সৌদি তরুণীকে অস্ট্রেলিয়া পাঠানোর পরামর্শ জাতিসংঘের | বিশ্ব | DW | 09.01.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সৌদি তরুণীকে অস্ট্রেলিয়া পাঠানোর পরামর্শ জাতিসংঘের

পারিবারিক সফরে এসে কুয়েত থেকে পালিয়ে আসা সৌদি তরুণী রাহাফ মোহাম্মদ আল কানুনকে অস্ট্রেলিয়ায় পাঠানোর সুপারিশ করেছে জাতিসংঘ৷ অস্ট্রেলিয়া জানিয়েছে, আশ্রয়ের বিষয়টি তারা বিবেচনা করবে৷

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর) রাহাফকে অস্ট্রেলিয়ায় আশ্রয় দেওয়ার সুপারিশ করে৷ একই সঙ্গে অস্ট্রেলিয়াকে সেই তরুণীকে স্বাগত জানানোর অনুরোধও করে৷

অস্ট্রেলিয়ার  স্বাস্থ্যমন্ত্রী গ্রেগ হান্ট দেশটির শীর্ষ টিভি চ্যানেল এবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রাহাফের আশ্রয়ের বিষয়টি নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘ভীষণ গুরুত্বের সঙ্গে এবং মানবিকভাবে রাহাফের আশ্রয়ের বিষয়টি দেখা উচিত, এবং আমরা সেটি করবো৷ তবে সে শরণার্থীর মর্যাদা পেলে বিষয়টি বিবেচনা করা অস্ট্রেলিয়া কর্তৃপক্ষের জন্য সহজ হবে৷''

অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পিটার ডাটন বলেছেন, ‘‘রাহাফের বিষয়টিতে বাড়তি গুরুত্ব দেওয়ার কিছু নেই৷ তবে কেউই দুস্থ তরুণী দেখতে আগ্রহী নয়৷ আমরা আশা করছি, তিনি থাইল্যান্ডে ইতোমধ্যে নিরাপদ আশ্রয় খুঁজে পেয়েছেন৷''

ভিডিও দেখুন 06:45
এখন লাইভ
06:45 মিনিট

Saudi Teen Asylum Bid

এই মুহূর্তে থাইল্যান্ডে ইউএনএইচসিআরের আশ্রয়ে রয়েছে রাহাফ৷  গত মঙ্গলবার তাঁর বাবা ও ভাই কুয়েত এসে পৌঁছালে রাহাফ দেখা করতে অস্বীকৃতি জানায়৷ইউএনএইচসিআরের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যেহেতু তিনি দেখা করতে চান না এবং এর সঙ্গে তাঁর নিরাপত্তার বিষয় জড়িত, তাই পরিবারের কারো সঙ্গেই দেখা করতে দেওয়া হবে না৷  

গত ৪ জানুয়ারি কুয়েত থেকে ট্রানজিটে ব্যাংককের সূবর্ণভূমি বিমানবন্দরে আটক হন এই সৌদি তরুণী৷ তখন তিনি জানান, তিনি বাড়ি থেকে পালিয়েছেন৷ সেখানে তাঁকে ক্রমাগত মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার করা হতো৷ তিনি টুইটারবার্তায় জানান, তাঁর ভাই তাঁকে হত্যার হুমকি দিয়েছে৷ রাহাফ আরবি ও ইংরেজি দুই ভাষায় লেখা টুইটারবার্তায় মানবাধিকার সংস্থাগুলোর দৃ্ষ্টি আকর্ষণ করেন৷

এফএ/এসিবি (এএফপি/রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন