সীমিত সংস্কারের পক্ষে ইইউ নেতারা | বিশ্ব | DW | 29.10.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সীমিত সংস্কারের পক্ষে ইইউ নেতারা

ইউরোপীয় ইউনিয়নের চালিকা শক্তি লিসবন চুক্তির সংস্কার চায় জার্মানি-ফ্রান্স৷ ব্রাসেলসে ইইউ শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে উঠে এসেছে এই বিষয়টি৷ জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল সংস্কারের দাবিতে অনড় থাকলেও বিরোধিতা কম নয়৷

default

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নিকোলা সার্কোজির সঙ্গে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল (ফাইল ফটো)

সম্মেলনে মূল ইস্যু সংস্কার

ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৭টি দেশের শীর্ষনেতারা দু'দিনের আলোচনায় বসেছেন ব্রাসেলসে৷ বৈঠকে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল লিসবন চুক্তির সংস্কারের নানা দিক তুলে ধরেন৷ প্রথম দিনের বৈঠক শেষে কূটনীতিকদের বরাতে যে খবর পাওয়া যাচ্ছে, তাতে ইইউ নেতারা লিসবন চুক্তির কিছু পরিবর্তন আনতে সাধারণ ঐকমত্যে পৌঁছেছেন৷ তবে এই বিষয়ে বিস্তারিত এখনো কিছু পাওয়া যায়নি৷

সংস্কার চায় জার্মানি এবং ফ্রান্স

মূলত গ্রিসের বাজেট ঘাটতির মতো সংকট আবারো যাতে তৈরি না হয়, তা নিশ্চিত করতে চায় জার্মানি৷ কেননা, এধরণের ঘাটতি একক মুদ্রা ইউরো-র জন্য বড় হুমকি৷ ম্যার্কেল বলেন, আমাদের এমন একটি পন্থা বের করা উচিত, যেখানে ব্যাংক এবং ঋণভাণ্ডারের মতো উচ্চ সুদের মুনাফা আয়কারীরাও থাকবে৷ সেক্ষেত্রে শুধু করদাতারাই আর এককভাবে দায়িত্ব নেবেনা৷

শুধু তাই নয়, ইইউ'র স্থিতিশীলতা আর উন্নতির চুক্তি ভঙ্গকারী দেশগুলোর জন্য ম্যার্কেল এবং ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নিকোলা সার্কোজি কঠিন শাস্তির পক্ষে৷ এতে করে ইইউ সদস্য দেশগুলো বাজেট ঘাটতির পরিমাণ জিডিপি'র তিন শতাংশের মধ্যে রাখতে বাধ্য হবে৷

কঠোর শাস্তির প্রস্তাব

প্রস্তাবনা অনুযায়ী, বাজেট ঘাটতি সীমিত রাখতে ব্যর্থ সদস্যদেশগুলোর ওপর নানা ধরণের নিষেধাজ্ঞা, এমনকি ইইউ মন্ত্রী পরিষদে তাদের ভোটাধিকার বাতিলের পক্ষে ম্যার্কেল এবং সার্কোজি৷ তবে, জার্মানি আরো কঠোর শাস্তির পক্ষে ছিল৷ কিন্তু ফ্রান্সের সঙ্গে সমঝোতার খাতিরে আপাতত এতেই সন্তুষ্ট ম্যার্কেল৷

এখানে বলে রাখা উচিত, এবছরের শুরুতে গ্রিসের বাজেট ঘাটতি কাটাতে বড় অঙ্কের সহায়তা করতে হয়েছে জার্মানিকে৷ কিন্তু বর্তমান লিসবন চুক্তির আওতায় এরকম সহায়তা আর করতে চাইছেনা দেশটি৷ কেননা, জনসাধারণ এর পক্ষে নয়৷ তাই প্রয়োজনে লিসবন চুক্তির সংস্কারের পক্ষেও জার্মানি৷

সংস্কারের পক্ষে নয় অনেকে

ইইউ বৈঠকে জার্মানি এবং ফ্রান্সকে রীতিমত একঘরে করে ফেলেছে অন্যদেশগুলো৷ বিশেষ করে বাজেট ঘাটতিতে থাকা কিংবা ঘাটতির আশঙ্কায় থাকা দেশগুলো বড়ধরণের আর্থিক সংস্কারের বিপক্ষে৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: হোসাইন আব্দুল হাই

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন