সিরিয়ায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা, দায় অস্বীকার অ্যামেরিকার | বিশ্ব | DW | 09.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সিরিয়া

সিরিয়ায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা, দায় অস্বীকার অ্যামেরিকার

সিরিয়ার কেন্দ্রস্থলে এক সামরিক ঘাঁটির উপর ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় বেশ কিছু মানুষ হতাহত হয়েছে বলে জানিয়েছে সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন৷ ওয়াশিংটন অবশ্য এমন হামলার কথা অস্বীকার করেছে৷

গত শনিবার সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কের কাছে বিদ্রোহী-নিয়ন্ত্রিত দুমা শহরে নিরীহ মানুষের উপর আবার হামলার ঘটনায় গোটা বিশ্বে চরম প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে৷ সেখানে প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের বাহিনী রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে৷ সিরিয়ার সরকার ও তাদের সমর্থক দেশ রাশিয়া রাসায়নিক হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছে৷

রবিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কড়া ভাষায় পালটা পদক্ষেপের হুমকি দিয়েছেন৷ তিনি বলেন, নারী ও শিশুসহ সাধারণ মানুষের উপর এমন জঘন্য হামলার জন্য বড় মূল্য চোকাতে হবে৷

উল্লেখ্য, প্রায় এক বছর আগে সিরিয়ায় বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকায় সাধারণ মানুষের উপর সারিন গ্যাস হামলার পর মার্কিন প্রশাসন একটি সরকারি ঘাঁটির উপর ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছিল৷ট্রাম্প অবিলম্বে সিরিয়া থেকে মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণা করে সম্প্রতি সমালোচনার মুখে পড়েছেন৷

এমনই প্রেক্ষাপটে হোমস শহরের কাছে টি-৪ বা টিয়াস বিমান ঘাঁটিতে বিস্ফোরণ ঘটায় মার্কিন হামলার আশঙ্কা জোরালো হয়ে উঠেছে৷ সিরিয়ার সামরিক বাহিনীর এক সূত্রের তথ্য অনুযায়ী, হামলা রুখতে ৮টি ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংস করা হয়েছে৷ তবে তা সত্ত্বেও হতাহতের ঘটনা ঘটেছে৷ সেখানে রাশিয়ার অনেক সৈন্য মোতায়েন রয়েছে বলে ধারণা করা হয়৷ সেখান থেকেই বিদ্রোহীদের এলাকার উপর বিমান হামলা চালানো হয়৷ কাছাকাছি প্রধান গ্যাসক্ষেত্রগুলিও অবস্থিত৷

মার্কিন প্রশাসন জানিয়েছে, সে সময়ে সিরিয়ার উপর কোনো বিমান হামলা চালানো হয়নি৷ সে ক্ষেত্রে এই হামলার জন্য ইসরায়েল দায়ী, এমন সন্দেহ জোরদার হচ্ছে৷ ইসরায়েলের এক সরকারি মুখপাত্র বিষয়টি নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি৷ উল্লেখ্য, এর আগেও ইসরায়েল সিরিয়ার উপর বেশ কয়েকবার ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে৷ মূলত হেজবোল্লাহসহ ইরান সমর্থিত মিলিশিয়া বাহিনীর ঘাঁটিগুলি ছিল সেই সব হামলার লক্ষ্যবস্তু৷ গত ১০ই ফেব্রুয়ারি টি-৪ ঘাঁটির বিস্ফোরক বোঝাই গুদামের উপর সিরিয়া বিমান হামলা চালিয়েছিল৷ ইরানের রেভোলিউশানারি গার্ড বাহিনী সেই ঘাঁটি ব্যবহার করছে বলে ইসরায়েল অভিযোগ করেছিল৷

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগ করা হলে সামরিক হামলার হুমকি দিয়েছিলেন৷ ট্রাম্পের সঙ্গে এক টেলিফোন সংলাপে তিনি বলেন, বিদ্রোহী এলাকায় সাম্প্রতিক হামলায় রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগ করা হয়েছিল৷ দুই নেতাই জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে বিষয়টি নিয়ে দ্রুত আলোচনার অঙ্গীকার করেছেন৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন