সিরিয়ায় রাসায়নিক হামলা: তদন্তের প্রশ্নে মতান্তর | বিশ্ব | DW | 11.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সিরিয়া

সিরিয়ায় রাসায়নিক হামলা: তদন্তের প্রশ্নে মতান্তর

সিরিয়ায় রাসায়নিক হামলা চালানো হয়েছে কিনা এ প্রসঙ্গে তদন্ত চালানোর ব্যাপারে একমত হতে পারেনি জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা৷ দুমায় চালানো হামলার বিষয়ে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে যুক্তরাষ্ট্র৷

এদিকে, সিরিয়ার দুমায় শনিবার রাসায়নিক হামলার প্রতিক্রিয়ায় দেশটির বিরুদ্ধে সামরিক পদক্ষেপ নেওয়া থেকে বিরত থাকতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে রাশিয়া৷ মঙ্গলবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে  রাসায়নিক হামলা নিয়ে এক বৈঠকে রাশিয়ার পক্ষ থেকে ওই সতর্কবার্তাটি আসে৷ সিরিয়ায় সামরিক হামলা হলে সবাইকে ‘খুব দুঃখজনক ও গুরুতর ঘটনার' মুখোমুখি হতে হবে বলেও সতর্ক করে দিয়েছে দেশটি৷ পরে বৈঠকে হামলা নিয়ে নতুন তদন্ত শুরু করার যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রস্তাব রাশিয়ার ভেটোর মুখে বাতিল হয়ে যায়৷

অন্যদিকে, লেবাননে নিযুক্ত রাশিয়ার দূত আলেকজান্ডার সাসিপকিন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ায় কোনো ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করলে রাশিয়া তা ভূপাতিত করবে৷ সব ধরনের মার্কিন হামলাকে প্রতিহত করার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি৷

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্র যে প্রস্তাব দিয়েছিল, তাতে বলা হয়, পূর্ব গুটায় বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত শহর দুমায় রাসায়নিক হামলাটি সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের সরকার চালিয়েছে বলে যে অভিযোগ উঠেছে, সেই ঘটনার স্বাধীন তদন্ত করতে হবে৷ প্রস্তাবে এই হামলা চালানোর তীব্র নিন্দা জানানো হয়েছে৷  যুক্তরাষ্ট্রের উত্থাপন করা প্রস্তাবটিতে নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য রাশিয়া ভেটো দেয় ও অপর স্থায়ী সদস্য চীন ভোটদানে বিরত থাকে৷  যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবের বিপরীতে বৈঠকেরাশিয়ার তোলা একটি প্রস্তাবও প্রয়োজনীয় সমর্থন না পাওয়ায় বাতিল হয়৷

ভিডিও দেখুন 02:02
এখন লাইভ
02:02 মিনিট

Deadlock in Security Council over Syria chemical attack

রাসায়নিক অস্ত্র হামলাকে কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে বিরোধ চরমে উঠেছে৷ দুমায় রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহৃত হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করতে অর্গানাইজেশন ফর দ্য প্রোহিবিশন অফ কেমিক্যাল উইপন (ওপিসিডব্লিউ)-এর একটি টিম দুমায় মোতায়েন করা হচ্ছে৷ সিরিয়া সরকারের অনুরোধে তারা এই কাজটি করবে৷

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ ওপিসিডব্লিউ-এর তদন্তকারীদের স্বচ্ছ্ব তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন৷ এছাড়া দ্বিতীয় খসড়া প্রস্তাবে মস্কো নিরাপত্তা পরিষদকে এ ব্যাপারে তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে৷ জানুয়ারিতে রাশিয়ার এ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিল যুক্তরাষ্ট্র এবং তার সহযোগী দেশগুলো৷

এদিকে, জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল বলেছেন, ‘‘সিরিয়ায় যে রাসায়নিক অস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে, তার প্রচুর প্রমাণ রয়েছে৷ তাই এটা তদন্ত করা খুব কঠিন হবে না৷ কিন্তু আমরা যদি কেবল নিন্দা জানিয়ে বসে থাকি, সেক্ষেত্রে এই হামলা রোধ করা যাবে না৷''

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফপি, রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন