স্বপ্ন পূরণের সুযোগ পেলেন জাপানের আবে | বিশ্ব | DW | 23.10.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জাপান

স্বপ্ন পূরণের সুযোগ পেলেন জাপানের আবে

দেশটির বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের দল ও তাঁর সরকারে থাকা অন্য দল রবিবারের নির্বাচনে দুই-তৃতীয়াংশ আসনে জয়লাভ করেছে৷ ফলে আবের জন্য স্বপ্ন পূরণের পথ সহজ হলো৷

প্রধানমন্ত্রী আবে সংবিধানের একটি ধারায় পরিবর্তন আনতে চান৷ ‘আর্টিকেল ৯’ শীর্ষক ঐ ধারায় পরিবর্তনের মাধ্যমে তিনি দেশটির প্রতিরক্ষা বাহিনীকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি প্রদান করতে চান৷ এর ফলে প্রতিরক্ষা বাহিনীর ক্ষমতা বাড়বে৷ উত্তর কোরিয়ার কাছ থেকে নিয়মিত হুমকি আসায় জাপানের নাগরিকদের নিরাপত্তা দিতে এই পরিবর্তন আনার প্রস্তাব করেছেন প্রধানমন্ত্রী আবে৷ তবে এই পরিবর্তনের জন্য জাপানের সংসদের দুই কক্ষে দুই-তৃতীয়াংশ সদস্যের অনুমোদনের পাশাপাশি একটি গণভোটও আয়োজন করতে হবে৷ গত মে মাসে আবে যখন সংবিধানে পরিবর্তন আনার প্রস্তাব করেছিলেন তখন তিনি ২০২০ সালের মধ্যে তা বাস্তবায়নের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছিলেন৷

উত্তর কোরিয়া জাপানকে ‘ডুবিয়ে’ দেয়ার হুমকি দিয়েছে এবং সাম্প্রতিক সময়ে দেশটির উত্তরের দু'টি দ্বীপের উপর দিয়ে দু'টি ক্ষেপণাস্ত্র উড়িয়েছে৷

বিশ্লেষকরা বলছেন, উত্তর কোরিয়ার এই আচরণের কারণে প্রধানমন্ত্রী আবের নিম্নমুখী জনপ্রিয়তার সূচকের পালে আবার হাওয়া লাগে৷ কারণ নির্বাচনি প্রচারণার সময় তিনি উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার অঙ্গীকার করেন৷

রবিবার নির্বাচনে তাঁর জোট সরকারের দুই-তৃতীয়াংশের বেশি আসন পাওয়া নিশ্চিত হওয়ার পর তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে লড়তে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া ও চীনের সঙ্গে কাজ করার অঙ্গীকার করেন৷ ‘‘উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আমাদের ক্ষেপণাস্ত্র, পরমাণু ও অপহরণ সংক্রান্ত ইস্যুগুলোর সমাধান আমরা শক্ত ও দৃঢ় কূটনীতি দিয়ে করব'', বলেন তিনি৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আগামী মাসে জাপান সফর করবেন৷ তার পরেই উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে আবে কী পদক্ষেপ নেবেন তা জানা যাবে বলে আশা করা হচ্ছে৷

উল্লেখ্য, উত্তর কোরিয়া সহ অন্যান্য ‘সংকট’ মোকাবিলা করতে হাত আরও শক্ত করতে আগাম নির্বাচনের ডাক দিয়েছিলেন আবে৷ এবার বিজয় পাওয়ায় তিনি দেশটির সবচেয়ে বেশি সময় ক্ষমতায় থাকা নেতা হতে যাচ্ছেন৷

জেডএইচ/এসিবি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন