স্কার্টের নীচের ছবি তোলায় নিষেধাজ্ঞার উদ্যোগ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 14.09.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

স্কার্টের নীচের ছবি তোলায় নিষেধাজ্ঞার উদ্যোগ

জার্মানির আইনে ফাঁক থাকায় গোপনে কারো পোশাকের, বিশেষ করে স্কার্টের নীচ থেকে ছবি তুললে সেটা অপরাধ হিসেবে বিবেচনা হয়না৷ আইনের এই ফাঁক বন্ধে উদ্যোগ নেয়ার দাবি উঠেছে৷

পৃথিবীর অনেক দেশেই পোশাকের নীচ থেকে ছবি তোলা অপরাধ বলে বিবেচিত হয় না

পৃথিবীর অনেক দেশেই পোশাকের নীচ থেকে ছবি তোলা অপরাধ বলে বিবেচিত হয় না

জার্মানির বিচারমন্ত্রী ক্রিস্টিনে লাম্বরেশ্ট্ মঙ্গলবার জানিয়েছেন যে তিনি এমন একটি আইন সংসদে উপস্থাপনের পরিকল্পনা করছেন যা গোপনে কারো পোশাকের নীচে থাকা শরীরের অংশের ছবি তোলাকে, ইংরেজিতে যাকে বলা হয় আপস্কার্টিং, অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করবে৷

লাম্বরেশ্ট্ বলেন, ‘‘আপস্কার্টিং হচ্ছে মেয়েদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তায় জঘন্য অনুপ্রবেশ... আর এজন্যই আমি এই ব্যাপারটি বন্ধে আইন পরিবর্তনের উদ্যোগ নিয়েছি৷''

প্রসঙ্গত, জার্মানিতে কোন নারীর স্কার্টের নীচের অংশের ছবি গোপনে তোলাকে অপকর্ম মনে করা হলেও সেটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করা হয় না যতক্ষণ পর্যন্ত সেই নারীকে মৌখিকভাবে অপমান বা শারীরিকভাবে আঘাত করা হয়৷ তবে, ছবিটি যদি সেই নারীর দুর্নামের কারণ হয় সেক্ষেত্রে যে ছবিটি তুলেছিল তার জরিমানা বা দুই বছরের জেল হতে পারে৷

কেন্দ্র সরকারের উদ্যোগের পাশাপাশি জার্মানির কিছু রাজ্য আপস্কার্টিং বন্ধে আইন পরিবর্তনের বিষয়টি চলতি মাসে রাজ্য সংসদে তোলার ঘোষণা দিয়েছে৷

ইউরোপের এই দেশটিতে আপস্কার্টিংকে অপরাধ হিসেবে বিবেচনার প্রচারণায় অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন ইডা মারি সাসেনবের্গ এবং হেনা সিডেল৷ জার্মানির দক্ষিণের শহর ল্যুডভিগ্সবুর্গের এই দুই তরুণী এপ্রিলে অনলাইনে সাক্ষর সংগ্রহের এক পিটিশন শুরু করেন যেখানে ৯০ হাজার-এর বেশি সাক্ষর পড়েছে৷ পিটিশনটি জার্মানিতে এই বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করেছে এবং আইনপ্রণেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হয়েছে৷

উল্লেখ্য, ভারত, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, ফিনল্যান্ড এবং ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলসে আপস্কার্টিং ইতোমধ্যে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে৷ ইংল্যান্ডে এধরনের অপরাধের শাস্তি দুই বছরের কারাদণ্ড৷

এআই/কেএম (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন