সেনাবাহিনীকে কাছে টানতে পারলেন না গুয়াইদো | বিশ্ব | DW | 01.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভেনেজুয়েলা

সেনাবাহিনীকে কাছে টানতে পারলেন না গুয়াইদো

ভেনেজুয়েলার স্বঘোষিত প্রেসিডেন্ট গুয়াইদো সেনাবাহিনীর উদ্দেশ্যে মাদুরোকে ক্ষমতাচ্যুত করার আহ্বান জানালেও কোনো ফল হয়নি৷ বুধবার আবার দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে৷

দেশে-বিদেশে প্রবল চাপের মুখেও ক্ষমতায় টিকে থাকতে পেরেছেন ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো৷ সেনাবাহিনীর আনুগত্য ছাড়া এমনটা যে সম্ভব হতো না, সে বিষয়ে কারো মনে সন্দেহ নেই৷ সেই সেনাবাহিনীকেই সরাসরি প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে বিরোধী পক্ষের সঙ্গে হাত মেলানোর ডাক দিয়েছিলেন দেশের স্বঘোষিত প্রেসিডেন্ট হুয়ান গুয়াইদো৷ মাদুরোকে ক্ষমতাচ্যুত করতে মঙ্গলবার তিনি গণবিদ্রোহের আহ্বান জানিয়েছিলেন৷ কিছু সৈন্য ও গুয়াইদোর সমর্থকরা পথে নামলেও শেষ পর্যন্ত কোনো লাভ হয় নি৷ মাদুরো এখনো ক্ষমতা আঁকড়ে ধরে আছেন৷ দেশে আরো সংঘাতের আশঙ্কা করা হচ্ছে৷

মঙ্গলবার রাজধানী কারাকাসে বিদ্রোহী সৈন্যদের সঙ্গে মাদুরোপন্থি সৈন্যদের সংঘর্ষ দেখা গেছে৷ গুয়াইদোর ডাকে বিদ্রোহী সৈন্যরা বিরোধী পক্ষের গৃহবন্দি নেতা লেওপল্ডো লোপেসকে মুক্ত করেছে বলে দাবি করা হয়েছে৷ তিনি বিক্ষোভের সময়ে গুয়াইদোর পাশেই ছিলেন৷ পরে সপরিবারে তিনি চিলির দূতাবাসে আশ্রয় নেন৷ সকালের দিকে একাধিক হিংসাত্মক ঘটনার পর পরিস্থিতি অনেকটা শান্ত হয়ে পড়ে৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুয়াইদো বুধবারও মানুষকে পথে নামার আহ্বান জানিয়েছেন৷ মে দিবস উপলক্ষ্যে মাদুরোর সমর্থকদেরও বুধবার পথে নামার কথা৷

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও সিএনএনকে বলেন, মঙ্গলবারের গণবিক্ষোভের মুখে মাদুরো কিউবায় চলে যেতে প্রস্তুত ছিলেন৷ কিন্তু তাঁর সমর্থক দেশ রাশিয়ার হস্তক্ষেপের ফলে তিনি মত বদল করে ক্ষমতায় থেকে যাবার সিদ্ধান্ত নেন৷ মাদুরো প্রশাসন অবশ্য এমন দাবি উড়িয়ে দিয়েছে৷ তাদের অভিযোগ, সরাসরি ওয়াশিংটন থেকে নির্দেশ পেয়ে গুয়াইদো শিবির অস্থিরতা সৃষ্টি করছে৷ ওয়াশিংটন অবশ্য জানিয়েছে, ভেনেজুয়েলার মানুষই গণতন্ত্রের পক্ষে সংগ্রাম চালাচ্ছে৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মাদুরো প্রশাসনের উপর আরো কড়া নিষেধাজ্ঞার হুমকি দিয়েছেন৷

মাদুরো প্রতিরক্ষামন্ত্রী ভ্লাদিমির পাদ্রিনো ও ভাইস প্রেসিডেন্ট দিয়সদাদো কাবেলোকে সঙ্গে নিয়ে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের মাধ্যমে দেশবাসীকে জানান, যে হাতে গোনা কিছু সৈন্য বিদ্রোহ করেছে৷ তিনি বলেন, ভেনেজুয়েলা শান্তি চায় বলে গুয়াইদোর অভ্যুত্থানের ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়েছে৷ দোষীদের শাস্তিরও হুমকি দেন মাদুরো৷ প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, সশস্ত্র বাহিনী দেশের সংবিধান ও বৈধ কর্তৃপক্ষের সুরক্ষার কাজ চালিয়ে যাবে৷

ভেনেজুয়েলার অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক সংকটকে কেন্দ্র করে আন্তর্জাতিক সমাজে স্পষ্ট বিভাজন দেখা যাচ্ছে৷ গুয়াইদোর প্রতি সমর্থন জানাচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ল্যাটিন অ্যামেরিকার বেশিরভাগ দেশ৷ অন্যদিকে রাশিয়া, কিউবা, বলিভিয়া, তুরস্ক ও চিন মাদুরোকেই বৈধ প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বীকৃতি দিচ্ছে৷ রাশিয়া মঙ্গলবার ভেনেজুয়েলার বিরোধী পক্ষের কড়া সমালোচনা করে বলেছে, তারা হিংসাত্মক কার্যকলাপের মাধ্যমে সেনাবাহিনীকে সংঘর্ষে জড়ানোর চেষ্টা করেছে৷

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিয়ো গুতেরেস সব পক্ষের উদ্দেশ্যে হিংসা এড়িয়ে শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছেন৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন