সরে দাঁড়ালেন বিপির সিইও | বিশ্ব | DW | 27.07.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সরে দাঁড়ালেন বিপির সিইও

অবশেষে পদত্যাগ করলেন ব্রিটিশ পেট্রোলিয়াম’এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা টোনি হেওয়ার্ড৷ মেক্সিকো উপসাগরে দুর্ঘটনার পর থেকে চাপে ছিলেন তিনি৷ তাঁর স্থলে নতুন সিইও হিসেবে যু্ক্তরাষ্ট্রের নাগরিক বব ডাডলির নাম ঘোষণা করা হয়েছে৷

default

অতীত ও ভবিষ্যৎ – টোনি হেওয়ার্ড ও বব ডাডলি (পেছনে)

যা ভাবা হচ্ছিলো, তাই হয়েছে৷ সরে যেতে হচ্ছে টোনি হেওয়ার্ডকে৷ প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্বে আজ বব ডাডলির নাম ঘোষণা করেছে ব্রিটিশ পেট্রোলিয়াম – বিপি৷ তিনি আবার যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক৷ সাগরতলে বিস্ফোরণের পর আমেরিকায় বিপির যে বদনাম ছড়িয়ে পড়েছে, তা কাটাতেই হয়তো একজন মার্কিনিকে বেছে নিলো বিপি৷ ডাডলি বলেছেন, দায়িত্ব নেওয়ার পর তাঁর প্রথম কাজ হবে যে কূপটিতে দুর্ঘটনা ঘটেছে, তা চিরতরে বন্ধ করে দেওয়া৷ সেই সঙ্গে মেক্সিকো উপসাগরকে দূষণমুক্ত করা৷ ডাডলি বলেন, ‘‘আসলে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো বিপিকে শক্তিশালী ও টিকে থাকার জন্য সক্ষম করে তোলা৷ আমাদের এখন বিনিয়োগ দরকার, পুঁজি দরকার৷ নগদ অর্থ এলেই ব্যবসা চাঙা হয়ে উঠবে৷'' এদিকে বিপি জানালো, তেল নিঃসরণের ঘটনায় তাদের ১৭০০ কোটি ডলার ক্ষতি গুনতে হচ্ছে৷

যুক্তরাজ্যের নাগরিক হেওয়ার্ড দায়িত্ব নিয়েছিলেন ২০০৭ সালে৷ ওই সময় তিনি বলেছিলেন, কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সজাগ থাকবেন তিনি৷ সব কিছু ঠিকঠাক মতোই চলছিলো, কিন্তু গত ২০ এপ্রিলের ঘটনা সব ওলট পালট করে দেয়৷ লুইজিয়ানার কাছে সাগরতলে একটি রিগে ঘটে বিস্ফোরণ৷ তাতে মারা যায় ১১জন৷ বিপর্যয়ের শেষ তখনো নয়৷ এরপর তেল নিঃসরণ হতে থাকে অবিরল ধারায়৷ দূষণ ছড়িয়ে পড়ে৷ মারা পড়তে থাকে একের পর এক সামুদ্রিক প্রাণী৷ পরিবেশের ক্ষতি দেখে চতুর্দিকে বিক্ষোভ ওঠে৷ ক্ষুব্ধ হন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও৷

NO FLASH Öl Katastrophe BP Folgen Umwelt

মেক্সিকো উপসাগরের ঘটনা বিপি’র জন্য মারাত্মক সংকট হয়ে উঠেছে

অনেক চেষ্টার পর গত বৃহস্পতিবার বন্ধ করা যায় তেল নিঃসরণ৷ তাতে আপাত স্বস্তি মিলেছে৷ তবে ততদিনে বিপির বদনাম হয়েছে অনেক৷ সঙ্গে আর্থিক ক্ষতিও৷ এর মধ্যে শুধু ক্ষতিপূরণই দিতে হয় ২ হাজার কোটি ডলার৷ শেয়ারের দামও পড়তে থাকে৷ এত সব ক্ষতির মধ্যেই নির্বাহী কর্মকর্তা বদলের ঘোষণা এলো৷ বিপির চেয়ারম্যান কার্ল হেনরিক স্ভানবার্গ এক বিবৃতিতে বলেন, ‘‘গত তিন বছর ধরে সফলতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনকারী হেওয়ার্ডের বিদায়ের ঘোষণা দিচ্ছে বিপি৷ অক্টোবরে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্বে আসবেন বব ডাডলি৷'' বিবৃতিতে বলা হয়, ‘‘বিপির অনেক সম্পদ রয়েছে, প্রতিষ্ঠানে রয়েছে যোগ্য লোকও৷ বিশ্বের জ্বালানি পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিপির এখনো অনেক কিছু করার আছে৷ বিপি এগিয়ে যাবে৷''

প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্ব যে ছাড়তে হবে, তা নিজেও বুঝতে পেরেছিলেন হেওয়ার্ড৷ তাই পদত্যাগের পর তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘আমি মনে করি, আমার মুখ সামনে রেখে যুক্তরাষ্ট্রে কাজ করা বিপির পক্ষে অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছিলো৷'' হেওয়ার্ডকে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্ব থেকে সরিয়ে নিলেও তাঁর জন্য আরেকটি জায়গা ঠিক করেছে বিপি৷ তা হলো, রাশিয়ায় যৌথ বিনিয়োগে বিপি যে কাজ করছে, সেই কোম্পানির বোর্ড সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন৷ এতে বছরে ১৬ লাখ ডলার বেতন পাবেন তিনি৷ তবে অনেকে বলছেন, এটা এক ধরনের নির্বাসন৷ এছাড়া দীর্ঘকাল প্রশাসনিক দায়িত্ব পালনের জন্য পেনশনও রয়েছে তাঁর জন্য৷ এই খাতে প্রতি বছর তাকে দেওয়া হবে ৬ লাখ পাউন্ড৷

নতুন নির্বাহী কর্মকর্তা ডাডলি এখন আছেন লন্ডনে৷ সেখানের পাট গুটিয়ে অক্টোবরই তিনি চলে যাবেন স্বদেশে৷ ৫৪ বছর বয়সি ডাডলির জন্ম মিসিসিপিতে৷ অ্যামোকো কর্পোরশনে ২০ বছর কাজ করেছেন তিনি৷ ওই প্রতিষ্ঠানটি বিপির সঙ্গে মিলে গেলে তিনিও ব্রিটিশ তেল কোম্পানিতে অন্তর্ভুক্ত হন৷ এরপর বিভিন্ন পদ ঘুরে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন তিনি৷ আর সেই সঙ্গে সাগরতলে রিগে ত্রুটি সারানোর পর তা পুনরায় সচল করার কাজের তদারকির দায়িত্ব পালন করছেন তিনি৷

বিপি আজ জানায়, এপ্রিলের দুর্ঘটনার পর গত তিন মাসে তাদের ১৭শ কোটি ডলার ক্ষতি হয়েছে৷ আর তাই পুঁজি বাড়াতে তারা আগামী দেড় মাসে ৩ হাজার কোটি ডলারের সম্পদ বিক্রি করবে৷ এক রিগের বিস্ফোরণেই অনেক ভুগতে হলো বিপিকে৷

প্রতিবেদন: মনিরুল ইসলাম
সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক