সাখারভ পুরস্কার পেলেন ইউক্রেনের চলচ্চিত্র নির্মাতা | বিশ্ব | DW | 25.10.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সম্মাননা

সাখারভ পুরস্কার পেলেন ইউক্রেনের চলচ্চিত্র নির্মাতা

মুক্তচিন্তার বিকাশে ভূমিকা রাখায় ইউরোপীয় ইউনিয়নের সর্বোচ্চ মানবাধিকার বিষয়ক পুরস্কার সাখারভ সম্মাননা পেলেন ইউক্রেনের অধিকারকর্মী ও চলচ্চিত্র নির্মাতা ওলেগ সেনসভ৷

রাশিয়ায় ইউক্রেনের সব রাজনৈতিক বন্দীর মুক্তি দাবি করেছেন সেনসভ৷

৪২ বছর বয়সি ওলেগ সেনভের জন্ম রাশিয়া নিয়ন্ত্রিত ক্রাইমিয়া অঞ্চলের প্রশাসনিক রাজধানী সিমফেরোপোল শহরে৷ ২০১১ সালের ‘গেমার’ চলচ্চিত্রের জন্য সবচেয়ে বেশি পরিচিতি পাওয়া সেনসভ ইউক্রেনের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ এবং ক্রাইমিয়া দখল নিয়ে রাশিয়ার কঠোর সমালোচনা করেন৷

২০১৩ সালের নভেম্বরে কিয়েভে মস্কোপন্থি প্রেসিডেন্ট ভিক্টর ইয়ানুকোভিচের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু হলে তাতে যোগ দেন সেনসভ৷ পরে ক্রাইমিয়ায় রুশ বাহিনীর কবলে পড়া ইউক্রেনের সৈনিকদের খাবার দিয়ে সহযোগিতা করেন তিনি৷

২০১৪ সালের মে মাসে ক্রাইমিয়া থেকে সেনসভকে গ্রেপ্তার করে রাশিয়ার এফএসবি নিরাপত্তা সংস্থা৷ তাঁর বিরুদ্ধে সিমফেরোপোল, সেভাস্তোপোল ও ইয়াল্টা শহরে রুশপন্থি সংস্থাগুলোতে আক্রমণ চালাতে উগ্র জাতীয়তাবাদী গোষ্ঠী রাইট সেক্টরের সঙ্গে যোগসাজশের অভিযোগ আনা হয়৷ সেনসভের বিরুদ্ধে যে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর নেতৃত্ব দেওয়ার অভিযোগ তোলা হয়, তারা ক্রাইমিয়া রাশিয়ান কমিউনিটির দুটি স্থাপনায় হামলা চালিয়েছিল৷ এই চলচ্চিত্র নির্মাতার বিরুদ্ধে সেখান থেকে লেনিনের ভাস্কর্যসহ দুটি স্মৃতিস্তম্ভ উড়িয়ে দেওয়ার ষড়যন্ত্রেরও অভিযোগ আনা হয়৷

এই মামলায় ২০১৫ সালে সেনসভকে ২০ বছরের কারাদণ্ড দেয় রুশ সেনাবাহিনীর একটি ট্রাইব্যুনাল৷ পরে তাঁকে ইউক্রেনে হস্তান্তরের আবেদনও খারিজ করেছে রাশিয়া৷

বন্দি সেনসভ রাশিয়ার কারাগারে থাকা সব ইউক্রেনীয় রাজনৈতিক বন্দির মুক্তি দাবিতে গত ১৪ মে থেকে ১৪৫ দিন অনশন করেন৷ জীবন শঙ্কা দেখা দেওয়ায় গত ৫ অক্টোবর অনশন ভাঙেন তিনি৷

সেনসভের মামলা ও রায় নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে ব্যাপক সমালোচনা হয়৷ অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ও হিউম্যান রাইটস ওয়াচসহ বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা থেকে তাঁর মুক্তি দাবি করা হয়৷ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় তাঁকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে অভিযোগ করে ওই রায় প্রত্যাখ্যান করে তারা৷

নোবেল পুরস্কারজয়ী হেরটা মুলার, স্ভেতলানা অ্যালেক্সিভিচ এবং পেড্রো আলমোদোভার ও আকি কুরিসমাকির মতো খ্যাতিমান চলচ্চিত্র নির্মাতারাও তাঁর মুক্তি দাবি করেছেন৷ সেনসভকে ‘রাজনৈতিক বন্দি’ অভিহিত করে তাঁর মুক্তি চেয়েছে রাশিয়ার মানবাধিকার সংস্থা মেমোরিয়ালও৷

মিখাইল বুশুয়েভ/এএইচ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন