স্পেন কাটালুনিয়াকে নতুন চরমপত্র দিল | বিশ্ব | DW | 16.10.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

স্পেন

স্পেন কাটালুনিয়াকে নতুন চরমপত্র দিল

কাটালুনিয়ান নেতা কারলেস পুজেমনকে আরো তিন দিন সময় দিলেন স্পেন সরকার৷ তার মধ্যে পুজেমনকে বলতে হবে, এলাকাটি স্বাধীনতা ঘোষণা করেছে কিনা৷

কাটালান নেতা কারলেস পুজেমন স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাখোইয়ের সঙ্গে সরাসরি আলাপ-আলোচনা কামনা করেছিলেন৷ স্পেনের উপ-প্রধানমন্ত্রী সোরাইয়া সায়িঞ্জ দে সান্তামারিয়া সে অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করে বৃহস্পতিবার অবধি একটি নতুন চরমপত্র দিয়েছেন, যার মর্ম হলো, কাটালুনিয়াকে সেই সময়ের মধ্যে তাদের স্বাধীনতা প্রাপ্তির প্রচেষ্টা পরিত্যাগ করতে হবে৷

সায়িঞ্জ দে সান্তামারিয়া মাদ্রিদে সাংবাদিকদের সমীপে বলেন যে, কাটালুনিয়া স্পেন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার কথা ঘোষণা করেছে কিনা, সে বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকার সোমবার স্থানীয় সময় বেলা দশটার মধ্যে পুজেমনের কাছ থেকে একটি সহজ ‘‘হ্যাঁ বা না'' উত্তর কামনা করেছিলেন৷ কিন্তু পুজেমন সেরকম কোনো উত্তর দিতে ব্যর্থ হয়েছেন৷ ‘‘হ্যাঁ বা না বলাটা খুব শক্ত ছিল না,'' সায়িঞ্জ দে সান্তামারিয়া বলেন, ‘‘আগামী তিন দিনে যৌক্তিকতায় ফেরাটাও শক্ত নয়৷''

সায়িঞ্জ দে সান্তামারিয়া

সায়িঞ্জ দে সান্তামারিয়া

পুজেমনের চাল: রাখয়ের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা

সোমবারের চরমপত্রের মেয়াদ শেষ হবার আগেই পুজেমন যে দু'পাতার চিঠি পাঠান, তাতে তিনি স্পষ্ট করে দেননি, তিনি স্পেন থেকে স্বাধীনতা ঘোষণা করেছেন কিনা৷ পরিবর্তে তিনি বিষয়টি নিয়ে স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাখোইয়ের সঙ্গে দু'মাসের আলাপ-আলোচনা কামনা করেছেন৷

‘‘আগামী দু'মাসে আমাদের মূল লক্ষ্য হলো, আপনার প্রতি সংলাপের'', এবং ‘‘আন্তর্জাতিক, স্পেনীয় ও কাটালান'' মধ্যস্থদের আলাপ-আলোচনার পথ খোলার সুযোগ দেওয়ার অনুরোধ জানানো, পুজেমন রাখোইকে লিখিত তাঁর পত্র বলেছেন৷ তাঁর সরকার যে ‘‘স্বাধীনতা ঘোষণার রাজনৈতিক সনদ মুলতুবি'' রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, এ থেকে তাঁর সরকারের ‘‘দ্বন্দ্বের পরিবর্তে সমাধান সৃষ্টির দৃঢ় অভিপ্রায়'' প্রমাণিত হয় – লিখেছেন পুজেমন৷

কিন্তু পুজেমনের চিঠিতে এ-ও বলা হয় যে, পয়লা অক্টোবরের গণভোটের পর কাটালুনিয়ার সংসদ স্বাধীনতা ঘোষণার ‘‘গণতান্ত্রিক সনদ'' পেয়েছে৷ বিতর্কিত গণভোটটি স্পেনীয় কর্তৃপক্ষের ইচ্ছার বিরুদ্ধে অনুষ্ঠিত হয় এবং অর্ধেকের চেয়ে কম ভোটার অংশগ্রহণ করলেও প্রায় ৯০ শতাংশ ভোট পড়ে স্পেন থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার পক্ষে৷

গত মঙ্গলবার পুজেমন একটি প্রতীকী স্বাধীনতা ঘোষণা প্রকাশ করার কিছু পরেই তা আবার স্থগিত রাখেন ও বলেন যে, তিনি স্পেন সরকারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার পথ খুঁজবেন৷ সেই যাবৎ কাটালুনিয়ার পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে৷

এসি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি, এপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়