সৌরশক্তি ব্যবহারে শীর্ষস্থানে বাংলাদেশ | বিশ্ব | DW | 12.06.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

সৌরশক্তি ব্যবহারে শীর্ষস্থানে বাংলাদেশ

বিশ্বে সৌরশক্তি ব্যবহারকারী দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষস্থানে অবস্থান করছে বাংলাদেশ৷ বিশ্বে ৬০ লাখ সৌর প্যানেলের মধ্যে ৪০ লাখই বাংলাদেশে ব্যবহার করা হয়৷ ‘রিনিউয়েবলস ২০১৭ গ্লোবাল স্ট্যাটাস রিপোর্ট'-এ এসেছে এই তথ্য৷

সোলার প্যানেল

সোলার প্যানেল

বাংলাদেশের দক্ষিণের দ্বীপ জেলা ভোলা৷ ঢাকা থেকে সড়ক পথে দূরত্ব ২৮৭কি.মি.৷ সেখান থেকে আরো ৭৫ কি. মি. দূরে চরফ্যাশন উপজেলা৷ সেই উপজেলার দক্ষিন আইচা এলকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী জাকির হোসেন তালুকদার সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহার করছেন গত ৬ বছর ধরে৷ তিনি তাঁর বাড়ি এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দুই জায়গাতেই প্যানেল বসিয়েছেন৷

জাকির যখন সৌরবিদ্যুৎ নেন, তখন এলাকায় বিদ্যুতের কোনো সংযোগ ছিল না৷ কিন্তু এখন বিদ্যুৎ আসার পরও সৌরবিদ্যুতের প্রয়োজনীয়তা শেষ হয়নি তার কাছে৷ তাঁর কথায়, ‘‘বিদ্যুৎ তো সব সময় থাকে না, তখন সৌর বিদ্যুৎই ভরসা৷’’

একটি প্যানেল বসাতে তখন ৫০ হাজার টাকা খরচ হয়েছিল তাঁর৷ তবে সেই টাকা তিনি কিস্তি সুবিধা নিয়ে শোধ করেছেন৷ জাকির জানালেন, ‘‘ওই একবারই খরচ৷ আর কোনো খরচ নাই৷ আমি ৬-৭টি বাতি জ্বালাই৷ ফ্যান চালাই৷ টিভিও চালানো যায়৷ ২০ বছরের ওয়ারেন্টি আছে৷’’

অডিও শুনুন 01:55
এখন লাইভ
01:55 মিনিট

বিদ্যুৎতো সবসময় থাকেনা, তখন সৌরবিদুৎই ভরসা: ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী

চরফ্যাশনের প্রত্যন্ত এলাকার অধিকাংশ বাড়িতেই এখন সৌরবিদ্যুৎ আছে৷ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও ব্যবহার করা হয় এই বিদ্যুৎ৷

রিনিউয়েবলস ২০১৭ গ্লোবাল স্ট্যাটাস রিপোর্ট-এ বলা হয়েছে, বাংলাদেশে  প্রায় ৪০ লাখ সৌরশক্তির প্যানেল রয়েছে৷ এছাড়া ক্লিন স্টোভ ও বায়োগ্যাস ব্যবহারেও সামনের দিকে রয়েছে বাংলাদেশ৷ এতে প্রচুর কর্মসংস্থানও তৈরি হয়েছে৷ বাংলাদেশ বিশ্বে নবায়নযোগ্য শক্তি ব্যবহারে ৫ম স্থানে রয়েছে৷

২০১৬ সাল থেকে বিশ্বে ৬০ লাখেরও বেশি স্থানে সৌরশক্তি ব্যবহার চলছে, আর এতে উপকৃত হচ্ছে আড়াই কোটি মানুষ৷ বিশ্বের অর্ধেকের বেশি সৌরশক্তির প্যানেলে বাংলাদেশে ব্যবহৃত হয়৷ এর সংখ্যা প্রায় ৪০ লাখ৷

প্যারিসভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান আরইএন এই প্রতিবেদন তৈরি করে৷ তাদের অর্থায়ন করেছে জার্মানির অর্থনৈতিক সহায়তা ও উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয়, অর্থনৈতিক বিষয় ও বিদ্যুৎ বিষয়ক মন্ত্রণালয়, জাতিসংঘের পরিবেশ বিষয়ক প্রকল্প এবং ইন্টার-অ্যামেরিকান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (আইডিপি)৷

প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘‘মিনি গ্রিড ও স্ট্যান্ড অ্যালোন দুই ব্যবস্থাই গ্রহণ করছে বাংলাদেশ৷ মূলত ক্ষুদ্রঋণের কারণেই প্রায় ৪০ লাখ সৌরশক্তি প্যানেল তৈরি করা সম্ভব হয়েছে৷’’ তালিকায় বাংলাদেশের পরেই বেশ কিছু আফ্রিকান দেশ রয়েছে৷ জ্বালানি ও বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের মতে, বর্তমানে দেশের ২ দশমিক ৮৬ শতাংশ বিদ্যুৎ সৌরশক্তিসহ নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে আসে৷

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, পাওয়ার গ্রিড দিয়ে বিদ্যুৎ সরবরাহের প্রক্রিয়া অনেক পুরাতন হয়ে গেছে৷ জাতীয় গ্রিড পৌঁছায় না এমন স্থানেই ওই ৪০ লাখ সৌরশক্তি প্যানেল স্থাপন করা হয়েছে৷ বাংলাদেশে প্রায় ৬ কোটি মানুষের কাছে বিদ্যুৎ এখনো পৌঁছায়নি বলে রিপোর্টে দাবি করা হয়৷

২০১২ সালে এই খাতে ৩০ লাখ ডলার ব্যয় করেছিল সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো৷ কিন্তু ২০১৫ সালে এসে তা দাঁড়ায় ১৫৮ মিলিয়ন ডলারে৷ আর ২০১৬ সালে সেটা হয় ২২৩ মিলিয়ন ডলার৷ নতুন অর্থ বছরে সৌরশক্তি ব্যবহারে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করায় এই খরচ আরও বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে৷

বাংলাদেশে সৌরবিদ্যুৎ জনপ্রিয় করার পিছনে প্রথম থেকেই কাজ করেছে গ্রামীণ ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ শক্তি৷ গ্রামীণ শক্তির তখনকার প্রধান দীপাল সি বড়ুয়া এখন নিজেই একটি সৌরশক্তি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন৷ প্রতিষ্ঠানটির নাম ‘ব্রাইট গ্রীণ এনার্জি ফাউন্ডেশন’৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘১৯৯৬ সালে আমরা সোলার হোম সিস্টেম নিয়ে কাজ শুরু করি৷ তখন দেশের ১৫ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পেতো৷ আমরা ১০ হাজার সিস্টেম ইনস্টল করার পর বিষয়টি নজরে আসে৷ বিশ্বব্যাংক এগিয়ে আসে৷ সরকারি প্রতিষ্ঠান ইডকলকে ফান্ড দেয় বিশ্বব্যাংক৷ এখন মোট জনসংখ্যার ১৫ ভাগ সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহার করে৷’’

অডিও শুনুন 08:13
এখন লাইভ
08:13 মিনিট

বাংলাদেশের প্রধান সুবিধা হল সব মৌসুমেই সূর্যের আলো পাওয়া যায়: দীপাল সি বড়ুয়া

দীপাল সি বড়ুয়া আরো বলেন, ‘‘বাংলাদেশের প্রধান সুবিধা হলো সব মৌসুমেই সূর্যের আলো পাওয়া যায়৷ ফলে সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদন সহজ৷ শুরুতে হোম প্যানেলের দাম অনেক বেশি থাকলেও এখন ৭-৮ হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যায়৷ এখন ১০ ধরণের সোলার এনার্জি সিস্টেম আছে৷ যে যার চাহিদা অনুযায়ী বসাতে পারেন৷’’

তিনি জানান, ‘‘বাড়ির ছাদে সৌরশক্তি প্যানেলগুলো সূর্যের আলো থেকে শক্তি নিয়ে বিদ্যুৎ উৎপন্ন করে৷ সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্রের সুবিধা হলো এই যে, এরা ছোট বা বা বড় দু'রকমই হতে পারে৷ বাড়ির ছাদে ৫ কিলোওয়াট বা ১০ কিলোওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র বসানো যায়৷ এর মাধ্যমে সৌরকোষের সাহায্যে সৌরআলোককে সরাসরি বিদ্যুতে পরিণত করা হয়৷’’

অন্যদিকে পরিবেশবান্ধব চুলা ( ক্লিন কুকিং স্টোভ) ব্যবহারে বাংলাদেশে বিশ্বে ৫ম স্থানে রয়েছে৷ ২০১৪ সালে এমন পাঁচ লাখ চুলা স্থাপন করা হয়৷ এমন চুলা আমদানিতে সরকারি সহায়তার কারণে এই সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে রিপোর্টে বলা হয়।

২০১৫ সালে ২ কোটি পরিবেশ বান্ধবচুলা সরবরাহ করা হয়৷ বিশ্বে সবচেয় বেশি ব্যবহার করে চীন৷ এরপর ভারত, ইথিওপিয়া, নাইজেরিয়া ও বাংলাদেশ৷

বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট ব্যবহারেও বাংলাদেশ বিশ্বে ৫ম স্থানে রয়েছে৷ বর্তমানে সারাদেশে ৪৫ হাজার ৬১০টি বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট রয়েছে৷

২০১৬ সালে বায়োগ্যাসের মাধ্যমে রান্নার বিষয়টি বেড়ে গেছে৷ এশিয়াতেই এই হার অনেক বেশি৷ সবেচেয়ে বেশি চীনে (৪ কোটি ২৬ লাখ)৷ এরপর ভারতে (৪৭ লাখ)৷ এশিয়ায় আরও ৬ লাখ ২০ হাজার বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট রয়েছে৷

২০১৬ সালে অনেকগুলো প্রতিষ্ঠান গাড়িতে নবায়নযোগ্য জ্বালানি নিয়ে কাজ শুরু করেছে৷ চলতি বছরের শেষের দিকে বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে সৌরশক্তিচালিত তিন চাকার অ্যাম্বুলেন্স দেখা যেতে পারে৷

২০১৫ সাল থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে সারাবিশ্বেই নবায়নযোগ্য জ্বারানির ব্যবহার ১.১ শতাংশ বেড়েছে৷ আর এতে কর্মসংস্থান হয়েছে ৯৮ লাখ মানুষের৷

তথ্য-প্রযুক্তি খাতে সোলার ফটোভোলটাইক ও জৈব জ্বালানি সবচেয়ে বেশি কর্মসংস্থান নিশ্চিত করেছে৷ সারাবিশ্ব্ইে বিশেষ করে এই এশিয়াতে এই সংখ্যা সবচেয়ে বেশি৷ বাংলাদেশে এই সংখ্যা বেড়েছে ১০ শতাংশ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও