সাগরের গভীরে ভূমিকম্পের পদধ্বনি | অন্বেষণ | DW | 15.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

সাগরের গভীরে ভূমিকম্পের পদধ্বনি

সাগরের তলায় মাইক বসিয়ে কি ভূমিকম্পের আওয়াজ শোনা যেতে পারে? এ কাজের জন্য ফরাসি বিজ্ঞানীরা যে হাইড্রোফোনটি আবিষ্কার করেছেন, আপাতত তা সাগরের পানিতে ছেড়ে বেতার সংকেত দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব৷

সাগরবক্ষের নীচে ভূমিকম্প হওয়ার সময় যে শব্দ হয়, তা ছেঁকে বার করার চেষ্টায় রয়েছেন দক্ষিণ ফ্রান্সের এক গবেষক দল৷ দলের প্রযুক্তবিদরা এ কাজের জন্য এক ধরনের বিশেষ ‘প্রোব' সৃষ্টি করেছেন৷

ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ার ইয়ান এলো জানালেন, ‘‘এই হাইড্রোফোন দিয়ে আমরা ভূমিকম্পের শব্দ শুনতে পাই৷ হাইড্রোফোন সাগরের পানির তলায় নানা ধরনের আওয়াজ রেকর্ড করতে পারে: ঢেউয়ের ওপর বাতাসের শব্দ, সাগরের প্রাণীদের ডাক, হিমশৈল ভেঙে যাওয়ার শব্দ৷ আমরা কিন্তু ভূমিকম্পের আওয়াজ শুনতেই বেশি আগ্রহী৷''

‘প্রোব' ও তার পরিচালনা

পানির মধ্যে প্রোবগুলো ঝোলানো থাকে, স্রোতের টানে নড়াচড়া করে৷ পানির ভিতর দিয়ে বেতার সংকেত পাঠিয়ে প্রোবগুলোকে চালানো সম্ভব, কিন্তু খুব বেশিদূর পর্যন্ত নয়৷

কম্পিউটার বিজ্ঞানী রোম্যাঁ ভেরফাইয়ি বললেন, ‘‘আমরা বেতার সংকেতের মাধ্যমে প্রোবটিকে তার প্রোগ্রাম অনুযায়ী নানা ধরনের প্যারামিটার পাঠাতে পারি৷ প্রোবের ভিতরে একটি অভ্যন্তরীণ ঘড়ি ও একটি প্রেসার ট্রান্সডিউসার থাকায় আমরা প্রোবটিকে একটি বিশেষ গভীরতায় যেতে বলতে পারি, কতোক্ষণ ধরে প্রোবটি চলবে, তা নির্ধারণ করতে পারি, অথবা কতোক্ষণ ধরে রেকর্ডিং চলবে, তাও নির্দিষ্ট করে দিতে পারি৷''

কোনো লক্ষণীয় ভূকম্পন ধরা পড়লেই হাইড্রোফোনগুলি নিজে থেকে পানির উপর উঠে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সেই ডাটা যথাস্থানে প্রেরণ করে৷ একটি অভিযান শেষ হবার পর হাইড্রোফোনগুলোকে সংগ্রহ করে নতুন করে প্রোগ্রাম করা যায়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

শব্দময় পরিবেশ

এই যন্ত্রগুলিতে ইলেকট্রনিক আর হাইড্রলিক প্রণালীর এক আশ্চর্য সংমিশ্রণ ঘটেছে৷ গবেষকদের কাছে মূল চ্যালেঞ্জ ছিল, পানির নীচে অত্যন্ত শব্দময় পরিবেশে ভূমিকম্পের শব্দটিকে আলাদা করে চিনতে পারা ও রেকর্ড করা৷

সিসমিক টোমোগ্রাফার খুস্ট নোলেট বললেন, ‘‘সাগরে এতো ধরনের শব্দ থাকে৷ জাহাজের শব্দ, তেল কোম্পানিগুলির অয়েল রিগের শব্দ; বড় বড় তিমি মাছ তাদের গান গায়; এছাড়া ঝড়জলেও বিপুল আওয়াজ করে৷ আমরা এই কোলাহলের মধ্যে ভূমিকম্পের আওয়াজ খুঁজছি৷ কাজেই আমাদের কাজের একটা গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হল, কম্পিউটার যাতে আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্সের মাধ্যমে জলের নীচে ভূমিকম্পের আওয়াজ আর তিমি মাছের ডাক তফাৎ করতে পারে৷''

প্রযুক্তি ও তার প্রয়োগ

অন্যান্য নানা ক্ষেত্রে এই প্রযুক্তি প্রয়োগ করা যেতে পারে: যেমন সাগরে যে সব স্তন্যপায়ী জীব বাস করে, তাদের নিয়ে গবেষণার ক্ষেত্রে, এমনকি বিমান দুর্ঘটনার পর সাগরের পানির তলায় ফ্লাইট রেকর্ডারটি খুঁজে বার করার কাজে৷ তবে ফরাসি বিজ্ঞানীরা সর্বাগ্রে ভূমিকম্প সংক্রান্ত গবেষণায় এই প্রযুক্তি পরখ করে দেখছেন৷

ইয়ান এলোর মতে, ‘‘আন্তর্জাতিক সহযোগিতার ভিত্তিতে যদি ছ'শ এ ধরনের যন্ত্র পৃথিবীর বিভিন্ন সাগরে স্থাপন করা যায়, তাহলে আমরা ভূগোলকের অভ্যন্তরে কী ঘটছে, তার একটা অনেক স্পষ্ট ছবি পাব – বিশেষ করে দক্ষিণ গোলার্ধে, যেখানে সাগরের অনুপাত বেশি এবং আমাদের পর্যাপ্ত পরিমাণ তথ্য নেই৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন