সুবর্ণচরে ধর্ষণ: বাদির সঙ্গে মিলছে না কমিশনের বক্তব্য | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 13.01.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

সুবর্ণচরে ধর্ষণ: বাদির সঙ্গে মিলছে না কমিশনের বক্তব্য

নির্বাচনের রাতে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে গৃহবধূ ধর্ষণের ঘটনায় পুলিশ বাদির মন্তব্য বিকৃত করে নিজের মতো এজাহার সাজিয়েছে৷ মানবাধিকার কমিশনও তদন্ত প্রতিবেদনে তাঁদের মন্তব্য ঠিকভাবে উপস্থাপন করেনি বলে দাবি মামলার বাদির৷

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে চার সন্তানের জননীকে ধর্ষণ ও নির্যাতনের সত্যতা খুঁজে পেলেও মানবাধিকার কমিশন বলছে পূর্ব শত্রুতার জেরে ওই ঘটনা ঘটেছে৷ কিন্তু কমিশনের প্রতিবেদনের সাথে মিলছে না নির্যাতিতার বক্তব্য৷

মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত কমিটি বলছে, এ ঘটনায় তারা কোনো রাজনৈতিক কারণ খুঁজে পায়নি৷

ঘটনার শিকার নারী এবং মামলার বাদি তাঁর স্বামীর বরাত দিয়ে তদন্ত কমিটি বলছে, তাঁরাই তাঁদের পূর্ব শত্রুতার জেরের কথা বলেছেন৷ ভোট দেয়ার ঘটনা বা রাজনৈতিক কারণ এর পেছনে নেই

স্বামী-স্ত্রীর জবানবন্দির কথা উল্লেখ করে তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘‘একাদশ সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষে ভোট দেওয়া বা ভোট দেওয়ার কারণে এ ঘটনা ঘটেছে বা আসামিরা আওয়ামী লীগের কর্মী হওয়া বা আওয়ামী লীগের কোনো কর্মীর মাধ্যমে ওই নারীকে মারপিট ও ধর্ষণের শিকার হওয়ার প্রমাণ পাওয়া যায় না৷''

কিন্তু তদন্ত প্রতিবেদনে তাঁদের বরাত দিয়ে ‘পুর্ব শত্রুতার' বিষয় উল্লেখ করা নিয়ে আপত্তি জানিয়েছেন ধর্ষণের শিকার নারী ও তাঁর স্বামী৷ তারা  দু'জনই ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ‘‘ধানের শীষে ভোট দেয়ার কারণেই স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিনের নির্দেশে ধর্ষণ এবং নির্যাতনের ঘটনা ঘটানো হয়৷ আমরা তদন্ত কমিটির কাছেও একই কথা বলেছি৷ পূর্ব শত্রুতার কোনো কথা বলিনি৷''

অডিও শুনুন 03:02

‘ধানের শীষে ভোট দেয়ার কারণেই আমার ওপর নির্যাতন হয়’

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচন শেষ হওয়ার পর গভীর রাতে এই ধর্ষণ এবং নির্যাতনের ঘটনা ঘটে৷ বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ হলে ব্যাপক তোলপাড় হয়৷ ৩১ ডিসেম্বর এ ঘটনায় মামলা দায়ের হয়৷ পুলিশ এখন পর্যন্ত সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য রহুল আমিনসহ ১১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে৷ এর মধ্যে পাঁচ জন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছেন৷

এর আগেও ডয়চে ভেলের কাছে ‘ধানের শীষে ভোট দেয়ার কারণেই' ধর্ষনের শিকার হয়েছেন বলে জানিয়েছিলেন ওই নারী এবং তার স্বামী৷ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর রবিবার রাতে আবার কথা হয় তাঁদের সঙ্গে৷ ওই নারী এখনো নোয়াখালী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন৷

স্বামীর মোবাইল ফোনে ডয়চে ভেলের প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা হয় তাঁর৷ তিনি আবারও পুরো ঘটনা তুলে ধরেন, ‘‘আমি দুপুর ২টার দিকে ভোট দিতে গিয়েছি৷ জসিম ভাই নৌকায় ভোট দিতে বলেন৷ কিন্তু আমি ধানে ভোট দিতাম৷ এরপর আমাকে সবার সামনেই ভোট দিতে বলে৷ কিন্তু আমি তা না করে গোপন কক্ষে গিয়ে ধানে ভোট দিই৷ এরপর জসিম, জুয়েলসহ আরো কয়েকজন গিয়ে বলে রাতে খবর আছে৷ ওই সময় রহুল আমিন ছিল কিনা আমি দেখিনি৷ তবে এরা সবাই রুহুল আমিন বাহিনীর৷''

অডিও শুনুন 07:22

‘তদন্ত কমিটির কাছে পূর্ব শত্রুতার কোনো কথা বলিনি’

তিনি বলেন, ‘‘রাতে রহুল আমিনের অর্ডারেই আমার ওপর নির্যাতন করা হয়৷ তাঁরা আমাকে ধর্ষণ করে৷ তাঁর নির্দেশেই হয়েছে৷''

তদন্ত কমিটির কাছে পূর্ব শত্রুতার কথা বলেছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘অনেকেই এসেছেন, আমার বক্তব্য নিয়েছেন৷ কারা তদন্ত কমিটি, তা আমি জানিনা৷ তবে সবার কাছেই আপনাকে যা বলেছি সেই একই কথা বলেছি৷ পূর্ব শত্রুতার কথা বলিনি৷ পূর্ব শত্রুতার কারণে নয়, ধানের শীষে ভোট দেয়ার কারণেই রুহুল আমিনের নির্দেশে আমার ওপর নির্যাতন হয়৷''

পূর্ব শত্রুতা কখনো ছিল কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘চার বছর আগে ছিল৷ তা তখনই মিটমাট হয়ে যায়৷ আর পূর্ব শত্রুতার কারণে নির্যাতন করলে, কিছু হলে তো চার বছর আগেই হত৷''

৩০ ডিসেম্বর পাংখারবাজার ১৪ নম্বর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ধানের শীষে ভোট দেয়ায় ওই নারীকে হুমকি দেয়া হয়৷ আর  রাতেই বাড়িতে ঢুকে ধর্ষণ এবং নির্যাতন করে দুর্বৃত্তরা৷

অডিও শুনুন 01:01

‘বাদি সঠিক কথা বলছেন না’

ধর্ষণের শিকার নারীর স্বামী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমিতো আর ভোট দেয়ার সময় ছিলাম না৷ ওই সময় যা হয়েছিল তা আমি আমার স্ত্রীর কাছ থেকে শুনেছি৷ সে আমাকে বলেছে ধানের শীষে ভোট দেয়ায় তাঁকে হুমকি দেয়া হয়৷ আর রাতে তো আমাকে বেঁধে, আমার সামনেই ধর্ষণ করা হয়৷ আমি তদন্ত কমিটির কাছেও একই কথা বলেছি৷ পূর্ব শত্রুতার কোনো কথা বলিনি৷''

তাহলে মামলার এজাহারে কেন ধানের শীষে ভোট দেয়ার কারণ বলা হয়নি, পূর্ব শত্রুতার কথা কেন বলেছেন? এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘আমি মৌখিকভাবে পুরো ঘটনা বলেছি৷ পুলিশ এজাহার লিখেছে৷ এজাহার লিখে আমাকে পড়েও শোনায়নি৷ শুধু আমাকে বলেছে সই কর৷ তারা আমার কথা এজাহারে না লিখে তাদের মতো এজাহার বনিয়েছে৷''

অডিও শুনুন 00:47

‘আমরা প্রতিবেদন দিয়েছি, এখন কমিশন মূল্যায়ন করবে’

তিনি আরো অভিযোগ করেন, ‘‘আমি রহুল আমিনসহ ১২ জনের নাম বলেছি অভিযুক্ত হিসেবে৷ কিন্তু পুলিশ রহুল আমিনসহ ৩ জনের নাম বাদ দিয়ে ৯ জনকে এজাহারে আসামি করে৷'' অবশ্য চাপের মুখে পুলিশ পরে আওয়ামী লীগ নেতা রহুল আমিনকে সন্দেহজনক আসামি হিসেবে আটক করে৷

এর জবাবে সুবর্ণচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজাম উদ্দিন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাদি সঠিক কথা বলছেন না৷ আর এজাহার না দেখে তাঁর অভিযোগ সম্পর্কে আমি এখন কিছু বলতে পারবো না৷ মামলাটি এখন ডিবি তদন্ত করছে৷''

এদিকে মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত কমিটি পূর্ব শত্রুতার জেরের কথা বললেও কী সেই পূর্ব শত্রুতা তা উল্লেখ করেনি প্রতিবেদেন৷ ধর্ষণের শিকার নারী ও তার স্বামীর এই বক্তব্যসহ এইসব বিষয় তুলে ধরে কমিটির আহ্বায়ক আল মাহমুদ ফায়জুল কবীরের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা প্রতিবেদন দিয়েছি, এখন কমিশন মূল্যায়ন করবে৷ এ নিয়ে কমিশন চেয়ারম্যান বলতে পারবেন৷''

অডিও শুনুন 01:33

‘এ নিয়ে আমি কোনো কথা বলতে চাইনা’

মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হকের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে, তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘তদন্ত কমিটিই ভালো বলতে পারবে৷ এ নিয়ে আমি কোনো কথা বলতে চাইনা৷''

তবে তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘ওই নারীকে দলবদ্ধভাবে নির্যাতন এবং ধর্ষণ করা হয়েছে এটা প্রমাণিত৷ এখন সরকারের কাছে দাবি, বিচার নিশ্চিত করা৷ তদন্ত কমিটি বলেছে পূর্ব শত্রুতার জেরে এই ঘটনা ঘটেছে৷ ওরা মনে হয় সেটা পরিস্কার করতে পারেনি৷ এটা ওরাই ভালো বলতে পারবে৷ আমার কথা হল অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন