কেউ নৌকার সাপোর্ট দিচ্ছেন৷ কেউ কেউ তেল খরচেও সার্ভিস দিচ্ছে৷

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,এখন পর্যন্ত ত্রাণ কার্যক্রম সন্তোষজনক না৷ আমরা সিলেট ও সুনামগঞ্জের কথা বলছি৷ গতকাল দূর-দূরান্তের গ্রামের খবরও পাচ্ছি৷ ত্রাণ কার্যক্রম সন্তোষজনক না৷

‘‘আজকেও একটা রিপোর্ট করেছি,সিলেটে কী পরিমাণ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে,সেটা পানিবন্দি মানুষের তুলনায় কতটুকু৷ আমাদের হিসাব বলছে,পার হেড ৪৪০ গ্রাম চাল সরকার বরাদ্দ দিয়েছে৷ বণ্টনের কথা যদি বলি,অনেক আশ্রয়কেন্দ্রে বুধবারও ত্রাণ পৌঁছায়নি৷”

‘‘বিশেষ করে,সিলেটের কোম্পানিগঞ্জ,গোয়াইনঘাট,সুনামগঞ্জের ছাতক,দোয়ারাবাজার বিস্মম্ভরপুর-এ সব এলাকার রিমোট জায়গাগুলোতে সরকারি ত্রাণ এখনো (২২জুন) পৌঁছায় নাই৷”

সিলেটে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো আশ্রয়কেন্দ্র হিসাবে ব্যবহার করতে পারলেও  সুনামগঞ্জে হাওরাঞ্চলে আশ্রয়কেন্দ্রেরও সংকট রয়েছে বলে মনে করেন তিনি৷

তবে সবচেয়ে বেশি সংকট তিনি দেখছেন সমন্বয়ে৷ শহরের আশেপাশে অনেক এলাকায় বারবার ত্রাণ বিতরণ হলেও অনেক এলাকা রয়েছে যেখানে কেউ যাচ্ছে না৷

তার মতে,মুখে জেলা প্রশাসন যদিও সমন্বয়ের কথা বলছেন৷ কিন্তু ত্রাণ বিতরণ করতে কোন এলাকায় যেতে হবে, সেটা যে কেউ যে কোন সময় জানার কোন ব্যবস্থাপনা তার চোখে পড়েনি৷

সিলেটের গোয়াইনঘাট,জাফলং এবং জৈন্দাপুর এলাকায় ত্রাণ বিতরণে ছিলেন ফ্যাক্ট চেকার আমির শাকির৷

বুধবার তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন,তার ঘুরে দেখা এলাকায় পানি পাঁচ ফিটের মত কমে গেছে৷ খাটের উপরে যাদের পানি উঠেছিল,তাদের উঠান থেকেও পানি নেমে গেছে৷

পথে অনেক বাড়ি একেবারে ভেঙে পড়েছে বলেও দেখেছেন তিনি৷ আবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে  এমন বাড়িও তার চোখে পড়েছে৷ ভেঙে পড়া বাড়ির সংখ্যা ১-২ শতাংশ এবং ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ৩০ শতাংশের মত হতে পারে বলে তার ধারণা৷

বন্যার পূর্বাভাস কতটা সম্ভব?

বাংলাদেশের বন্যার পূর্বাভাস দেয়ার জন্য রয়েছে সরকারি একটি প্রতিষ্ঠান৷ এর নাম ‘বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র'৷

এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো.আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, বন্যা হওয়ার আগে আমরা বুঝতে পারি এবং সেই অনুযায়ী আমরা পূর্বাভাসও দেই৷

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,আমাদের পরে সরকারের প্রায় ১৭টা মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তর আছে, যারা এই বন্যা ব্যবস্থাপনার সাথে জড়িত৷সবারই নিজেদের অবস্থান থেকে কিছু দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে৷

‘‘কেউ বার্তাটা সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়৷ কেউ রেসকিউ অপারেশনের প্রস্তুতি নেয়৷ কেউ খাদ্য সামগ্রীর বিষয়ে প্রিপারেশন নেয়৷ কেউ হয়ত লাইভ স্টকের বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়৷ বিভিন্ন সংস্থার কাজ থাকে এখানে৷”

‘‘আমাদের পূর্বাভাসে থাকে যে,উজানে ভারি বৃষ্টিপাত হবে৷ নদনদীর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করবে৷  কোন কোন  ক্ষেত্রে আমরা হয়ত মেয়াদটা বলি, এই কয়দিনের বন্যা হবে৷”

‘‘তার ভিত্তিতে প্রশাসনকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে,কে কোন এলাকায় আছে, কার জন্য কতটা বিপদ আসবে৷ আমরা প্রতিটা পয়েন্টের জন্য আলাদা আলাদাভাবে বলে দিতে পারবো না যে, এখানে সাধারণ বন্যা হবে, ওখানে তীব্র বন্যা হবে৷”

চেরাপুঞ্জির বৃষ্টিটা আঁচ করতে পেরেছিলেন কি-না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,আমরা কেন সবারই একটা সাধারণ ধারণা থাকা উচিত,এ বছর যেহেতু এপ্রিল মাসে তীব্র বৃষ্টি হলো৷ এরপর আবার মে মাসে বৃষ্টি হলো৷ সেটাও তীব্র হলো এবং জুন মাসের বৃষ্টির আগে যখন আমরা ওয়ার্নিং দিলাম৷

‘‘তখনও সাধারণ মানুষ যদি এটা বুঝতে না পারে৷ প্রশাসন বা প্রস্তুতি নেয়ার জায়গা যাদের আছে, তারা যদি বুঝতে না পারে৷ সেক্ষেত্রে এরচেয়ে দুর্ভাগ্যের আর কিছু নাই৷”

‘‘আমরা আমাদের ওয়ার্নিং বার্তাটা তৈরি হওয়া মাত্র আমরা পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা করি৷ তারা যে পাচ্ছে,সেটাও আমরা নিশ্চিত করি৷ এরপরের পদক্ষেপ তাদের,আমাদের না৷”

এক প্রশ্নের জবাবে বুয়েটের ইনস্টিটিউট অব ওয়াটার অ্যান্ড ফ্লাড ম্যানেজমেন্টের পরিচালক অধ্যাপক ড. এ কে এম সাইফুল ইসলাম বলেন,আমাদের পূর্বাভাস কেন্দ্র মুনসুন ফ্লাডের জন্য পূর্বাভাস দেয়ার কাজ মোটামুটি দক্ষতার সাথেই করেন৷

তিনি বলেন,আমাদের প্রায় ৯০ শতাংশ পানি দেশের বাইরে থেকে আসে৷ সেই সব নদীর তথ্য-উপাত্তও আমাদের কাছে অত একুরেটলি থাকে না৷ এটা দুই দেশের বা একাধিক দেশের যারা বেসিন শেয়ার করছে,তাদের মধ্যে তথ্য আদান প্রদান বাড়লে বেসিনওয়াইজ ফ্লাড ফোরকাস্টিং করলে সেটা অনেক একুরেটলি করা সম্ভব৷

তিনি বলেন,ইউরোপে অনেক দেশে এগুলো একইসাথে করে থাকে৷ আমাদের আরো সঠিকভাবে ফোরকাস্ট করতে হলে সেটা যৌথভাবে করা সম্ভব৷

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,এই জন্য আমাদের স্বেচ্ছাসেবী তৈরি করা নাই৷ অনেক এলাকায় আমাদের বন্যার আশ্রয়কেন্দ্র নাই৷ একটা বন্যার আশ্রয়কেন্দ্র হওয়ার যে ক্রাইটেরিয়া যে,তার রাস্তা থাকতে হবে,টয়লেটসহ অন্যান্য সুবিধা থাকতে হবে৷ আমাদের এই জায়গায়ও একটু কাজ করা দরকার৷ কারণ বন্যা এখন যেভাবে আসছে,আমাদের বন্যা আশ্রয়কেন্দ্রের সংখ্যা বাড়ানো দরকার৷

‘‘বিশেষ করে গবাদিপশু নিয়ে আশ্রয় নেয়ার মত জায়গা থাকে না৷ উত্তরবঙ্গের দিকে কিছু আশয়কেন্দ্র আছে৷ যেহেতু প্রতি বছর বন্যা হয়৷ বিশেষ করে চরে৷ উত্তর-পূর্বাঞ্চলে আশ্রয়কেন্দ্র কম৷”

‘‘স্বেচ্ছাসেবী আমাদের কম৷ এটার এটাও হতে পারে,এটা অতটা ডেডলি ফর্মে আসে না৷ কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে, দুর্যোগ মোকাবেলায় এখানেও আমাদের স্বেচ্ছাসেবী দরকার৷”

তিনি বলেন,ইন্ডিয়া মেটিওরোলোজিকাল ডিপার্টমেন্ট গত ৮জুন পুর্বাভাসে জানিয়েছিল যে, ১৬ জুন উত্তর-পূর্ব ভারত ও বাংলাদেশে ভারী বৃষ্টিপাত হবে৷ অবশ্য ১ হাজার মিলিমিটারের বেশি বৃষ্টির পূর্বাভাস এখনো সম্ভব নয়৷

চারদিকে পানি, তবু খাওয়ার পানি নেই

ভবিষ্যতে যা করতে হবে

অধ্যাপক খালেকুজ্জামান বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ভবিষ্যতে বন্যা আরো বাড়বে৷ এমনকি অকাল বন্যা হবে৷ সেগুলোও আমি আমার গবেষণায় পেয়েছি৷

‘‘বৃষ্টিপাতের ধরণ পরিবর্তিত হয়ে যাচ্ছে ইদানিং৷ আগে মে জুনে বেশি বৃষ্টিপাত হতো৷ এখন একটু আগে হয়৷ এ জন্য ফসলে কিছু পরিবর্তন আনতে হতে পারে৷ বন্যা সহনশীল ফসল করা যায়, সেটা ভাবতে হবে৷”

তিনি বলেন, সিলেট শহর অনেক উঁচু৷ সিলেটে গেলে দেখবেন, নদীগুলো অনেক নিচু৷ কিন্তু সিলেটে গেলে দেখবেন, নদীগুলোর বেহাল দশা৷ সুনামগঞ্জেও তাই৷ বন্যা এতটা ব্যাপকভাবে হবে, সেটার জন্য মানুষ প্রস্তুত ছিল না৷

তিনি বলেন,আমাদের প্রাকৃতিক প্রক্রিয়াগুলো বুঝে নিয়ে প্রকৃতির সাথে খাপখাইয়ে কীভাবে বাস করা যায়, সেই লক্ষ্যে আমাদেরকে অনেক বেশি মনোযোগী হতে হবে৷ অনেক বেশি কার্যকলাপ করতে হবে৷ অনেক বেশি গবেষণা করতে হবে৷

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রকৃতিকে বুঝতে পারার মত তেমন কোন প্রকল্প ডেল্টা প্লানেও নেই৷ বদ্বীপের গঠন প্রক্রিয়া জানার জন্যই একটা প্রকল্প হতে পারতো৷

তিনি বলেন, মেঘালয়ে অনেক পাহাড় কাটা হয়,অনেক মাইনিং হয়, অনেক বন উজাড় করা হয়৷ সেখান থেকেই মূলত পলি ও পাথর সরে আসে৷ বাংলাদেশের অভ্যন্তরেও যখন নির্মাণ কাজ করা হয়, পাহাড়-টিলা কাটা হয়, কৃষি কাজ করা হয়-সেগুলোও বাড়তি পলির জন্ম দেয়৷

‘‘এই পলিতে কিছুটা বালু আছে৷ কিছুটা কাদামাটি আছে৷ বালুকে নির্মাণে বাণিজ্যিক কাজে লাগানো যেতে পারে৷ এ ব্যাপারে স্টাডি হওয়া প্রয়োজন৷ পলি খনন,পলি সরানো এবং পলিটাকে কাজে লাগানো৷ এটাকে সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মধ্যে নিয়ে আসতে হবে৷”

‘‘পলি সরিয়ে আমাদের নদীর ধারণ ক্ষমতাকে আগের চেয়েও বাড়াতে হবে৷ কারণ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বাড়তি বৃষ্টি তৈরি হয়েছে৷’’

‘‘সেই বাড়তি বৃষ্টিকে আমাদের একোমোডেট করতে হবে৷ চলে যাওয়ার সুযোগ দিতে হবে৷ এ জন্য আমাদের নদী-নালা খাল-বিলের ধারণ ক্ষমতা আরো বাড়াতে হবে৷’’

আব্দুল হাই আল হাদী বলেন, সিলেট বিভাগে ১৬টি স্বীকৃত আন্তঃসীমান্ত নদী আছে৷ এর বাইরে আরো প্রায় অর্ধ শতক নদী আছে, এগুলো দুই দেশকে স্বীকৃতি দিতে হবে৷

‘‘নদীর ভাগাভাগির বিষয়টা,দায় যেহেতু বাংলাদেশের বেশি-সুতরাং বাংলাদেশকে একটু অগ্রণী ভূমিকা নিয়ে পারস্পরিক তথ্য বিনিময়,বিশেষ করে ওখানকার আবহাওয়ার পূর্বাভাসটা আগাম যেন আমরা সিলেট থেকে জানতে পারি৷ তাহলে এখানকার মানুষরা দ্রুত সতর্ক হতে পারবে৷ জানমালের ক্ষতি কম হবে৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়