সালেম খানের হুঁশিয়ারি, ‘প্রয়োজনে নবান্ন অভিযানে যাবো′ | বিষয় | DW | 24.02.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

সালেম খানের হুঁশিয়ারি, ‘প্রয়োজনে নবান্ন অভিযানে যাবো'

ছাত্রনেতা আনিস হত্যার ছয় দিন পূর্ণ হলো৷ বৃহস্পতিবার আমতা থানা ঘেরাও করে আনিসের পরিবার ও তার প্রতিবেশীরা৷ আনিসের বাবা সালেম খান বলেন, দাবি আদায়ে প্রয়োজনে নবান্ন অভিযান করবেন৷

আনিস খানের বাবা নবান্ন অভিযানের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন প্রতিবাদ মিছিলে

আনিস খানের বাবা নবান্ন অভিযানের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন প্রতিবাদ মিছিলে

চলছে প্রতিবাদ

আনিসের বাবা সালেম খান, বড় ভাই সাবির খান এবং আনিসের প্রতিবেশীদের মিছিল বৃহস্পতিবার দুপুরে আমতা থানায় পৌঁছায়৷ আমতা থানা থেকে আনিসের বাড়ি প্রায় সাড়ে ছয় কিলোমিটারের পথ৷ অসুস্থ শরীরে আনিসের বাবা গিয়েছিলেন সেই রাস্তা ধরেই৷ সন্তানহারা বাবার একটাই দাবি, হত্যাকারীর শাস্তি, সুবিচার চান তিনি৷ এরপর তারা থানা ঘেরাও করেন৷ পরিস্থিতি হয়ে ওঠে অগ্নিগর্ভ৷ গ্রামবাসীদের মিছিল থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট ছোঁড়ার অভিযোগ ওঠে৷ বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে ব্যারিকেড ভেঙে ফেলার অভিযোগও করেছে পুলিশ৷

আমতা থানা ঘেরাও কর্মসূচির মিছিলে বারবার একটা স্লোগানই উঠেছে বারবার, ‘আনিস হত্যার বিচার চাই৷'

থানা চত্বরে বিশাল পুলিশবাহিনী মোতায়েন করা হয়৷ ২০২১ সালের মে মাস থেকে বারবার নিরাপত্তা চেয়েও এই থানার পুলিশের কোনো সাড়া পায়নি বলে মৃত্যুর কয়েকদিন আগেও বলেছেন আনিস৷ 

আনিসের বাবা, তার দাদা-সহ ছয় জন আমতা থানায় প্রবেশ করে অতিরিক্ত পুলিস সুপারের সঙ্গে কথা বলেন৷ আনিসের পরিবার এবং প্রতিবেশীরা মিছিল নিয়ে থানায় এলেও পরবর্তীতে আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়-সহ একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পড়ুয়ারা তাতে যোগ দেন৷ যোগ দেন বিরোধী দলের স্থানীয় নেতারাও৷ মিছিল থেকে ওসি এবং এসপি. অতিরিক্ত সুপার, এলাকার পঞ্চায়েত প্রধান এবং উপপ্রধানকে গ্রেপ্তারের দাবিও ওঠে৷ আনিস হত্যার বিষয়ে এসডিও-কে চিঠি দেয়া হয়েছে বলেও জানান আনিসের প্রতিবেশীরা৷ সেখানে রবিবারের মধ্যে দোষীদের গ্রেপ্তার করা না হলে ওইদিন এসপি অফিস ঘেরাও করার হুঁশিয়ারি দিয়েছে আনিসের পরিবার৷

সিবিআই তদন্তের দাবিতে অনড় তিনি, মিছিল থেকে স্পষ্ট জানিয়ে দেন আনিসের বাবা সালেম খান৷ প্রয়োজনে নবান্ন অভিযানের কথাও জানান তিনি৷ তবে জনতাকে শান্ত থাকতে বলেছেন বারবার৷

ফুরফুরা শরিফের কাশেম সিদ্দিকিও ছিলেন এই মিছিলে৷ তিনি বলেন, ‘‘যারা ইট ছুঁড়ছে তারা সব দালাল৷ এটা এখানকার পঞ্চায়েত প্রধান করছে৷ সিবিআই তদন্তের দাবি করলে মেরে ফেলার হুমকিও দেয়া হচ্ছে৷''

পরিবার ও প্রতিবেশীর বর্ণনায় আনিস হত্যাকাণ্ড

হাইকোর্টে  শুনানি

বৃহস্পতিবার আদালতে উঠেছিল আনিস হত্যা মামলা৷ সেখানে অ্যাডভোকেট জেনারেল জানান, ধৃতরা বলেছেন, ওসির নির্দেশে কাজ হয়েছে৷ ঘটনাটিকে ‘অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক' বলেও উল্লেখ করেন অ্যাডভোকেট জেনারেল৷ অন্যদিকে, সিটে বিন্দুমাত্র ভরসা নেই আনিসের পরিবারের, আদালতের সওয়ালে স্পষ্ট জানান আইনজীবী ও রাজনীতিবিদ বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য৷ যদিও দিনশেষে আপাতত রাজ্য সরকারের গঠন করা সিটের উপরেই আস্থা রেখেছে কলকাতা হাইকোর্ট৷

হাইকোর্টের বিচারপতি দুই সপ্তাহের সময়সীমা বেঁধে দিয়েছেন৷ দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের নির্দেশও দিয়েছে হাইকোর্ট৷ আনিসের ফোন হাতে পেলে তথ্যপ্রমাণ নষ্টের আশঙ্কার কথাও আদালতকে জানান বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য৷ হাইকোর্ট স্পষ্ট জানায়, দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্ত হলে জেলা বিচারক নিজে বা তার প্রতিনিধি সেখানে উপস্থিত থাকবেন৷ মোবাইল ফোন জেলা বিচারকের উপস্থিতিতে জব্দ করা হবে৷ এরপর হায়দরাবাদে কেন্দ্রীয় ফরেনসিক ল্যাবকে দিয়ে তদন্ত করা হবে বলে জানিয়েছে আদালত৷ সেখানকার অধিকর্তাকেও এ বিষয়ে নির্দেশ দেয়া হয়েছে৷

বিকাশরঞ্জন বাবু বলেন, সেন্ট্রাল ফরেনসিক ল্যাবরেটরির রিপোর্ট, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট রাজ্য সরকার-সহ সব পক্ষকে দিতে হবে৷

১৫ দিন পর সিট রিপোর্ট দেবে৷ এরপর আদালত খতিয়ে দেখবে আদৌ ঠিকভাবে তদন্ত হচ্ছে, নাকি কারচুপি হচ্ছে৷

হাইকোর্টের নির্দেশের পর আনিসের বাবা সালেম খান স্পষ্ট জানিয়ে দেন,‘‘প্রয়োজনে আবার আদালতে যাবো৷ সিবিআই তদন্তের আবেদন জানাবো৷''

এদিকে দুই পুলিশ কর্মীর গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে আনিসের পরিবারের বক্তব্য, থানার ওসি কিছু জানতেন না- এ কথা বিশ্বাসযোগ্য নয়৷ ক্ষমতাশালী কাউকে আড়াল করতেই কি দুই পুলিশ কর্মীকে গ্রেপ্তার- এমন প্রশ্নও তুলেছে আনিসের পরিবার এবং প্রতিবেশীরা৷

কলকাতার প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে আনিস খান হত্যার প্রতিবাদে পোস্টার

কলকাতার প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে আনিস খান হত্যার প্রতিবাদে পোস্টার

প্রশাসনিক তৎপরতা

একাধিক জনকল্যাণমূলক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত আনিস আন্দোলনে সরব ছিলেন বরাবর৷ তাকে খুন করার হুমকি দিয়েছিল তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা, এমনটাও অভিযোগ ছিল তার৷ পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের তরফে আনিস হত্যার তদন্ত নিয়ে পরপর টুইট করা হয়৷

পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের তরফে সেই টুইটে স্পষ্ট করে দেয়া হয়েছে আনিসের পরিবার যেন রাজ্যের বিশেষ তদন্তকারী দল এসআইটি-র তদন্তের উপরেই ভরসা রাখেন৷ অর্থাৎ আবারও পরোক্ষভাবে সিবিআই তদন্ত থেকে আনিসের পরিবারকে সরে আসতেই বলা হয়েছে পুলিশের তরফে৷

রাজপথে বিক্ষোভ  অব্যাহত

বৃহস্পতিবার পার্ক সার্কাস ক্যাম্পাস থেকে আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা মিছিলের ডাক দেন কলকাতায়৷ সেখানে যোগ দেন অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারাও৷ আনিস খানের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তারা৷

আরকেসি/এসিবি (আনন্দবাজার, এবিপি আনন্দ, নিউজ ১৮ বাংলা)

নির্বাচিত প্রতিবেদন