স্পেনের সোনালি প্রজন্মের জন্য শেষ সুযোগ | বিশ্ব | DW | 13.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ফুটবল

স্পেনের সোনালি প্রজন্মের জন্য শেষ সুযোগ

দশ বছর আগে তাঁদের দাপটেই ফুটবল বিশ্বকে শাসন শুরু করেছিল স্পেন৷ এবার বিশ্বকাপ জয়ের শেষ সুযোগটি পাচ্ছেন তাঁরা৷ ইনিয়েস্তা, রামোস, পিকেরা কি পারবেন আবার বিশ্বকাপ জিততে?

২০০৮ থেকে ২০১২ – ওই চারটি বছর নিঃসন্দেহে নিজেদের ফুটবল ইতিহাসের সেরা সময় কাটিয়েছে স্পেন৷ দু'টি ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ এবং দেশের ইতিহাসের প্রথম বিশ্বকাপ জেতা হয়েছিল সেই সময়েই৷ আর তিনটি সাফল্যই এসেছিল স্প্যানিশ ফুটবলের সোনালি প্রজন্ম হিসেবে পরিচিত এক ঝাঁক প্রতিভাবান ফুটবলারের দৃষ্টিনন্দন ফুটবলে৷

সেই ঝাঁকের অন্যতম পুরোধা জাভি ইতিমধ্যে অবসর নিয়ে ফেলেছেন৷ গোলরক্ষক কাসিয়াসের এখন আর দলে জায়গা নিশ্চিত নয়৷ তবে ইনিয়েস্তা, রামোস, পিকেরা এখনো আছেন৷ বয়সের ভারে তাঁদের কেউ কেউ এখন কিছুটা নিষ্প্রভ৷ তাতে কী! অভিজ্ঞতার ঝুলিটা নিশ্চয়ই খুব কাজে দেবে স্পেনের৷ সে আশাতেই তো তাঁদের ওপর ভরসা রাখছেন নতুন কোচ ইউলেন লোপেটেগুই৷

লোপেটেগুই-এর প্রথম চাওয়া রাশিয়ায় যেন ২০১৪ বিশ্বকাপটা ফিরে না আসে৷ সেবার শিরোপা রক্ষার মিশন নিয়ে গিয়ে প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নিয়েছিল স্পেন৷ বলা চলে স্পেনের ফুটবলে তখন থেকেই শুরু হয় দুঃসময়৷ আশার কথা, বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের শেষ দিকে জ্বলে ওঠার পর থেকে ধীরে ধীরে প্রায় অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে অভিজ্ঞ আর নবীন ফুটবলারদের নিয়ে গড়া দলটি৷ এক সময় যে দলের চূড়ান্ত পর্বে ওঠাই ছিল অনিশ্চিত, সেই দল শুধু গা ঝাড়া দিয়ে ওঠেনি, ফেবারিটের তালিকাতেও এখন রাখতেই হয় তাদের৷

 

এই নিয়ে টানা ১১ বার বিশ্বকাপ চূড়ান্ত পর্বে খেলবে স্পেন৷ চলুন দেখে নেয়া যাক দলের সার্বিক চেহারা৷

কোচ

ভিসেন্টে ডেল বস্কের কাছ থেকে দায়িত্ব নেয়া ইউলেন লোপেটেগুই যে এত দূর আসতে পারবেন, শুরুতে অনেকেই তা ভাবতে পারেননি৷ ফুটবলার হিসেবে তেমন কোনো খ্যাতি ছিল না৷ গোলরক্ষক হিসেবে ক্যারিয়ারের কোনো এক পর্যায়ে রেয়াল মাদ্রিদের হয়ে এক ম্যাচ আর বার্সেলোনার হয়ে পাঁচ ম্যাচ – ক্লাব ফুটবলে এই তাঁর বড় সাফল্য৷ স্পেনের জাতীয় দল এবং অনূর্ধ্ব ২১ দলেও সুযোগ পেয়েছিলেন৷ তবে খেলেছেন মাত্র একটি করে ম্যাচ৷

কোচ হিসেবেও ক্লাব ফুটবলে তেমন কোনো সাফল্য পাননি লোপেটেগুই৷ তবে স্পেনের অনূর্ধ্ব ১৭, ১৯, ২০ এবং ২২ দলে রেখেছেন ধারাবাহিকতার স্বাক্ষর৷ তাই ২০১৬ সালে আসে জাতীয় দলের কোচ হওয়ার সুযোগ৷ এবং তাঁর দায়িত্বে যেহেতু স্পেন টানা ১৮ ম্যাচ অপরাজিত থাকতে পেরেছে, তাই বলতেই হয়, সুযোগটা ভালোই কাজে লাগিয়েছেন তিনি৷

গোলরক্ষক

একসময় মনে হচ্ছিল আবার বুঝি গোলপোস্ট সামলানোর দায়িত্বটা ফিরিয়ে দিতে হবে বর্ষীয়ান ইকার কাসিয়াসের কাঁধে৷ প্রথমে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এবং তারপর স্পেন দলের হয়ে দারুণ আস্থার পরিচয় রেখে সেই সম্ভাবনা আপাতত দূরে ঠেলেছেন ডাভিড ডে খেয়া৷ এক নম্বর গোলরক্ষক হিসেবে তাঁর জায়গাটা মোটামুটি পাকা৷ রিজার্ভ গোলরক্ষক হিসেবে ২৩ জনের স্কোয়াডে থাকতে পারেন কেপা আরিসাবালাগা৷  

রক্ষণভাগ

সার্জিয়ো রামোস এবং জেরার্ড পিকের জন্য এটাই সম্ভবত শেষ বিশ্বকাপ৷ ৩১ বছর বয়সি পিকে জানিয়ে দিয়েছেন, বিশ্বকাপের পরে আন্তর্জাতিক ফুটবল আর নয়৷ ৩২ বছর বয়সি রামোসও হয়ত আসর শেষে সেই পথই ধরবেন৷ অভিজ্ঞ পিকে আর রামোসের সঙ্গে রক্ষণভাগে জর্ডি আলবা আর দানি কারভাহালের থাকাটাও প্রায় নিশ্চিত৷

মধ্যমাঠ

বয়স ৩৪ হলেও অসাধারণ বল কন্ট্রোল আর নিখুঁত পাস দেয়ার ক্ষমতা পুরোপুরিই ধরে রেখেছেন ইনিয়েস্তা৷ আর তাই এখনো তিনিই মধ্যমাঠের প্রাণভোমরা৷ মধ্যমাঠের সম্ভাব্য অন্য খেলোয়াড়রা হলেন সার্জিও বুসকেটস, থিয়াগো আলকানতারা, খর্খে কোকে, ফ্রান্সিসকো ‘ইসকো' আলারকন, মার্কো আসেনসিও, সল নিগুয়েস এবং ডাভিড সিলভা৷

আক্রমণভাগ

আক্রমণভাগ নিয়ে সমস্যায় আছে স্পেন৷ তাই গত দু' বছরে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে ১০ জনকে দেখেছেন কোচ৷ তবে শেষ পর্যন্ত হয়ত আটলেটিকো মাদ্রিদের ডিয়েগো কস্তা, সেল্টা ভিগোর ইয়াগো আসপাস এবং ভ্যালেন্সিয়ার রডরিগেসই ২৩ জনের দলে সুযোগ পাবেন৷ তবে রেয়াল মাদ্রিদের লুকাস ভাসকেস, চেলসির আলভারো মোরাতা, নাপোলির হোসে কালেহনের সম্ভাবনাও একেবারে উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না৷

গ্রুপ পর্ব

এবারের গ্রুপ পর্বে পর্টুগাল, ইরান এবং মরক্কোর মুখোমুখি হবে স্পেন৷ ১৫ জুন পর্টুগালের বিপক্ষের ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে তাদের বিশ্বকাপ৷ তারপর ২০ জুন ইরান এবং ২৫ জুন মরক্কোর সঙ্গে খেলবে তারা৷

এসিবি/ডিজি (এপি)

বন্ধু, এবারের বিশ্বকাপে আপনার প্রিয় দল কোনটি? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন