সিডনির আতসবাজি উৎসব ঘিরে বিতর্ক | বিশ্ব | DW | 01.01.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অস্ট্রেলিয়া

সিডনির আতসবাজি উৎসব ঘিরে বিতর্ক

দাবানলে দাউ দাউ করে জ্বলছে গোটা অস্ট্রেলিয়া৷ তার মধ্যে নতুন বছরে সিডনির আতশবাজি উৎসব নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে৷ পরিবেশবিদ থেকে সাধারণ মানুষ, অনেকেই এর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন৷

শেষ পর্যন্ত উৎসব হল৷ কিন্তু আনন্দ হল না প্রতি বছরের মতো৷ নতুন বছরে সিডনির হারবারে আতশবাজি ফুটল৷ কিন্তু তা ছাপিয়ে গেল বিতর্ক৷ প্রশ্ন উঠল, গোটা দেশ যখন দাবানলে দগ্ধ, তখন এই উৎসবের কি কোনও প্রয়োজন ছিল?

গত বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে দাবানলের আগুনে জ্বলছে অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন প্রান্ত৷ সিডনি থেকে শুরু করে মেলবোর্ন-- আগুন ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র৷ এখনও পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা নয়৷ ঘর পুড়ে গিয়েছে এক হাজার পরিবারের৷ নিখোঁজ বহু৷ বাড়ি ছেড়ে সমুদ্রের ধারে আশ্রয় নিয়েছেন অসংখ্য মানুষ৷ এই পরিস্থিতিতে নতুন বছরের উৎসব আদৌ যুক্তিযুক্তি কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন অস্ট্রেলিয়ার মানুষ৷ বিশেষত এত আগুনের মধ্যে আতসবাজির উৎসব ঠিক নয় বলেই মনে করেছিলেন অনেকে৷ পরিবেশবিদেরাও এর বিরুদ্ধে ছিলেন৷

এমন পরিস্থিতিতে মেলবোর্ন এবং ক্যানবেরার আতশবাজি উৎসব বন্ধ করে দেওয়া হয়৷ কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী বলেন, ''বহু সমস্যা থাকলেও আতশবাজির উৎসব বন্ধ হবে না৷ কারণ এই উৎসব অস্ট্রেলিয়ার গর্ব৷ আমরা গোটা পৃথিবীকে দেখাতে চাই, অস্ট্রেলিয়া উদ্যম হারিয়ে ফেলেনি৷''

প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণার পরেই সিডনির হারবারে আতশবাজি উৎসবের প্রস্তুতি শুরু হয়৷ কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় এর প্রতিবাদ করেন অনেকেই৷ দাবানলে এখনও পর্যন্ত সব চেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে নিউ সাউথ ওয়েলস৷ সেখানকার নেতা জন ব্যারিলারো সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখেন, 'অত্যন্ত বিপজ্জনক পদক্ষেপ৷ দমকলকর্মীরা দিন রাত এক করে কাজ করছেন৷ তাঁদেরকেও একটু বিশ্রামের সুযোগ দেওয়া উচিত৷'

পরিবেশবিদদের একটা বড় অংশ মনে করছে, এই পরিস্থিতিতে আতশবাজির প্রদর্শন থেকে দূরে থাকা উচিত ছিল সিডনির৷ কারণ দাবানলে দূষণের মাত্রা ভয়াবহ জায়গায় পৌঁছেছে৷ তার উপর আতশবাজি দূষণ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে৷

ভিডিও দেখুন 01:45

অস্ট্রেলিয়া: এ আগুনের শেষ কবে?

 

এসজি/কেএম (দ্য টেলিগ্রাফ, মেট্রো নিউজ, রয়টার্স)

 

বিজ্ঞাপন