স্বপ্নের কর্মসূচি বাতিল করে ওবামার রোষের মুখে ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 06.09.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

স্বপ্নের কর্মসূচি বাতিল করে ওবামার রোষের মুখে ট্রাম্প

ভোলবদল করতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সময় লাগে না৷ বেআইনি অভিবাসী শিশুদের জন্য কর্মসূচির প্রশংসা করেও ক্ষমতায় এসে সেটি বাতিল করলেন তিনি৷ সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করলেন৷

অ্যামেরিকায় বেআইনি অনুপ্রবেশকারীদের প্রতি ট্রাম্প প্রশাসনের কড়া অবস্থান কারো অজানা নয়৷ মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর তৈরির পরিকল্পনা থেকে শুরু করে বৈধ কাগজপত্রহীন অভিবাসীদের প্রত্যর্পণের মতো অনেক পদক্ষেপ নিয়ে চলেছেন ট্রাম্প৷ আইনি পথে অভিবাসনের মাত্রাও কমানোর উদ্যোগ নিচ্ছেন তিনি৷ এবার তিনি এমন একটি কর্মসূচি বন্ধ করতে চান, এক সময়ে তিনি নিজেই যার প্রশংসা করেছিলেন৷

যেসব শিশুকে বেআইনি পথে অ্যামেরিকায় নিয়ে আসা হয়েছে, তাদের কল্যাণে ‘ড্রিমার্স' নামের এই কর্মসূচি চালু করেছিলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ ট্রাম্প কংগ্রেসকে ৬ মাসের মধ্যে সেই কর্মসূচি বাতিল করার ডাক দিয়েছেন৷

গত প্রায় পাঁচ বছর ধরে সাফল্য দেখিয়ে চলেছে ‘ড্রিমার্স' কর্মসূচি, যার পোশাকি নাম ‘ডিফার্ড অ্যাকশন ফর চাইল্ডহুড অ্যারাইভাল্স' বা ডিএসিএ৷ এর ফলে প্রায় ৮ লক্ষ তরুণ-তরুণী উপকৃত হয়েছেন৷

ট্রাম্প প্রশাসনের অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনস সেই কর্মসূচি বাতিলের সিদ্ধান্তের ঘোষণা করে বলেন, ওবামা সংবিধান লঙ্ঘন করে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন৷ এবার আইনি পথে ধাপে ধাপে সেই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করা হবে৷ উল্লেখ্য, টেক্সাসের নেতৃত্বে কয়েকটি রাজ্য এই কর্মসূচির বিরুদ্ধে আদালতের শরণাপন্ন হবার হুমকি দিচ্ছিল৷

বিষয়টি নিয়ে বিতর্কের আঁচ পেয়ে তিনি অবশ্য নিজের অবস্থানের ব্যাখ্যা দিয়ে বলেছেন, তিনি বাবা-মায়েদের পদক্ষেপের জন্য সেই সব শিশুকে শাস্তি দেবার পক্ষে নন, যাদের অনেকেই এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে উঠেছে৷ তবে আইনের শাসনের দোহাই দিয়ে তিনি বলেন, এ কারণেই অ্যামেরিকাকে সুযোগের দেশ বলা হয়৷ তাঁর ‘অ্যামেরিকা ফার্স্ট' নীতির উল্লেখ করে ট্রাম্প বলেন, তরুণ অ্যামেরিকানদেরও মনে স্বপ্ন রয়েছে৷

এতকাল যথেষ্ট সংযম দেখিয়ে চললেও সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এই সিদ্ধান্তের পর নীরব থাকতে পারেননি৷ এক বিবৃতিতে তিনি স্পষ্ট করে দেন যে, আইনি পথেই তিনি এই কর্মসূচি চালু করেছিলেন৷ কংগ্রেসের সদস্যদের প্রতি তিনি ‘ড্রিমার্স' কর্মসূচির সুরক্ষার ডাক দিয়েছেন৷ তাঁর যুক্তি, অ্যামেরিকায় বড় হয়ে ওঠা এই তরুণ-তরুণীরা মনেপ্রাণে অ্যামেরিকান৷ শুধু তাদের কাছে বৈধ কাগজপত্র নেই৷

ট্রাম্প প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে উঠেছে বিভিন্ন মহল৷ ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক সাকারবার্গ এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে বলেন, দেশের জন্য এ এক দুর্দিন৷

মাইক্রোসফট কোম্পানির প্রেসিডেন্ট ব্র্যাড স্মিথ কংগ্রেসের উদ্দেশ্যে প্রায় ৮ লক্ষ তরুণ অভিবাসীর মানবিক প্রয়োজনের বিষয়টি বিবেচনা করার ডাক দিয়েছেন৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন