সীমান্তে উত্তেজনা, নতুন হুমকির মুখে রোহিঙ্গারা | বিশ্ব | DW | 01.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

রোহিঙ্গা সংকট

সীমান্তে উত্তেজনা, নতুন হুমকির মুখে রোহিঙ্গারা

নোবেলজয়ী তিন নারীর বাংলাদেশ সফর রোহিঙ্গা ইস্যুকে চাঙ্গা করলেও মিয়ানমারের কোনো বিকার নেই৷ প্রত্যাবর্তন চুক্তির পরও তারা রোহিঙ্গাদের ওপর অত্যাচার-হুমকি অব্যাহত রেখে সীমান্তে সেনা উপস্থিতি বাড়িয়েছে৷ দেখা দিয়েছে উত্তেজনাও৷

রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নীরবতায় বিস্মিত শান্তিতে নোবেল জয়ী ইরানের শিরিন এবাদি, আয়ারল্যান্ডের মারেইড ম্যাগুয়ার এবং ইয়েমেনের তাওয়াক্কুল কারমান৷ তাঁরা বলেছেন, এই ইস্যুতে তাঁরা আর নীরব থাকবেন না৷ বিষয়টিকে তাঁরা আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে নিয়ে যেতে চান৷ বিচারের মুখোমুখি করতে চান হত্যা, ধর্ষণ এবং নির্যাতনের জন্য দায়ী মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে৷ শুধু তাই নয়, রোহিঙ্গাদের অধিকার ফিরিয়ে দেয়ায় অং সান সুচি ভূমিকা না নিলে তাঁকেও বিচারের মুখোমুখি হতে হবে বলে মন্তব্য করেন তাঁরা৷

নোবেল বিজয়ী এই তিন নারী কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শণ করেছেন রবি, সোম ও মঙ্গলবার৷ তাঁরা রোহিঙ্গা নারী ও শিশুদের সঙ্গে আলাদাভাবে কথা বলেছেন৷ বুধবার ঢাকায় তাঁরা জানান, ‘‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা স্পষ্টই গণহত্যার শিকার৷ এর জন্য দায়ী মিয়ানমার সেনাবাহিনী৷ স্টেট কাউন্সিলর হিসেবে সুচিও এর দায় এড়াতে পারেন না৷''

তাঁরা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গেও দেখা করেন বুধবার৷ প্রধানমন্ত্রীকেও একই কথা বলেন তাঁরা৷ জানান, ‘‘রোহিঙ্গাদের হত্যা-নির্যাতনের দায় মিয়ানমারকেই নিতে হবে৷''

অডিও শুনুন 01:57
এখন লাইভ
01:57 মিনিট

‘মিয়ানমানে সেনাবাহিনী মাইকিং করে তাদের নো-ম্যান্স ল্যান্ড ছাড়তে বলছে’

নোম্যান্স ল্যান্ডে হুমকি

অবশ্য এতে মিয়ানমারের অবস্থানের পরিবর্তন হয়েছে বলে মনে হয় না৷ এই নোবেলজয়ীরা বাংলাদেশে থাকার সময়ই মিয়ানমার তাদের সীমান্তে সেনা সমাবেশ ঘটিয়েছে৷ তমব্রু সীমান্তের নোম্যান্স ল্যান্ডে (জিরো পয়েন্ট) আশ্রয় নেয়া কম-বেশি ছয় হাজার রোহিঙ্গাকে চলে যাওয়ার জন্য হুমকি দিচ্ছে তারা৷ তাদের হুমকির মুখে ভয় পেয়ে নোম্যান্স ল্যান্ডে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের অর্ধেক পালিয়ে গেছেন৷ বাকিরা বাংলাদেশ সীমান্তে  ভিড় করছেন৷ বন্দরবনের সাংবাদিক নজরুল ইসলাম টিটো নোম্যান্স ল্যান্ড থেকে ফিরে টেলিফোনে ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘মিয়ানমানে সেনাবাহিনী মাইকিং করে তাদের নোম্যান্স ল্যান্ড ছাড়তে বলছে৷ ২০ ফেব্রুয়ারি যৌথ ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকের পরও সীমান্তে মিয়ানমার সেনা সমাবেশ ঘটায়৷ নোম্যান্স ল্যান্ডের দিকে তারা ভারী অস্ত্রসস্ত্র তাক করে ভয় দেখায়৷ এরইমধ্যে তিন হাজারের মতো রোহিঙ্গা নোম্যান্স ল্যান্ড থেকে বাংলাদেশে ঢুকে পড়েছে৷ বাকিরা সীমান্তে ভিড় করেছে৷''

বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বৃহস্পতিবার বলেছেন, ‘‘কোনোভাবেই নোম্যান্স ল্যান্ডে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে ঢুকতে দেয়া হবে না৷ আর মিয়ামনমার সীমান্ত নীতি ভঙ্গ করলে সমূচিত জবাব দেয়া হবে৷''

সীমান্তে সেনা সমাবেশ

এদিকে বিজিবি-র অতিরিক্ত মহাপরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মজিবুর রহমান বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, ‘‘আজকে (১ মার্চ) সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১০টা নাগাদ তমব্রু বর্ডার পোস্ট ৩৪ ও ৩৫-এর মাঝামাঝি এলাকায় মিয়ানমার সীমান্তের প্রায় ১৫০ গজ অভ্যন্তরে সেনা সমাবেশ ঘটিয়েছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী৷ তারা মিলিটারি প্যাটার্নের পিকআপের ট্রাক লরির মাধ্যমে সেখানে ভারি অস্ত্র স্থাপন করেছে৷ আমরাও সতর্ক অবস্থানে আছি৷ পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি৷ ইতিমধ্যে ফ্ল্যাগ মিটিংয়ের আহ্বান জানিয়েছি৷''

অডিও শুনুন 01:05
এখন লাইভ
01:05 মিনিট

‘মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ভয়-ভীতি দেখানোর জন্য এটা করেছে’

গত নভেম্বরে মিয়ানমার সেখান থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি করে৷ এরপর গত ১৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় যৌথ ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে ফেরত নেয়ার জন্য রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ১,৬৭৩টি পরিবারের ৮,০৩২ জনের একটি তালিকা মিয়ানমারের কাছে হস্তান্তর করেছে বাংলাদেশ৷ তারিখ নির্ধারিত না হলেও মিয়ানমার প্রথম দফায় ওই রোহিঙ্গাদের ফেরাত নিতে সম্মত হয়৷ এছাড়া নোম্যান্স ল্যান্ডে অবস্থান নেয়া ছ'হাজার রোহিঙ্গাকে মিয়ানমার তাদের মতো করে ফিরিয়ে নেয়ার কথা বলে৷ কিন্তু এরপর থেকেই নোম্যান্স ল্যান্ডে ভয়ভীতি দেখানো শুরু হয়৷ স্থানীয় সূত্র জানায়, এই অবস্থার মধ্যে গত তিন দিনে ৫০০ জন রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে৷ আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবর হলো, প্রাণ ভয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের রাখাইনে তাঁদের বাড়ি-ঘরের শেষ চিহ্নও বুলডোজার দিয়ে গুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে৷

বাংলাদেশের প্রতিবাদ

মিয়ানমার সীমান্তে নতুন করে সেনা সমাবেশ ঘটনার প্রতিবাদে ঢাকায় নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত লুইন উ-কে বৃহস্পতিবার দুপুরের পর বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়৷ ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিব এম খোরশেদ আলম বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তাঁর কাছে একটি আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদপত্র  দিয়ে অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন বিষয়ে  জানতে চান৷ পত্রে বলা হয়, এটি দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের জন্য ভালো নয়৷

বিশ্লেষকদের অভিমত

মিয়ানমারে বাংলাদেশের সাবেক ডিফেন্স এটাশে মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘মিয়ানমার যে সীমান্তে সেনা সমাবেশ ঘটিয়েছে ,তার টার্গেট বাংলাদেশ নয় বলেই আমি মনে মনে করি৷ মিয়ানমার নোম্যান্স ল্যান্ডে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের ভয়-ভীতি দেখানোর জন্য এটা করেছে৷ তারা চায় রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে ঢুকে পড়ুক অথবা মিয়ানমারে ফিরে যাক৷''

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের যে ফেরত নেবে এবং নিলে সেটা কবে নেবে – তা আসলে নিশ্চিত নয়৷ তারা যে প্রক্রিয়াটা দীর্ঘায়িত করতে চায়, তা স্পষ্ট৷ কারণ খেয়াল করবেন রোহিঙ্গরা এখনো কিন্তু বাংলাদেশে আসছে৷''

অডিও শুনুন 02:27
এখন লাইভ
02:27 মিনিট

‘বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ালে বাংলাদেশের লক্ষ্যপূরণ সহজ হবে’

বাংলাদেশ সরকার তিন নোবেল বিজয়ীর সফরের পর তাঁদের ওপর তুষ্ট৷ সরকারের একটি সূত্র জানায়, ‘‘বাংলাদেশ চায় এই তিন নোবেলজয়ী যা দেখেছেন এবং যা মনে করেন তা যেন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে সুনির্দিষ্টভাবে তুলে ধরেন৷ বাংলাদেশ প্রয়োজনে তাঁদের আরো তথ্য-উপাত্ত দিয়ে সহায়তা করবে৷ বাংলাদেশ চায়, তাঁরা যেন আরো নোবেল বিজয়ীদের সম্পৃক্ত করে ধারাবাহিক ক্যাম্পেইন শুরু করেন৷''

ওই সূত্র জানায়, ‘‘বাংলাদেশ মনে করে তিন নোবেলজয়ী আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যার যে বিচারের দাবি তুলেছেন, তা নতুন মাত্রা দেবে৷ বাংলাদেশ রোহিঙ্গা ইস্যুতে আরো ভালোভাবে কাজ করতে পারবে৷''

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ-এর (বিআইআইএসএস বা বিস) সভাপতি মুন্সি ফয়েজ আহমেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশ কী চায়? বাংলাদেশ চায় রোহিঙ্গারা যাতে তাঁদের প্রাপ্ত অধিকার নিয়ে মিয়ানমারে ফেরত যেতে পারেন৷ তাই নোবেলজয়ীদের মতো বিশ্বের আরো যাঁরা গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি আছেন, তাঁরা যদি রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ান, তাঁদের জন্য কাজ করেন, তাহলে বাংলাদেশের লক্ষ্যপূরণ সহজ হবে৷ বাংলাদেশের কাজ হলো তাঁদের সাথে নিয়ে কূটনৈতিক চাপ আরো বাড়ানো৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ঘর-বাড়ি বুলডোজার দিয়ে লেভেল করে দিচ্ছে – এই তথ্য সঠিকভাবে সংগ্রহ করা দরকার৷ তারা এটা করে থাকলে কেন করছে, কীভাবে করছে, তাও জানা দরকার৷ কারণ এই সময়ে তারা চাইলেও কিছু গোপন করতে পারবে না৷ তাছাড়া জিরো পয়েন্ট থেকে রোহিঙ্গারা ভয় পেয়ে চলে যাচ্ছেন না তাঁদের ভয় দেখিয়ে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে, তাও আমাদের বুঝতে হবে৷ মিয়ানমারের মধ্যে যদি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে আন্তরিকতার অভাব থাকে তাহলে আমাদের কাজ হলো, তারা যাতে আন্তরিক হয় সেই পরিস্থিতি সৃষ্টি করা৷''

গত বছরের আগস্ট থেকে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে এসেছেন৷ তাঁদের আসা এখনো অব্যাহত আছে, যদিও মিয়ানমার তাঁদের ফেরত নেয়ার চুক্তি করেছে বাংলাদেশের সঙ্গে৷ এর আগে থেকেই আরো চার লাখ রোহিঙ্গা আছেন বাংলাদেশে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়