স্বচ্ছ জলের ভাণ্ডার নিঃশেষ হতে চলেছে ভারতে | বিশ্ব | DW | 24.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

স্বচ্ছ জলের ভাণ্ডার নিঃশেষ হতে চলেছে ভারতে

উপগ্রহ পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গোটা বিশ্বেই ভূগর্ভস্থ স্বচ্ছ জলের মাত্রা কমছে৷ উত্তর ও পূর্ব ভারতে জলের অত্যধিক ব্যবহারের ফলে ভূগর্ভস্থ স্বচ্ছ জলের স্তর উদ্বেগজনকভাবে হ্রাস পাচ্ছে৷ সঙ্গে যুক্ত হয়েছে আর্সেনিকের বিষক্রিয়া৷

যুক্তরাষ্ট্রের নাসা এবং জার্মানির অ্যারো-স্পেস সেন্টারের এক যৌথ প্রকল্পে উঠে এসেছে এই তথ্য৷ জানা গেছে, যে সব দেশে জলের অত্যধিক ব্যবহারের ফলে ভূগর্ভস্থ স্বচ্ছ জলের ভাণ্ডার বিপদের মুখে, ভারত তার অন্যতম৷ স্বচ্ছ জলের লভ্যতা ক্রমশই উদ্বেগজনকভাবে কমে যাচ্ছে এ দেশে৷

‘নেচার' পত্রিকায় প্রকাশিত এক সমীক্ষায় বলা হয়েছে, জলের যথেচ্ছ ব্যবহার, জলবায়ুর পরিবর্তন ও প্রাকৃতিক বিবর্তনের ফলে আর্দ্র এলাকা আরও বেশি আর্দ্র হয়ে উঠছে এবং খরাপ্রবণ এলাকা হয়ে উঠছে আরও বেশি শুকনো৷

বিশ্বের অনেক দেশের মতো ভারতের উত্তর ও পূর্বাঞ্চলে এর অন্যতম কারণ গম ও ধান চাষে ভূগর্ভস্থ জলের অত্যধিক ব্যবহার৷ এমনকি সারা বছর স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হওয়া সত্ত্বেও৷ ভূগর্ভে যে পরিমাণ জল চুঁইয়ে পড়ে তার থেকে অনেক বেশি পরিমাণ জল খরচ হয়৷ অর্থাৎ মজুতের চেয়ে খরচ বেশি৷ ফলে ভবিষ্যতে খরার আশঙ্কা তৈরি হয়৷ প্রায় ১৪ বছর ধরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাসা এবং জার্মান অ্যারো-স্পেস সেন্টারের যৌথ প্রকল্পে এই তথ্য সামনে এসেছে৷

বিশ্বের ৩৪টি অঞ্চলে একাধিক উপগ্রহ পর্যবেক্ষণে সামনে এসেছে এই তথ্য৷ একাধিক উপগ্রহ পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে এই ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা বিশ্বে এই প্রথম৷ ইউরেশিয়ার ৩৩টি দেশের মধ্যে ৫০ শতাংশ দেশে একই ধরনের জলসংকট৷ আর ভারতের অবস্থা আরও খারাপ৷ বিজ্ঞানিরা এর কারণ সম্পর্কে বলেছেন, ভারতের ৮০ শতাংশ সংরক্ষিত এলাকা, অর্থাৎ যেসব এলাকা প্রকৃতি ও জৈব-বৈচিত্র্যের জন্য সংরক্ষিত, সেইসব এলাকা মানুষের বিভিন্ন কাজকর্মের দরুণ খুবই চাপের মুখে৷ যেমন রাস্তাঘাট তৈরি, গবাদি পশুর চারণ ভূমি এবং নগরায়ণ৷

গোদের ওপর বিষ ফোঁড়ার মতো স্বচ্ছ জল বা পানির ঘাটতির সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ভূগর্ভস্থ জলে আর্সেনিকের বিষক্রিয়া, বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গের ২৪-পরগণা অঞ্চলে৷ চিকিত্সা বিজ্ঞানে যার নাম আর্সেনিকোসিস৷ পশ্চিমবঙ্গের ন'টি জেলায় আনুমানিক এক কোটি মানুষ আর্সেনিক দূষিত জল খেয়ে নানা ধরনের রোগের কবলে৷ জলে আর্সেনিকের বিপদ সম্পর্কে একাধিক টাস্কফোর্স সরকারকে সতর্ক করা সত্ত্বেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকার যথেষ্ট তত্পরতা দেখায়নি৷ আর্সেনিক এক নিঃশব্দ যমদূত, অর্থাৎ ‘সাইলেন্ট কিলার’৷ বাচ্চা বুড়ো কাউকেই রেহাই দেয় না আর্সেনিক৷ ক্ষতি করে দেহের ভেতরের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ৷ যেমন ফুসফুস, কিডনি ইত্যাদি৷ এছাড়া শিশুদের ক্ষেত্রে মেধা বা বুদ্ধিবৃত্তির বিকাশও ব্যাহত করে আর্সেনিক৷

এই বিষের প্রধান কারণ অগভীর নলকূপ৷ কারও কারও মতে, কীটনাশক৷ রাজ্য সরকার ২০০৭ সাল পর্যন্ত প্রায় লাখ দেড়েক অগভীর নলকূপের জল পরীক্ষা করে দেখেছে বটে, কিন্তু তা চিহ্নিত করেনি৷ পরিবর্তে সরকার বসিয়েছে বিকল্প নলকূপ৷

পশ্চিমবঙ্গে ভূগর্ভস্থ জলে আর্সেনিক দূষণজনিত পরিস্থিতি নিয়ে ডয়চে ভেলের সঙ্গে কথা বলেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ গবেষণা বিভাগের বিজ্ঞানী তড়িত রায়চৌধুরী৷ তিনি জানান, উত্তর ২৪-পরগণার ২২টি ব্লকের মধ্যে ২১টি ব্লকের ভূগর্ভস্থ জলে আর্সেনিক পাওয়া গেছে৷ তাঁর কথায়, ‘‘গবেষণায় দেখেছি আর্সেনিকের মাত্রা সবথেকে বেশি কম পাইপের অগভীর নলকূপে৷ অগভীর মানে ২০ ফুট, ৩০ ফুট, ৪০ ফুট থেকে ১০০ ফুট পর্যন্ত৷ এমনকি ৩০০ ফুটেও পেয়েছি৷ দেখেছি এর থেকে বেশি গভীর হলে আর্সেনিকের মাত্রা তুলনামূলকভাবে কম হয়৷ কিছু কিছু বিশেষ ভৌগলিক এলাকায়, যেমন গাইঘাটা, দেগঙ্গা ব্লকে গভীর নলকূপ নেই৷ সঠিক সংখ্যা জানা না থাকলেও আর্সেনিক আক্রান্ত বহু রোগী পেয়েছি সেখানে৷ কেউ কেউ মারা গেছেন, কেউ আবার মরে বেঁচে আছেন৷

অডিও শুনুন 04:32
এখন লাইভ
04:32 মিনিট

আর্সেনিকের বিষক্রিয়া কতটা বিপজ্জনক সে বিষয়ে মানুষ এখনও অজ্ঞানতার অন্ধকারে: তড়িত রায়চৌধুরী

আর্সেনিক বিষক্রিয়ার লক্ষণ কী জানতে চাইলে তড়িত রায়চৌধুরী বলেন, ‘‘গোটা শরীরে ছোপ ছোপ দাগ৷ যাবার সময় দেহের ভেতরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে রেখে যায় ক্ষতচিহ্ন৷ হাতের চেটোয় ছোপ ছোপ দাগকে বলা হয় কেরাটোসিসি৷ পায়ের তলায় হলে সেটাকে বলি মেলানোসিস৷ এটার শেষ পরিণতি বিভিন্ন টাইপের ক্যানসার৷ আসলে এর ওষুধ সেই অর্থে কিছু নেই৷ বিশুদ্ধ জলপান করা ছাড়া৷’’

এর প্রতিকারে সরকার কী ব্যবস্থা নিয়েছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘বিজ্ঞানী হিসেবে বলতে পারি, বিকল্প ব্যবস্থা কিছু কিছু নেওয়া হয়েছে৷ আর্সেনিক টাস্কফোর্স কাজ করছে৷ পশ্চিমবঙ্গ সরকার এই নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করছে৷ সার্ভে করে পাইপলাইন ওয়াটার ট্রিটমেন্ট জলসাপ্লাই করছে, বিশেষ করে গঙ্গার জল৷ আমাকে যদি বলা হয়, এর প্রতিকারে কী করণীয়, তাহলে ভূগর্ভস্থ জলে যে আর্সেনিক বিষ আছে, প্রথমেই সে বিষয়ে মানুষকে সচেতন করে তোলার কথা বলবো৷ তবে এটাও ঠিক, অনেক সময় দেখেছি জেনে শুনেও রান্না-বান্নায় আর্সেনিকযুক্ত জল ব্যবহার করা হচ্ছে৷ আসলে আর্সেনিকের বিষক্রিয়া কতটা বিপজ্জনক সে বিষয়ে মানুষ এখনও অজ্ঞানতার অন্ধকারে৷ তাদের এটা ভালো করে বোঝানো দরকার যে, এটা বিষজল৷ অর্থাৎ আমরা এটা খাব না৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন