সোচ্চার উন্নয়ন, অনুচ্চার উচ্ছেদ | আলাপ | DW | 13.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

সোচ্চার উন্নয়ন, অনুচ্চার উচ্ছেদ

উন্নয়নের জন্য উচ্ছেদ হয়ে যাচ্ছেন কোটি কোটি মানুষ৷ তারপর? তাঁদের সেই যন্ত্রণা ও লড়াই থেকে যাচ্ছে অগোচরে৷

নন্দীগ্রামে জমি হারানোর আতঙ্ক সারা পশ্চিমবঙ্গে ছড়িয়ে পড়ায় ৩৪ বছরের বাম শাসনের পতন ত্বরান্বিত হয়েছিল৷ (ফাইল ছবি)

নন্দীগ্রামে জমি হারানোর আতঙ্ক সারা পশ্চিমবঙ্গে ছড়িয়ে পড়ায় ৩৪ বছরের বাম শাসনের পতন ত্বরান্বিত হয়েছিল৷ (ফাইল ছবি)

যে যাই বলুন, উন্নয়নের মতো গোলমেলে বিষয় আর দুটো নেই৷ কার উন্নয়ন, কীসের উন্নয়ন এসব জটিল-কুটিল প্রশ্ন ছেড়ে দিন৷ উন্নয়নের মাসুলের দিকটা দেখুন৷ যা না কি অধিকাংশ ক্ষেত্রেই খুব চড়া৷ অন্তত যাঁরা সেই উন্নয়নের খাতিরে হারাতে বাধ্য হন নিজের ঘরবাড়ি, চাষের জমি, ছোটবেলা থেকে বেড়ে ওঠা গ্রাম, জঙ্গল বা শহর৷ উন্নয়নের স্বার্থে হঠাৎই যাদের চলে যেতে অন্যত্র৷ আর এই যাওয়া নিজের ইচ্ছায় নয়৷ নিজের ইচ্ছায় চাকরি নিয়ে বা ব্যবসার খাতিরে আমরা অনেকেই তো কত দূরে যাই, কখনো বিদেশে গিয়ে বসত করি৷ ইচ্ছে থাকলে আমরা আবার আমাদের জন্মের জায়গায় বা বেড়ে ওঠার পরিবেশে ফিরে যেতে পারি৷ উন্নয়নের জন্য উচ্ছেদ হওয়া মানুষেরা আর ফিরতে পারেন না৷ তাঁদের সেই জায়গা ডুবে যায় নবনির্মিত ব্যারেজ বা জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের জলে৷ অথবা তাঁদের বসতের জায়গায় শুরু হয়ে যায় খনি থেকে মিনারেল তোলার কাজ৷ অথবা তৈরি হয়, নতুন রাস্তা, রেললাইন বা কারখানা অথবা নতুন শহর৷ তাঁরা অনেক দূরে রুক্ষ জমিতে আবার বসত শুরু করেন বা দিনমজুরের কাজ নিয়ে ঘুরতে থাকেন এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায়৷ উচ্ছেদের গল্প চলতে থাকে জীবনভর৷

এই উন্নয়নেরও কি কোনো দরকার নেই? অবশ্যই আছে৷ রাস্তা, মেট্রো রেল, কারখানা, শহরের বিস্তার, ব্যারেজ সবই জরুরি৷ কিন্তু সেই সঙ্গে জরুরি উচ্ছেদ হওয়া মানুষগুলির পুনর্বাসন৷ খাতায় কলমে অবশ্য যাঁদের জমি নিয়ে নেয়া হচ্ছে, তাঁদের জন্য উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ সহ অনেক কিছু দেয়ার কথা থাকে৷ কিন্তু বাস্তবে দেখা যায়, সামান্য কিছু অর্থ পেয়ে তাঁদের চলে যেতে হচ্ছে নতুন আস্তানার সন্ধানে৷ তাঁরা অনেকেই জানেন না, ব্রিটিশ আমলের জমি অধিগ্রহণ আইনকে সংশোধন করে বাজারদরের চারগুণ দামে তাঁদের কাছ থেকে জমি কিনতে হবে৷ জমি নেয়ার আগে তাঁদের মত নিতে হবে সরকারকে৷ খাতায়-কলমে কত কীই তো লেখা থাকে৷ তাতে কি কিছু এসে যায়? কিছু ক্ষেত্রে যায়, কিছু ক্ষেত্রে নয়৷ মহারাষ্ট্রে জোর করে জমি অধিগ্রহণ করতে না দেয়ার ফলেই তো মুম্বই থেকে আমদাবাদ পর্যন্ত বুলেট ট্রেনের কাজ থমকে আছে৷ ওড়িশার নিয়মগিরিতে আন্দোলনকারীরা রাহুল গান্ধীর কাছে পৌঁছে গিয়েছিলেন এবং কংগ্রেসের যুবরাজের উদ্যোগে বেঁচে গিয়েছিলেন তাঁরা, তাঁদের পাহাড়, তাঁদের বিশ্বাস৷ না হলে যে পাহাড়কে তাঁরা দেবতা বলে মানেন, তা এতদিনে গুঁড়িয়ে সেখান থেকে খনিজ উৎপাদন শুরু করে দিত বহুজাতিক সংস্থা৷ 

আর যারা পারেন না, তারা উচ্ছেদ হন৷ এরকম উচ্ছেদ হওয়া লোকের সংখ্যা কত? ভারতে সাড়ে চার হাজারের বেশি ব্যারেজ তৈরি হয়ে গেছে বা হচ্ছে৷ বিশ্বব্যাংকের হিসেব অনুযায়ী, একটা বড় বাঁধ তৈরি করার সময় গড়ে ১৩ হাজার মানুষকে উচ্ছেদ করতে হয়৷ আর দিল্লির কিছু সংস্থা যারা এ নিয়ে কাজ করে, তাদের মতে, ভারতে বড় ব্যারেজের ক্ষেত্রে ৪৪ হাজরের বেশি মানুষকে উচ্ছেদ হতে হয়৷ এর সঙ্গে সরকারি হিসাব মেলে না৷ সরকারি হিসাবে ওড়িশায় হীরাকুঁদ বাঁধ তৈরির সময় এক লাখ মানুষকে উচ্ছেদ করতে হয়েছিল৷ গবেষকরা বলছেন, সংখ্যাটা অন্তত এক লাখ ৮০ হাজার হবে৷ ফরাক্কার ক্ষেত্রেও একই ঘটনা৷ বিশ্বব্যাংক বলছে, ৬৩ হাজারেরও বেশি মানুষকে উচ্ছেদ করতে হয়েছিল৷ সরকার এই দাবি মানে না৷ গত ৭০ বছরে ভারতে বড় বড় যে অসংখ্য ড্যাম তৈরি হয়েছে, তাতে পাঁচ কোটির মতো মানুষ বাস্তুহীন হয়েছেন এবং অন্যত্র চলে যেতে হয়েছে বলে গবেষকদের দাবি৷ এই হিসাব শুধু ড্যামের ক্ষেত্রে৷ এছাড়াও বিভিন্ন প্রকল্প, কারখানা, শহর তৈরি সহ উন্ননের ঢালাও ব্যবস্থার জন্য আরো অসংখ্য মানুষ উচ্ছেদ হয়েছেন৷

দেশভাগের সময় বাস্তুচ্যূত হয়েছিলেন এক কোটি ৪০ লাখ মানুষ৷ মারা গিয়েছিলেন ২০ লাখের মতো৷ সেই মর্মান্তিক সময় নিয়ে সিনেমা, ডকুমেন্টারি হয়েছে, অসংখ্য বই লেখা হয়েছে৷ লেখা উচিতও৷  সেই নির্মম ঘটনার ডকুমেন্টেশন হওয়া খুবই জরুরি৷ কিন্তু এই যে শুধু ড্যাম বানাতে গিয়ে ৫ কোটি লোককে ভিটেমাটি হারাতে হলো, তাঁদের কথা ক'জন চিন্তা করে? তাদের নিয়ে কথা বললেই তো উন্নয়নবিরোধী থেকে শুরু করে জাতীয়তাবিরোধীর তকমা পড়ে যায়৷ অথচ, এই মানুষগুলি উচ্ছেদ হওয়ার পর কী অবস্থায় ছিলেন বা আছেন, তার কোনো খবরও সরকারের কাছে থাকে না৷ সম্ভবত সাম্প্রতিক সময়ে সব চেয়ে দীর্ঘস্থায়ী লড়াই করেছে নর্মদা বাঁচাও আন্দোলন৷ কিন্তু তারাও সফল হতে পারেনি৷

স্বাধীনতার পর একের পর এক পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা হয়েছে৷ সেখানে ঠিক হয়েছে কোন রাজ্যে কোন প্রকল্প নেয়া হবে৷ তার দায়িত্বে থেকেছে যোজনা কমিশন৷ সেই যোজনা কমিশনের সাবেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা অমিতাভ রায়ের মতে, সমস্যা হলো, যাদের উচ্ছেদ করা হচ্ছে, তাদের জীবিকা নিশ্চিত করা হচ্ছে  কি না৷ জীবিকা নিশ্চিত করা হলে সমস্যা অতটা থাকে না৷ ভাকরা নাঙ্গাল বা মাইথন, পাঞ্চেতের ক্ষেত্রে সেই কাজটা করা হয়েছিল৷ পুরোপুরি না হলেও অনেকাংশেই করা হয়েছে৷ কিছুদিন আগে অযোধ্যা পাহাড়ে একটা প্রকল্পের ক্ষেত্রেও তা করা হয়েছে৷ কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রে তা করা হয়নি৷ যেখানে করা হয়নি, সেখানেই সমস্যা৷ তার মতে নর্মদার ক্ষেত্রে তো নির্মমভাবে উচ্ছেদ করা হয়েছে৷

গৌতম হোড়, ডয়চে ভেলে

গৌতম হোড়, ডয়চে ভেলে

উচ্ছেদ হওয়া লোকেদের তখন চলে যেতে হয় অনেক দূরে৷ কষ্টকর, নির্বান্ধব পরিস্থিতিতে৷ আর প্রতিটি প্রকল্পে তো শুধু ইঞ্জিনিয়ার, আইটি বিশেষজ্ঞই লাগে না৷ সাধারণ চাকরিতেও অনেক লোক নেয়া হয়৷ ফলে অনায়াসেই অধিকাংশ পরিবার থেকে একজনকে চাকরি দেয়া যায়৷

ইউপিএ আমলে ভূমি অধিগ্রহণ আইনকে খুবই কড়া করা হয়েছে৷ মোদী সরকার সেই আইনকে লঘু করার চেষ্টা করছে৷ কারণ, অভিযোগ হলো, শিল্প সংস্থা জমি অধিগ্রহণ করতে পারছে না৷ অভিযোগ হলো, জমি নিতে টাকা বেশি লাগছে৷ অনেক শর্ত পালন করতে হচ্ছে৷ এমন সব শর্ত যা পূরণ করা যায় না৷ ফলে শিল্প সংস্থার চাপ আইন লঘু করা হোক৷ তা হলে জমির মালিকদের কী হবে? নন্দীগ্রামে জমি হারানোর আতঙ্ক সারা পশ্চিমবঙ্গে ছড়িয়ে পড়ায় ৩৪ বছরের বাম শাসনের পতন ত্বরান্বিত হয়েছিল৷ কিন্তু সে হলো কলকাতা শহরের কাছের জমি৷ তা নিয়ে ক্ষোভ-বিক্ষোভ মিডিয়ায় উঠে আসে৷ ওড়িশার নিয়মগিরি বা গুজরাটের গ্রাম, ছত্তিশগড়ের প্রত্যন্ত আদিবাসী এলাকায় হলে সেই খবর হেডলাইন হয় না. হলেও তার স্থায়িত্ব একদিন৷

ফলে জমি হারান মানুষ৷ ক্ষতিপূরণ যেটুকু পান তা দিয়ে নতুন জায়গায় বসতি স্থাপন করতে হয়৷ তারপর? সেই মানুষগুলির যন্ত্রণা ও জীবনযুদ্ধের কাহিনি কে মনে রাখে? দীর্ঘদিন ধরে উচ্চ পদে সরকারি চাকরি করেছেন কাস্টমস অ্যান্ড এক্সাইজ বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান সুমিত দত্ত মজুমদার৷ তাঁর অভিজ্ঞতা হলো, খাতায় কলমে সব আছে৷ পুনর্বাসন, নতুন জীবন শুরু করতে সাহায্য-- সব৷ আর এও সত্য, সরকারি খাতায়-কলমে থাকা ওই সুবিধাগুলি বাস্তুচ্যূত মানুষগুলির কাছে পৌঁছয় না৷

তাদের চোখের জল ও যন্ত্রণার কাহিনিও পৌঁছয় না আমাদের কাছে৷ কোটি কোটি মানুষ উচ্ছেদ হয়ে যান৷ দিল্লিরই ঘটনা৷ মেট্রো রেলের জন্য দোকান ভাঙতে হয়েছে৷ হয়ত দক্ষিণ দিল্লিতে দোকান ছিল৷ তাঁকে বিকল্প দোকানের জায়গা দেয়া হয়েছে নারেলার মতো অন্য প্রান্তে৷ তাঁর প্রতিবাদ, ইচ্ছে-অনিচ্ছের কোনো দাম নেই৷ নারেলায় যেতেই হবে৷ এভাবেই উন্নয়নের মাসুল দিয়ে যান তাঁরা৷ মাঝে মাঝে নন্দীগ্রাম বা মহারাষ্ট্রে বুলেট ট্রেনের জমি নিয়ে আন্দোলনের কথা উঠে আসে সংবাদমাধ্যমে৷ হইচই হয়৷ তখন কাজ কিছুটা থমকে যায়৷ তারপর আবার যে কে সেই৷ সোচ্চার উন্নয়ন এবং অনুচ্চার উচ্ছেদের গল্প চলতেই থাকে৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়