সুবিচার পাবেন ‘বিন লাদেনের ডাক্তার′? | বিশ্ব | DW | 26.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সুবিচার পাবেন ‘বিন লাদেনের ডাক্তার'?

আল-কায়েদার সাবেক প্রধান ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যু হয়েছে সাড়ে ছ'বছর আগে৷ তার এক বছর পর থেকেই ‘লাদেনের ডাক্তার' হিসেবে পরিচিত ড. শাকিল আফ্রিদি পাকিস্তানের গোপন কারাগারে৷ অভিযোগ উঠেছে অবিচার এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের৷

বিন লাদেন নিহত হন ২০১১ সালের ২ মে৷ পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পিএমএ কাকুল অ্যাকাডেমির অদূরের আবোটাবাদের এক গোপন আস্তানায় অভিযান চালিয়ে তাকে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ বাহিনী৷ লাদেন নিহত হওয়ার আগ পর্যন্ত পাকিস্তান সরকার এবং সেনাবাহিনী ক্রমাগত দাবি করে আসছিল, লাদেন কোথায় সে বিষয়ে তাদের কিছুই জানা নেই৷ ফলে যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনী পাকিস্তানের ভেতরে প্রবেশ করে লাদেনকে হত্যা করায় ভীষণ বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছিল পাকিস্তান৷

পাকিস্তান সরকারের দাবি, ‘লাদেনের ডাক্তার' ড. শাকিল আফ্রিদিই যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ-কে লাদেনের খোঁজ দিয়েছিলেন৷ ড. আফ্রিদি তখন পোলিওর টিকাদান কর্মসূচি পরিচালনা করছিলেন৷ পাকিস্তান সরকার মনে করে, পোলিও টিকাদান কর্মসূচির আড়ালে ড. আফ্রিদি আসলে সিআইএ-র এজেন্ট হিসেবে কাজ করছিলেন৷

লাদেন নিহত হওয়ার পরই ড. শাকিল আফ্রিদিকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ ২০১২ সালের  মে মাসে পাকিস্তানের একটি আদালত বিশ্বাসঘাতকতার অভিযোগে ৩৩ বছরের কারাদণ্ড দেয় তাকে৷ তারপর ইসলামি জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগেও মামলা করা হয় তার বিরুদ্ধে৷ সেই থেকে তিনি কারাবন্দি৷ পরিবারের অভিযোগ, ড. শাকিল আফ্রিদিকে কোনো স্বজন বা সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে দেয়া হয় না৷ বিচারপ্রক্রিয়া নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তাঁরা৷ ডয়চে ভেলেকে ড. শাকিল আফ্রিদির চাচাতো ভাই কামার নাদিম আফ্রিদি বলেছেন, ‘‘আফ্রিদি সঠিক বিচার পাবে – এ আশা আমরা করতে পারছি না৷ যুক্তরাষ্ট্র-পাকিস্তান সম্পর্কের উন্নয়ন না হলে তাকে বছরের পর বছর, এমনকি দশকের পর দশক ধরেও কারাগারে থাকতে হতে পারে৷''

ড. শাকিল আফ্রিদির বর্তমান আইনজীবী লতিফ আফ্রিদিও একই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন ডয়চে ভেলের কাছে৷ তিনি বলেন, সরকার পক্ষ পরিকল্পিতভাবে বিচারকাজকে দীর্ঘায়িত করছে৷ শুনানির তারিখ স্থির হওয়ার পরও তারিখ পিছানো হচ্ছে বারবার৷ তিনি জানান, মামলা চলছে উপজাতীয়দের আদালতে৷ সেখানে মূলধারার আদালতের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই৷

ড. শাকিল আফ্রিদির সাবেক আইনজীবী সামিউল্লাহ আফ্রিদিও বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে অসন্তোষ এবং আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন৷ ২০১৫ সালে পেশাওয়ারের কাছে তাঁকে গুলি করে হত্যা করা হয়৷তালেবানের দু'টি গ্রুপ এ হত্যার দায় স্বীকার করে৷

সাত্তার খান/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন