সৌদি আরবের প্রথম নারী রাষ্ট্রদূত রাজকুমারী রীমা! | বিশ্ব | DW | 25.02.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সৌদি আরবের প্রথম নারী রাষ্ট্রদূত রাজকুমারী রীমা!

ভাইকে সরিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত হলেন রাজকুমারী রীমা বিনতে বান্দার আল সৌদ৷ সৌদি আরবের ইতিহাসে তিনিই প্রথম নারী রাষ্ট্রদূত৷

কিছুদিন আগেই নারীদের গাড়ি চালানোর অনুমতি দেয়াকে কেন্দ্র  করে খবরে উঠে এসেছিল সৌদি আরব৷ বর্তমানে আবারও আলোচনায়   সৌদিতে নারীদের স্বাধীনতা

গত রবিবার সৌদি আরবের ইতিহাসে প্রথমবার কোনো নারী রাষ্ট্রদূতের পদ লাভ করেন৷ ভাই যুবরাজ খালিদ বিন সলমান আল সৌদকে সরিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সৌদি আরবের দূত হলেন রাজকুমারী রীমা বিনতে বান্দার আল সৌদ৷

ঐতিহাসিক এই পদলাভের পর এক টুইটে তিনি জানান, ‘‘ঈশ্বরের অনুমতি নিয়েই আমি আমার দেশের সমস্ত নাগরিকের সেবায় নিজেকে সমর্পণ করলাম৷''

সৌদি আরবে কি দিন বদলাচ্ছে?

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রে উচ্চশিক্ষা লাভ করা রাজকুমারী রীমা সৌদি নারীদের ক্রীড়ায় অংশগ্রহণ বাড়াতে কাজ করেন৷ তাঁর রাষ্ট্রদূত নির্বাচিত হওয়াকে অনেকেই সৌদি আরবে নারীদের ক্ষমতায়নের ইঙ্গিত হিসাবে দেখছেন৷ কিন্তু আদৌ কি তা সত্যি?

সৌদি আরবের আইন অনুযায়ী, কোনো পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি ছাড়া নারীদের বিবাহের সিদ্ধান্ত নেয়া এবং পাসপোর্টের জন্য আবেদন করা বা বিদেশভ্রমণ শাস্তিযোগ্য অপরাধ৷ এই প্রেক্ষিতে এক নারী রাষ্ট্রদূতের নিয়োগ সাধারণ সৌদি নারীদের জীবনে কতটুকু পরিবর্তন আনবে, তা এখনও অনিশ্চিত৷

কিন্তু বর্তমানে, রাজকুমারী রীমার সামনে রয়েছে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ৷ সাংবাদিক জামাল খাশগজি'র হত্যাকে কেন্দ্র করে গত বছর থেকেই চাপের মধ্যে মার্কিন-সৌদি সম্পর্ক৷

সব মিলিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে সৌদি আরবের প্রথম নারী রাষ্ট্রদূতের ওপর শুধুই ইতিহাস গড়ার দায়িত্ব নয়, রয়েছে বিশাল রাজনৈতিক চাপও৷

এসএস/জেডএইচ (এপি, রয়টার্স) 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন