সোলেইমানির জানাযায় পদদলিত ৩৫ জনের মৃত্যু | বিশ্ব | DW | 07.01.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইরান

সোলেইমানির জানাযায় পদদলিত ৩৫ জনের মৃত্যু

তেহরানে প্রথম জানাযার মতো কেরমান শহরের জানাযাতেও কাসিম সোলেইমানিকে শেষ শ্রদ্ধা জানালেন লাখো মানুষ৷ সেখানে পায়ের নীচে পড়ে অন্তত ৩৫ জন নিহত ও ৪৮ জন আহত হন৷

শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় নিহত হন ইরানের কুর্দ বাহিনীর প্রধান জেনারেল কাসিম সোলেইমানি৷ এ হত্যাকাণ্ডের প্রতিশোধ নেয়া হবে জানিয়ে ইরানে তিনদিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করে সে দেশের সরকার৷ রাষ্ট্রীয় শোক শেষে সোমবার রাজধানী তেহরানে প্রথম জানাযা হয় সোলেইমানির৷

মঙ্গলবার সোলেইমানি ও তার সঙ্গে নিহত অন্যদের মরদেহ নেয়া হয় সোলেইমানির নিজের শহর কেমরানে৷মরুশহরটির রাস্তার দু'পাশে দাঁড়িয়ে লাখো জনতা ‘জাতীয় বীরদের' শ্রদ্ধা জানান৷শহরের কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত জানাযাতেও উপস্থিত ছিলেন লাখো জনতা৷

উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে ইরানের রেভোল্যুশনারি গার্ড ফোর্সের নেতা হোসেইন সালামি বলেন, ‘‘জীবিত কাসিম সোলেইমানির চেয়ে শহিদ কাসিম সোলেইমানি অনেক বেশি শক্তিশালী৷শত্রুরা তাকে অন্যায়ভাবে হত্যা করেছে৷''

এ সময় জানাযায় আসা সবাই সমস্বরে বলে ওঠেন, ‘‘ইসরায়ল নিপাত যাক৷ যুক্তরাষ্ট্র নিপাত যাক৷ ট্রাম্প নিপাত যাক৷''

মঙ্গলবারই সোলেইমানিসহ যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় নিহত অন্যদের দাফন হবে৷

সোলেইমানি নিহত হওয়ার পর মধ্যপ্রাচ্য-সংকট নতুন মাত্রা পেয়েছে৷ প্রতিশোধের ঘোষণার পর পারমাণবিক চুক্তি থেকে সরে আসারও ঘোষণা দিয়েছে ইরান৷ ইরাক থেকে যুক্তরাষ্ট্র্রের সব সৈন্য ফেরত পাঠানোর প্রস্তাব পাস করেছে সে দেশের সংসদ৷ জবাবে তার দেশের কোনো ক্ষতি হলে ইরানের ৫২টি স্থানে হামলার হুমকি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প৷ পাশাপাশি সৈন্য ফেরত পাঠালে ইরাকের বিরুদ্ধে কঠোর অবরোধ আরোপের হুমকিও দিয়েছেন তিনি৷

এসিবি/কেএম (এএফপি, রয়টার্স, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন