‘স্বৈরাচারী′ শব্দটি ‘সম্মানের নিদর্শন′: সজীব ওয়াজেদ জয় | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 29.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

‘স্বৈরাচারী' শব্দটি ‘সম্মানের নিদর্শন': সজীব ওয়াজেদ জয়

পশ্চিমা গণমাধ্যমে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘স্বৈরাচারী' বলাটাকে বরং ‘সম্মানের নিদর্শন' হিসেবে দেখছেন তাঁর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়৷ নির্বাচনের আগের দিন রয়টার্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ মন্তব্য করেছেন৷

অনেকেই এরই মধ্যে বলতে শুরু করেছেন, টানা তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসতে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা৷ এক দশকে দ্রুত অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য দেশের মানুষের কাছে এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয় দিয়ে আন্তর্জাতিকভাবেও প্রশংসা কুড়িয়েছেন শেখ হাসিনা৷

কিন্তু বিরোধী মত দমনে এবং সমালোচনাকারীদের কারারুদ্ধ করার অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে৷ অনেক সংবাদকর্মীও বলছেন, নানা ধরনের আইন করে গণমাধ্যমকেও নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করা হচ্ছে৷

শেখ হাসিনার ছেলে সজীব ওয়াজেদ অবশ্য তাঁর মা-কে ‘ভুলভাবে উপস্থাপনের' অভিযোগ তুলেছেন পশ্চিমা গণমাধ্যমের দিকেই৷ তাঁর মতে, মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটিতে বিরুদ্ধ মত প্রকাশের যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে৷

রয়টার্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘‘আপনি জানেন আমার মা সকালে আমাকে কী বলেছেন? পশ্চিমা গণমাধ্যমে ‘স্বৈরাচার' আখ্যা পাওয়া এখন একটা সম্মানের ব্যাপার৷'' মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দা ও তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবসায়ী সজীব ওয়াজেদ জয় সাক্ষাৎকার দেয়ার সময় ঢাকায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনেই অবস্থান করছিলেন৷

তিনি বলেন, ‘‘ফেসবুকে সরকারবিরোধী পোস্ট দেখেন না? আপনি যা ইচ্ছা লিখতে পারেন, কিন্তু কাউকে আঘাত দেয়ার অধিকার আপনার নেই৷ আপনার কোনো লেখার কারণে যদি কারো ওপর আক্রমণ হয়, তার কোনো পরিণতি থাকবে না?''

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা ৪৭ বছর বয়সি সজীব ওয়াজেদ কোনো একদিন নিজের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দিচ্ছেন না৷ তিনি বলেন, ‘‘যে-কোনো কিছুই সম্ভব৷ কিন্তু আমার তেমন আগ্রহ নেই৷ সময়ই সব বলে দেবে৷''

এডিকে/এসিবি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন