‌সাড়া ফেলেছে ‘শ্রমিক মা দুর্গা’ | বিশ্ব | DW | 23.10.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

‌সাড়া ফেলেছে ‘শ্রমিক মা দুর্গা’

ভারতে আচমকা কোভিড লক ডাউন ঘোষিত হওয়ার পর লাখো শ্রমিক পরিবার ঘরে ফিরবে বলে পথে নেমেছিল৷ সেই দুর্দশার চালচিত্রে এবার মা দুর্গার আবাহন কলকাতার এক মণ্ডপে৷

কপালের তৃতীয় নয়ন বুঝিয়ে দিচ্ছে এই নারী সাধারণ মানুষ নয়, দেবী৷ কিন্তু তাঁর বেশভূষা নিম্নবিত্ত শ্রমিক পরিবারের কোনো মায়ের মতো৷ তাঁর কোলে একটি শিশু৷ মায়ের সঙ্গে সেই শিশুও ঝুঁকে পড়ে দেখছে পিছন দিকে৷ সঙ্গে মহিলার দুই বালিকা কন্যা৷ তারাও দেখছে পিছন ঘুরে৷ এর পরেও যেটুকু বোঝার বাকি থাকে, তা সম্পূর্ণ করে দিচ্ছে এই পরিবারের চারপাশে ছড়িয়ে থাকা অগণিত চালের বস্তা, যার গায়ে লেখা ‘‌ত্রাণ’৷ এবার পুজো শুরু হওয়ার অনেক আগে থেকেই এই অভিনব দুর্গা মুর্তি নিয়ে আলোড়ন পড়ে গেছে সারা দেশে, যেখানে মা দুর্গা এক স–সন্তান শ্রমিকমাতার চেহারায়৷

দু'‌ধরনের প্রতিক্রিয়া হচ্ছে এই দেবীমূর্তি দেখে৷ দুই বিপরীত মেরুর প্রতিক্রিয়া৷ ব্যাপক প্রশংসা এবং প্রবল নিন্দা৷ সাধারণ মানুষ, যাঁরা লক ডাউনের সময় অভিবাসী শ্রমিক পরিবারগুলির দুর্দশায় সমব্যথী হয়েছিলেন, তাঁরা সবাই একাত্মবোধ করছেন শিল্পীর ভাবনার সঙ্গে৷ এমনকি মুম্বইয়ের হিন্দি ছবির একাধিক নায়িকা এই মূর্তির ছবি দিয়ে টুইট করেছেন, যে এই কারণেই বাংলা এবং বাঙালি অন্যরকম৷ তাদের ধর্মীয় উৎসবেও সমাজচেতনার প্রতিফলন ঘটে৷ আর অন্য দিকে এক দল মনে করছে, অ-বিজেপি শাসিত পশ্চিমবঙ্গে এমন দুর্গা প্রতিমা গড়ার পিছনে নিশ্চিত রাজনীতি আছে৷

অডিও শুনুন 00:49

প্রথমে অন্য ভাবনা ছিল: পল্লব ভৌমিক, মৃৎশিল্পী

পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার কৃষ্ণনগরের ঘূর্নি অঞ্চলের শিল্পীদের তৈরি মাটির মূর্তি বিশ্ববিখ্যাত৷ সেই ঘূর্নিরই মানুষ এই প্রতিমা যিনি তৈরি করেছেন, সেই পল্লব ভৌমিক৷ তিনি জানালেন, পরিযায়ী শ্রমিক পরিবারগুলির দুর্দশার কথা তো ছিলই তাঁর সিনিয়র শিল্পী রিন্টু দাশের মাথায়, যাঁর ভাবনা থেকে এই প্রতিমার নির্মাণ৷ কিন্তু করোনার আবহে পুজো নিয়ে অনিশ্চয়তা এবং বাজেট হঠাৎই কমে যাওয়াও আরেক কারণ৷ পল্লবের কথায়, ‘‌‘‌প্রথমে অন্য ভাবনা ছিল৷ তার পরে এই লক ডাউন, আদৌ পুজোর কাজ হবে কি হবে না— তার পরে ক্লাব কমিটির কাছে যাই৷ ক্লাব কমিটিও পুজো হবে কি না, সেই নিয়ে অনিশ্চিত ছিল৷ (‌তার আগে)‌ তারা কিছু চাল বিতরণ করেছিল৷ সেই চালের কিছু খালি বস্তা ছিল৷ ওরা আমাদের বলল, এবার পয়সাকড়ি বেশি নেই৷ এই খালি চালের বস্তা আছে, এগুলো দিয়ে যদি কিছু ভাবতে পারো৷’’

অডিও শুনুন 01:34

সমাজের প্রতি আমার দায়িত্ব আছে: রিন্টু দাশ, শিল্প নির্দেশক

অভিনব এই দুর্গামূর্তির কথা যিনি প্রথম ভেবেছেন, সেই রিন্টু দাশ যদিও সরাসরি বললেন যে, এবার তাঁরা ভেবেছিলেন, যদি পুজো করতেই হয়, তা হলে মানুষের পুজো করবেন৷ তাঁর নিজের কথায়, ‘‌‘‌যেই দুর্গা হেঁটে চলেছে রাতের পর রাত, একটু খাবার পায়নি, জল পায়নি, তার পুজো আমি করব!‌’’ আর যারা এই মানবী-দুর্গার সমালোচনা করছে, তাদের কিনি কী বলতে চান?‌রিন্টু দাশের সোজা কথা, ‘‌‘‌আমি একজন শিল্পী, সমাজের প্রতি আমার দায়িত্ব আছে৷ কোনটা ভালো দিক, কোনটা খারাপ দিক, সেটা তুলে ধরার অধিকার আমার আছে৷ আমি সেটাই করেছি৷ এটা আমার মনে ব্যথা দিয়েছে, কষ্ট দিয়েছে, আমার মনে হয়েছে এটা নিয়ে কাজ করা দরকার, তাই করেছি৷ এখন সেটা কারো খারাপ লাগতেই পারে৷ তাতে আমার কিছু আসে যায় না৷ কিন্তু আমার ভাবনাটা তুলে ধরবো আমি৷’’

১৬ অক্টোবরের ছবিঘরটি দেখুন...

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন