সিরিয়ায় সাহায্য দিতে প্রস্তুত জার্মানি, তবে সামরিকভাবে নয় | বিশ্ব | DW | 13.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সিরিয়া-জার্মানি

সিরিয়ায় সাহায্য দিতে প্রস্তুত জার্মানি, তবে সামরিকভাবে নয়

সিরিয়াকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা যখন চরমে, তখন আঙ্গেলা ম্যার্কেল সিরিয়ার ব্যাপারে জার্মানির অবস্থান পরিষ্কার করলেন৷ জার্মান চ্যান্সেলর জানিয়েছেন, জার্মানি তার মিত্রদের সাহায্য করবে, তবে সামরিকভাবে নয়৷

বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলনে ম্যার্কেল দু'দুবার বলেন যে, জার্মান সামরিক বাহিনী সিরিয়ায় ‘‘সম্ভাব্য সামরিক পদক্ষেপে অংশগ্রহণ করবে না৷’’ পাশাপাশি তিনি বিশেষভাবে উল্লেখ করেন যে, রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার যে গ্রহণযোগ্য নয়, বার্লিন এ বিষয়ে ‘‘একটি স্পষ্ট বার্তা’’ প্রেরণের উদ্যোগকে সমর্থন করে৷

তবে ম্যার্কেল স্বীকার করেন যে, জার্মানির পক্ষে ‘‘একেবারে কিছু না করাও খুব কঠিন৷’’ সে কারণে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন ও ফ্রান্স যদি সামরিক পদক্ষেপ নেয়, তাহলে জার্মানি অ-সামরিক সহায়তা করার পন্থা খুঁজবে বলে জানিয়েছেন তিনি৷

ম্যার্কেল রাশিয়ার সংযত সমালোচনা করে বলেন যে, মস্কো যে সিরিয়ায় সম্ভাব্য রাসায়নিক সমরাস্ত্র আক্রমণ সম্পর্কে ওপিসিডাব্লিউ-এর অনুসন্ধান আটকে দিচ্ছে, তা ‘‘রাশিয়ার ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করে না৷’’

সংবাদ সম্মেলনের আগে ম্যার্কেল ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রী লার্স লকে রাসমুসেনের সঙ্গে একটি দ্বিপাক্ষিক আলাপ-আলোচনায় মিলিত হন৷ রাসমুসেন বলেন যে, সিরিয়া প্রসঙ্গে ডেনমার্কের অবস্থান জার্মানির অনুরূপ৷

ম্যার্কেলের মন্তব্যের আগে ঐ বৃহস্পতিবারেই জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস জানিয়েছিলেন যে, ফ্রান্স অথবা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জার্মানির কাছ থেকে সিরিয়ায় কোনো রকম সাহায্যের অনুরোধ জানায়নি৷ ‘‘কিন্তু আমরা যদি রাশিয়ার উপর চাপ বজায় রাখতে চাই, তবে পশ্চিমি সহযোগীরা তাদের ভিন্ন ভিন্ন পন্থা অবলম্বন করতে পারে না,’’ বলে মাস মন্তব্য করেন৷

আন্তঃ-অতলান্তিক সংলাপ ‘আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ’

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের টুইটের ভাষা সম্পর্কে দু'বার ম্যার্কেলকে প্রশ্ন করা হয় – বিশেষ করে ট্রাম্পের টুইটের ফলে কূটনীতি আরো দুরূহ হয়ে উঠেছে কিনা৷ দু'বারই ম্যার্কেল প্রশ্নটি এড়িয়ে যান৷

আন্তঃ-অতলান্তিক সম্পর্কের জন্য নতুন জার্মান সরকারের নিয়োজিত সমন্বয়কর্তা পেটার বায়ার ডয়চে ভেলেকে বলেন যে, প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্পের নিজস্ব মনোভাব জ্ঞাপনের অভিনব পন্থা জার্মানির পক্ষে নতুন চ্যালেঞ্জের সৃষ্টি করেছে৷

‘‘প্রথমত, বৈশ্বিক পর্যায়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পূর্বাপর জার্মানি ও ইউরোপের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ সহযোগী থাকছে,’’ বায়ার বলেন৷ অপরদিকে আন্তঃ-অতলান্তিক সংলাপের ধারা বদলে গেছে, যার ফলে নতুন চ্যালেঞ্জের সৃষ্টি হয়েছে বলে বায়ার মনে করেন৷

তাঁর মতে, সিরিয়ায় সামরিক হস্তক্ষেপ শেষ পন্থা, অপরদিকে দুমায় ‘বর্বর, অমানবিক’ গ্যাস হামলারও জবাব দেওয়া প্রয়োজন৷

হোয়াইট হাউসের আগুপিছু

দৃশ্যত হোয়াইট হাউস শেষ মুহূর্তে সামরিক পদক্ষেপের পরিকল্পনা থেকে কিছুটা দূরে সরে এসেছে: যাবতীয় পন্থা আবার বিবেচনার উপযোগী হয়ে পড়েছে৷ বুধবার একটি বিস্ফোরক টুইটে রাশিয়াকে ‘সুন্দর, হালফ্যাশানের, স্মার্ট’ ক্ষেপণাস্ত্রের জন্য তৈরি থাকতে বলার পর, ট্রাম্প বৃহস্পতিবার টুইট করেন, ‘‘কখনো বলিনি সিরিয়ার উপর আক্রমণ কবে ঘটবে; খুব তাড়াতাড়ি ঘটতে পারে, আবার হয়তো অতটা তাড়াতাড়ি নয়৷’’ 

জার্মানিতে রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়া

জার্মানির অধিকাংশ রাজনীতিক ও রাজনৈতিক দল সিরিয়ায় বড় আকারের সামরিক হস্তক্ষেপের বিরোধী৷ সামাজিক গণতন্ত্রী রাজনীতিক ও পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক বিশেষজ্ঞ রাল্ফ স্টেগনার রবিবার যুক্তরাষ্ট্রের পরাজিত ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী বার্নি স্যান্ডার্সের একটি ভিডিও রি-টুইট করেছেন, যে ভিডিওতে স্যান্ডার্স বলেছেন যে, যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধে যাবে কিনা, সে বিষয়ে প্রেসিডেন্টের নয়, বরং মার্কিন কংগ্রেসেরই সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত৷

অবসরপ্রাপ্ত জার্মান জেনারেল হ্যারাল্ড কুইয়াট বৃহস্পতিবার বলেছেন যে, বিশ্বের দুই পারমাণবিক পরাশক্তির মধ্যে ‘হট ওয়ার’ একটি সম্ভাবনা হয়ে উঠছে এবং জার্মানির উচিত যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন ও ফ্রান্সকে সংযত করা – বিশেষ করে ঐ তিনটি দেশের বর্তমান নেতৃত্বের পরিপ্রেক্ষিতে৷

এক ‘অনভিজ্ঞ’ ফরাসি প্রেসিডেন্ট, কোণঠাসা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এবং অসাবধানী মার্কিন প্রেসিডেন্ট অজ্ঞাতেই বিশ্বকে আরেকটি বিশ্বযুদ্ধের দিকে ঠেলে দিতে পারেন বলে কুইয়াটের আশঙ্কা – যিনি আবার একটু ক্রেমলিন-ঘেঁষা বলে তাঁর সমালোচকদের ধারণা৷

মার্ক হ্যালাম/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়