সেনেটেও সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেল রিপাবলিকানরা | বিশ্ব | DW | 05.11.2014
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

সেনেটেও সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেল রিপাবলিকানরা

নিজের দলের ভরাডুবি দেখছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ ‘হাউজ অফ রিপ্রেজেন্টেটিভ’-এর পর সেনেটেও সংখ্যা গরিষ্ঠতা পেয়েছে রিপাবলিকানরা৷ মঙ্গলবার মধ্যবর্তী নির্বাচনে সেনেটেরও দখল নিলো তারা৷ গত আট বছরে একবারও এমন হয়নি৷

তবে বিশ্লেষকরা এমনটিই অনুমান করছিলেন৷ বারাক ওবামার নেতৃত্বে ডেমোক্র্যাট সরকার যুক্তরাষ্ট্রে আরো অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এনে দিলেও হাউজ অফ রিপ্রেজেন্টিটিভ, অর্থাৎ কংগ্রেসের নিম্মকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে রিপাবলিকানরা আগে থেকেই সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিল৷ উচ্চকক্ষ, অর্থাৎ সেনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে তাদের মাত্র ছয়টি আসনের দরকার ছিল৷ ওবামার প্রতিপক্ষরা এবার তা-ও পেয়ে গেছে৷ ফলে নিম্নকক্ষ এবং উচ্চকক্ষ রিপাবলিকানদের নিয়ন্ত্রণে৷ যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম অশ্বেতাঙ্গ প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার জন্য এখন দ্বিতীয় মেয়াদের বাকি সময়টা কঠিন হবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে৷

৪ঠা নভেম্বরের মধ্যবর্তী নির্বাচনে সেনেটে একশ আসনের মধ্যে অন্তত ৫২টি আসনের দরকার ছিল রিপাবলিকানদের৷ ডেমোক্র্যাটদের কাছ থেকে সাতটি আসন কেড়ে নিয়ে সেই লক্ষ্য অর্জন করে ফেলেছে তারা৷ ফলে প্রেসিডেন্ট হবার আগে বারাক ওবামা সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডাব্লিউ বুশকে যে অবস্থায় দেখেছিলেন, এখন নিজেই পড়েছেন ঠিক সেই অবস্থায়৷ প্রেসিডেন্ট জর্জ ডাব্লিউ বুশের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই হাউস অফ রিপ্রেজেন্টিটিভ এবং সেনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়ে বসেছিল তাঁর দল৷ এবার ঠিক উল্টো চিত্র৷ যুক্তরাষ্টের ‘গ্র্যান্ড ওল্ড পার্টি' (জিওপি) ডেমেক্র্যাটরা প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার মেয়াদ শেষের দু'বছর আগেই প্রতিনিধি সভা এবং সেনেটে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করল৷ দলটি এখন ২০১৬-র প্রেসিডেন্ট নির্বাচন পর্যন্ত এই ধারা বজায় রেখে ক্ষমতায় ফেরার চেষ্টা করবে – এটাই স্বাভাবিক৷

ডেমোক্র্যাটরা সেনেটে নিজেদের হার মেনে নিয়ে প্রতিপক্ষকে অভিনন্দন জানাতে দেরি করেনি৷ এক বিবৃতিতে ডেমোক্র্যাট নেতা হ্যারি রিড বলেছেন, ‘‘ভোটে ভোটাররা যে বার্তা দিয়েছেন তা খুব পরিষ্কার৷ তাঁরা চান, আমরা এখন মিলেমিশে কাজ করি৷'' সেনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠ হবার পর রিপাবলিকানরা আগের চেয়ে অনেক বেশি সহযোগিতার মনোভাব নিয়ে কাজ করবেন বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি৷

এসিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন