সীতাকুন্ডু উপকূলে বাড়ছে জাহাজ ভাঙ্গা শিল্পের প্রসার | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 29.08.2008
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

সীতাকুন্ডু উপকূলে বাড়ছে জাহাজ ভাঙ্গা শিল্পের প্রসার

বাংলাদেশের চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডু উপকূলে পৌঁছলেই শোনা যাবে ইস্পাত আর হাতুড়ি পেটানোর শব্দ৷ দিনরাত চলছে পুরনো আর পরিত্যাক্ত জাহাজ ভাঙ্গার কাজ৷

default

মুলত পরিত্যাক্ত জাহাজগুলোই নিয়ে আসা হয় ভাঙ্গার জন্য

নির্মাণ শিল্পে ইস্পাতের চাহিদা দিন দিনই বেড়ে চলায় সীতাকুন্ডু উপকূলজুড়েই গড়ে উঠেছে শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড৷

সীতাকুন্ডুর ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ উপকূলে এখন শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ডের সংখ্যা ২২টি৷ বিভিন্ন দেশের পরিত্যাক্ত জাহাজ ভিড়ছে এখানে৷ আর এই জাহাজ ভাঙ্গা শিল্পে হাড় ভাঙ্গা খাটুনি খেটেই দিন চালাচ্ছে ৩০ হাজার শ্রমিক৷

বাংলাদেশ শিপ ব্রেকার্স অ্যাসোসিয়েশন বা বিএসবিএ-র দাবি, সীতাকুন্ডুর জাহাজ ভাঙ্গার এসব ওয়ার্কশপই বিশ্বে খোলা আকাশের নীচে ওয়ার্কশপগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড়৷ গত অর্থ বছরে এখানে ভাঙ্গা হয়েছে ১০ লাখ টন ইস্পাত৷

শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড মালিকদের মতে, সীতাকুন্ডু উপকূলে সমুদ্রের ঢেউ বেশি হওয়ায় সৈকতের মাত্র দু´শ গজের মধ্যেই ভেড়ানো যায় জাহাজ৷ যেখানে ভারত কিংবা চীনে জাহাজ ভেড়াতে হয় সৈকত থেকে কমপক্ষে দুই কিলোমিটার দূরে৷ আর এ কারণেই প্রতিটি জাহাজ ভাঙ্গাতে বেঁচে যাচ্ছে হাজার হাজার ডলার৷ তার উপর বাংলাদেশে শ্রম বাজার সস্তা৷ ব্যাটে বলে মিলে যাওয়ায় সীতাকুন্ডু উপকূলই হয়ে উঠেছে জাহাজ ভাঙ্গা শিল্পের জন্য উপযুক্ত জায়গা৷ বর্তমানে ৮০ হাজার টন ওজনের জাহাজও ভাঙ্গা হচ্ছে এখানে৷

বাংলাদেশের ২শ´টি রি-রোলিং কারখানায় পুরনো জাহাজের ওসব ইস্পাত গলিয়ে তৈরি করা হয় রড৷ বলাবাহুল্য, নির্মাণ শিল্পে এর চাহিদা আকাশচুম্বী৷ কারণ বাংলাদেশে কোন লোহার খনি না থাকায় বাইরে থেকে রড আমদানি করলে খরচ পড়ে প্রচুর৷ তার উপর দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধগতি আর রপ্তানি শুল্ক বাড়িয়ে দেয়ায় এখন ভারত থেকে প্রতি টন ইস্পাত আমদানি করতে লাগে প্রায় ১২শ´ ডলার৷ এক্ষেত্রে আমদানিকৃত ইস্পাতের তৈরি রডের চেয়ে শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ডের ইস্পাত থেকে তৈরি রডের গুণগত মান কম হলেও নির্মাণ শিল্পে এর চাহিদাই এখন তুঙ্গে৷ কারণ ২০ ভাগ কম দামেই পাওয়া যাচ্ছে এই রড৷

তবে সীতাকুন্ডুর এই জাহাজ ভাঙ্গা শিল্প পরিবেশের ক্ষতি করছে বলে অভিযোগ সচেতন মহলের৷ তাছাড়া এখানে কাজ করাও ঝুঁকিপূর্ণ৷ জাহাজ ভাঙ্গার সময় প্রায়ই ঘটছে দুঘর্টনা৷ শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ডের হিসেবেই, এ বছর তাদের ওয়াকর্শপে মৃত্যু হয়েছে ১০ জন শ্রমিকের৷ তবে শ্রমিকদের দাবি, এই সংখ্যা আরো অনেক বেশি৷ দুঘর্টনায় হতাহতদের জন্য সন্তোষজনক ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থাও নেই বলে অভিযোগ শ্রমিকদের৷

অবশ্য শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড মালিকদের যুক্তি, তাদের এই কাজের কারণে পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে না মোটেই৷ কারণ, পরিত্যাক্ত জাহাজ সাগরে ফেলে না দিয়ে রিসাইক্লিং-এর মাধ্যমে নতুন পণ্য উত্‌পাদন করা হচ্ছে৷ এতে বরং ভালই হচ্ছে পরিবেশের৷ এমনকি জাহাজের তেলটাও পরিশোধন করে কাজে লাগানো হচ্ছে৷

আর শ্রমিকদের ব্যাপারে তারা বলছেন, সব শিল্পেই এমন দুঘর্টনা ঘটতে পারে৷ তাদের দাবি, বাংলাদেশের মতো গরিব দেশে এই শিল্পের প্রসার অনেকটা আশীর্বাদই বলা যায়৷ এর মাধ্যমে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে বহু মানুষের৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন