সরকারের কাছে কৈফিয়ত চান হাসানুল হক ইনু | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 05.03.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

সরকারের কাছে কৈফিয়ত চান হাসানুল হক ইনু

মুশতাক, কাজল, কিশোরকে জামিন না দিয়ে কেন দিনের পর দিন জেলে আটকে রাখা হলো, সরকারের কাছে তার কৈফিয়ত চান জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু৷ এসব ক্ষেত্রে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রয়োগ যথাযথ হয়নি বলেও মনে করেন তিনি৷

বাংলাদেশের সাবেক তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘এই আইনেই আছে ৬০ দিনের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট দিতে হবে৷ না পারলে আরো ১৫ দিন৷ অর্থাৎ, মোট ৭৫ দিন৷ তাহলে কেন কাজলকে ২১০ দিন কারাগারে রাখলেন আমি কৈফিয়ত তলব করছি সরকারের কাছে৷ কীজন্যে কিশোরকে ২১০ দিন কারাগারে রাখলেন? কেন মুশতাককে ৭৫ দিনের বেশি রাখলেন? এবং আদালত কেন এখানে চোখ বন্ধ করে থাকলেন? আমি তো অবাক হয়ে যাচ্ছি৷ আদালত এখানে ৪০ ধারা দেখে বলবে যে, ৭৫ দিন হয়ে গেছে- জামিন৷ আরেকটা ব্যাপার হলো, লেখক, সাংবাদিক ও গবেষকদের বিরুদ্ধে আইন করা হচ্ছে, তখন তারা তো দেশ থেকে পালিয়ে যাচ্ছে না৷ সুতরাং, তাদের জামিন দিন, বিচার করুন, কোনো অসুবিধা তো নেই৷ তাদেরকে হয়রানি করার জন্য প্রশাসনের কর্মকর্তাদের কাছে কৈফিয়ত তলব করা উচিত৷’’ ডয়চে ভেলের ইউটিউব টকশো ‘খালেদ মুহিউদ্দীন জানতে চায়’-এ যোগ দিয়ে তিনি এসব কথা বলেন৷

সম্প্রতি বাংলাদেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার হয়ে প্রায় দশমাস বন্দি থাকার পর কারাগারে মৃত্যুবরণ করেন লেখক মুশতাক আহমেদ৷ তার সঙ্গে আটক হওয়া কার্টুনিস্ট কিশোর বৃহস্পতিবার জামিনে মুক্ত হয়েছেন৷ আটকের পর তার উপর চালানো নির্যাতনের বর্ণনা দিয়েছেন তিনি বাংলাদেশের দুইটি সংবাদ মাধ্যমে৷ বিষয়টি নিয়ে সংসদে আলোচনা করবেন কিনা জানতে চাইলে হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘‘এটা নিয়ে কথা হবে৷ এটা নিয়ে আমরা সংসদে (কথা) তুলবো, কেন টর্চার করা হলো৷ সেটা নিষিদ্ধ৷ এজন্য অনেক পুলিশ বরখাস্ত হয়েছেন৷ সুতরাং শারীরিক নির্যাতন যদি কিশোরকে করে থাকে, তাহলে এর জন্য ঐ কর্মকর্তাকে কৈফিয়ত দিতেই হবে৷ এটা সংসদে তোলার মতো কথা৷’’

আলোচনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুলও ছিলেন৷ তিনি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও এর প্রয়োগে সরকারের সমালোচনা করেন৷ বলেন, ‘‘(ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে) সরকারবিরোধী যে কোনো বক্তব্যকে রাষ্ট্রবিরোধী বলে তাকে জেলে দিনের পর দিন রাখতে পারেন এবং এভাবে নির্যাতন করতে পারেন৷ যে দেশে সেনাবাহিনীর ভাইরা দণ্ডিত খুনি ও পলাতক অবস্থায় ক্ষমা করে দেয়া হয়, আর অসুস্থ মানুষ যিনি (মুশতাক আহমেদ) সামান্য কোভিড পরবর্তী দুর্নীতি নিয়ে লিখেছেন, তাকে ছয় ছয়বার আদালত জামিন নামঞ্জুর করেছেন৷’’

আসিফ নজরুলের মতে, বিদ্যমান ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কোনো প্রয়োজন বাংলাদেশে নেই, তথ্য প্রযুক্তি আইনের পরিবর্তন ও সংযোজন করেই কাজ চালানো সম্ভব৷ এই আইনটি বাতিলের তিনটি কারণ তুলে ধরেন তিনি৷ ‘‘প্রথমত, এখানে সংজ্ঞার অস্পষ্টতা রয়েছে৷ রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি, উসকানি, এগুলো বলে যে কোনো ব্যক্তিকে ভিক্টিমাইজ করা সম্ভব৷ দ্বিতীয়ত, এখানে পুলিশকে অবারিত ক্ষমতা দেয়া হয়েছে৷ তৃতীয়ত, এই আইনের চরম অপপ্রয়োগ হয়েছে৷ আমি বিশ্বাস করি, এই আইন করা হয়েছে ভিন্নমতাবলম্বীদের মুখ বন্ধ করার জন্য৷ সরকার এই আইনের অপপ্রয়োগের মাধ্যমে অন্যদের সাবধান করে দেয়ার চেষ্টা করছে, এটা আমার বিশ্বাস,’’ বলেন ড. নজরুল৷

তবে এই বিষযে তার সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু৷ তার মতে, দোষ আইনের নয়, বরং প্রয়োগের৷ প্রশাসনিক কর্মকর্তারাই বাছাই করছেন কাকে ধরবেন, কাকে ধরবেন না৷ সেজন্যই এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে৷ তিনি মনে করেন, আসিফ নজরুল যে তিনটি বিষয় উত্থাপন করেছেন তার প্রতিটিই সংশোধনযোগ্য৷ বলেন, ‘‘যে আইন আছে, সেটি সংশোধন করা সম্ভব বলে আমি মনে করি৷  কাজেই আইন বাতিল হতে পারে না৷ ডিজিটাল জগত মোকাবিলায় এই আইন দরকার৷’’

এফএস/এসিবি

ভিডিও দেখুন 08:28

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে জাতিসংঘ কী বলছে?

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়