‘সরকারের মদতেই হচ্ছে ভাস্কর্যবিরোধী আন্দোলন′ | বিষয় | DW | 04.12.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

‘সরকারের মদতেই হচ্ছে ভাস্কর্যবিরোধী আন্দোলন'

বাংলাদেশে চলমান ভাস্কর্য নিয়ে বিতর্ক প্রসঙ্গে এমন মন্তব্য করলেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী৷

ডয়চে ভেলে বাংলার সাপ্তাহিক ইউটিউব টকশো ‘খালেদ মুহিউদ্দীন জানতে চায়'-এর এবারের পর্বে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী এবং সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এ আরাফাত৷ এবারের পর্বের প্রশ্ন ছিল, মূর্তি বা ভাস্কর্যের মতো ইস্যুগুলো কি দেশের মূল সমস্যাগুলো আড়ালে রাখছে?

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী সরাসরি অভিযোগের তির ছোঁড়েন সরকারেরদিকে৷ তিনি বলেন, ‘‘পাগলকে দিয়ে সাঁকো নাড়াচ্ছে সরকার রাজনৈতিক সুবিধার জন্য৷ খাদ্য, ওষুধের এমন দাম যেখানে (বাড়ছে), মানুষ সঠিক স্বাস্থ্যব্যবস্থা পাচ্ছে না, সেখানে তখনই হচ্ছে এমন সরকারপ্রণোদিত বিতর্ক৷ ইমামসাহেবরাই বা কী করে এই ফাঁদে পা দিলেন, তা আমি জানি না৷ ধর্ম থাকবে আমাদের অন্তরে, উপাসনালয়ে, মন্দির মসজিদে৷ এর সাথে রাজনীতি মেশালে সুবিধাবাদী শ্রেণির লাভ হলেও আসলে ধর্মের ক্ষতি৷ ইসলাম সাম্যের ধর্ম, বাকস্বাধীনতার ধর্ম৷ অন্য ধর্মের প্রতি সহনশীল অবস্থার ধর্ম৷ আজকের এই আন্দোলন ভুল হচ্ছে, ইসলামোফোবিয়াকে উসকে দেবে৷ ইসলামকে প্রাগৈতিহাসিক ধর্মে পরিণত করবে৷''

 

সঞ্চালক প্রশ্ন রাখেন যে, আসলেই কার পাতা ফাঁদে পা দিচ্ছেন ধর্মীয় নেতারা বা আদৌ দিচ্ছেন কি? উত্তরে ডা. চৌধুরী বলেন, ‘‘সরকারি মদতে হচ্ছে এটা৷ অ্যাটেনশন ডাইভার্শন করা হচ্ছে৷ জনগণ একদিকে আন্দোলন করছে দেশের গতি ফেরানোর জন্য৷ এতদিন যে ছাত্রলীগ বদনামের ভাগী হয়ে ছিল, সে উঠে আসছে আবার৷ অন্যদিকে দুর্নীতিতে বাংলাদেশ পুরোপুরি জড়ানো৷ সেটাকে ভুলিয়ে দেবার জন্যই এই আন্দোলন করা হচ্ছে৷''

সরকারের বিরুদ্ধে এই অভিযোগকে খারিজ করলেন সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এ আরাফাত৷ তার বক্তব্য, ‘‘আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের সকল মানুষই মৌলবাদী গোষ্ঠীর আচরণের বিপক্ষে দাঁড়িয়েছে৷ দল হিসাবেও আওয়ামী লীগ এর বিপক্ষে৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আওয়ামী লীগের যে সকল অ্যাক্টিভিস্টরা রয়েছেন, তারাও এর প্রতিবাদ করেছেন৷ এখানে নিশ্চুপ বলতে কেবল বাম দলেরা ও বিএনপি৷ ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মতো কয়েকজন কথা বলেছেন৷ কিন্তু বাকিরা চুপ৷ মৌলবাদীরা আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ, এরা বেশি বাড়লে আওয়ামী লীগই তাদেরকে প্রতিহত করে৷''

এবারের পর্বে এছাড়াও আলোচিত হয় দেশে দুর্নীতির বাড়বাড়ন্তের বিষয়ে সরকারের জবাবদিহিতা নিয়ে৷ পাশাপাশি, উঠে আসে তথাকথিত সাম্প্রদায়িক শক্তির সাথে ক্ষমতাসীন দলের সম্পর্কের কথাও৷ উঠে আসে বিভিন্ন ঘটনায় আইনি তৎপরতা ও প্রধানমন্ত্রীর প্রতিক্রিয়ার প্রসঙ্গ৷

এসএস/এসিবি

সংশ্লিষ্ট বিষয়