সিরিয়া নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগেছে পশ্চিম দুনিয়া | বিশ্ব | DW | 19.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সংবাদভাষ্য

সিরিয়া নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগেছে পশ্চিম দুনিয়া

সিরিয়ার বর্তমান পরিস্থিতির জন্যখানিকটা হলেও দায়ী পশ্চিম দুনিয়া৷ যে সময় পদক্ষেপ করা উচিত ছিল, সে সময় তারা কার্যত কিছুই করেনি৷ যার পূর্ণ সুযোগ নিয়েছে জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) এবং আসাদ সরকার৷

সদিচ্ছা থাকলে ঘটনা অন্যরকম হতে পারত৷ সিরিয়া আজকের চেহারায় পৌঁছাতো না৷ কিন্তু বাস্তব অন্যরকম হয়েছে৷ কারণ সিরিয়া নিয়ে পশ্চিম দুনিয়া যে অবস্থান নিয়েছে তা অনেকটা ‘ধরি মাছ না ছুঁই পানি'-র মতো৷ যার খেসারত দিতে হচ্ছে এখন৷

সাত বছর হয়ে গেল সিরিয়ায় গৃহযুদ্ধ চলছে৷ যদিও শুরুটা অন্যরকম ছিল৷ সে সময় সিরিয়ার আসাদ সরকারের পাশে অন্য কোনো দেশ ছিল না৷ এবং তখন থেকেই দেশের সরকারবিরোধী বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে একের পর এক ভয়ংকর অস্ত্র ব্যবহার করতে শুরু করেছিল আসাদ সরকার৷ বিশ্ব দেখেছিল রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার৷ সে সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ছিলেন বারাক ওবামা৷ আসাদ সরকারকে সতর্ক করে তিনি বলেছিলেন, সিরিয়ার সরকার অবিলম্বে এ ধরনের অস্ত্রের প্রয়োগ বন্ধ না করলে অ্যামেরিকা কড়া ব্যবস্থা নেবে৷ বস্তুত ওবামা একটি বাক্য ব্যবহার করেছিলেন সে সময়৷ সিরিয়া ‘রেড লাইন' অতিক্রম করে ফেলছে৷ যার ফল তাদের ভুগতে হবে৷ কিন্তু ওবামার বক্তব্যকে কার্যত আমল দেয়নি আসাদ সরকার৷ একের পর এক রাসয়নিক অস্ত্র ব্যবহৃত হয়েছে নিজের দেশের সাধারণ মানুষের ওপরেই৷ কিন্তু অ্যামেরিকা সে সময় কোনোই ব্যবস্থা নেয়নি৷ কেন নেয়নি?

ভিডিও দেখুন 01:59
এখন লাইভ
01:59 মিনিট

যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ার ভয়াবহ চিত্র

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, ইরাকে এবং লিবিয়ায় ভুল স্ট্র্যাটেজি নিয়েছিল অ্যামেরিকা৷ বস্তুত দু'জায়গাতেই তথাকথিত স্থায়ী সরকারের বিরুদ্ধে গড়ে ওঠা বিপ্লবে অ্যামেরিকা সহায়তা করেছিল৷ কিন্তু সেই বিপ্লব যে ‘মিস ফায়ার’ করবে এবং বুমেরাং হয়ে অ্যামেরিকার দিকেই ফিরে আসবে, মার্কিন কূটনীতিকেরা তা বুঝতে পারেননি৷ ইরাক এবং লিবিয়ায় বিপ্লবের পর উগ্র ইসলামিক শক্তির দাপট ক্রমশ বৃদ্ধি পায়৷ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে আইএস জঙ্গিরা কার্যত মুক্তাঞ্চল তৈরি করে ফেলে৷ যা নিয়ে অ্যামেরিকাকে যথেষ্ট সমালোচনার মুখেও পড়তে হয়েছিল৷ ফলে আসাদ সরকারের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করতে ভয় পেয়েছিলেন ওবামা৷ ভেবেছিলেন, সরাসরি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়লে আবার তা ‘মিস ফায়ার’ হতে পারে৷

বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, ওবামা এবং ইউরোপের অন্যান্য রাজনীতিকেরা যদি সে সময় সিরিয়ার বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করতেন, তাহলে সিরিয়ার এই চেহারা হতো না৷ অন্যদিকে সুযোগের সদ্ব্যবহার করেছে রাশিয়া এবং ইরান৷ আসাদ সরকারের পাশে দাঁড়িয়ে তারা বিশ্বরাজনীতিতে মেরুকরণ করেছে৷ ফলে এখন আসাদ সরকারের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করলে তা অন্য চেহারা নেবে৷ পৃথিবী আরো একটি বিশ্বযুদ্ধের দিকে অগ্রসর হবে৷

Knipp Kersten Kommentarbild App

ডিডাব্লিউর কার্স্টেন নিপ

আসলে, অ্যামেরিকা এবং ইউরোপ ঠিক সময়ে ঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি৷ একটা লম্বা সময় তারা সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগেছে৷ যে সময় যে পদক্ষেপ করা উচিত ছিল, তখন তারা কিছুই করেনি৷ এদিকে সিরিয়ার সমস্যা ক্রমশ জটিল হয়েছে৷ আইএস জঙ্গিরা পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ করে তুলেছে৷ আসাদের থেকে ফোকাস সরে গিয়ে সকলের ফোকাস চলে গিয়েছিল আইএসের দিকে৷ যে লড়াইয়ে পশ্চিম দুনিয়া সহ সকলেই জোটবদ্ধ হয়েছিল৷ আসাদ সরকারকে সাহায্য করেছিল অ্যামেরিকা এবং ইউরোপ৷ আপাতত সিরিয়া আইএসমুক্ত হয়েছে ঠিকই, কিন্তু কূটনীতির চেহারা বদলে গিয়েছে৷ সকলেই নিজের আখেড় গোছানোর চেষ্টা করছে৷ এবং উদ্ভূত পরিস্থিতির পূর্ণ সুযোগ নিচ্ছে আসাদা সরকার এবং তুরস্ক৷ ফলে নতুন করে সিরিয়ার সাধারণ মানুষ আবার সমস্যার মুখোমুখি৷ এমন অবস্থায়, একটাই উপায়৷ অকারণ কথা না বলে সকলকে আলোচনার টেবিলে নিয়ে আসা৷ পশ্চিম বিশ্ব এখনই সে কাজ করতে না পারলে ভবিষ্যৎ আরো ভয়ংকর হবে৷

কার্স্টেন নিপ/এসজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন