‘সরকারের অব্যবস্থাপনার কারণে টিকা সংকট’ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 07.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

‘সরকারের অব্যবস্থাপনার কারণে টিকা সংকট’

করোনা ভাইরাসের টিকার সংকটের জন্য সরকারের ‘অব্যবস্থাপনাকে' দায়ি করলেন বিএনপির সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা৷

তবে আওয়ামী লীগের সাংসদ ডা. হাবিবে মিল্লাত মনে করেন, টিকার বিষয়ে সরকারের পরিকল্পনা ‘সুন্দর’ ছিল৷

ডয়চে ভেলের সাপ্তাহিক টক-শো ‘খালেদ মুহিউদ্দিন জানতে চায়'-এ এমন মত দেন আলোচকরা৷

সরকারের করোনা ভাইরাস বিষয়ক পরামর্শক কমিটির সদস্যদের উদ্ধৃতি দিয়ে ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেন,টিকার বিষয়ে সরকারের ব্যর্থতা অত্যন্ত স্পষ্ট৷ চীনের সিনোভ্যাক'কে প্রথমেই ট্রায়ালের অনুমতি দেওয়া উচিত ছিল উল্লেখ করে, তিনি বলেন, এখন সরকার সিনোভ্যাক ও স্পুটনিক-ভি পেতে চাইছে৷ বিশ্বের অনেক দেশ ভ্যাকসিনে পেতে নানা সুযোগ হাতে রেখেছে৷ ‘‘সরকারের মিস-ম্যানেজমেন্টের (অব্যস্থাপনার) কারণে প্রায় ১৩ লাখের মতো মানুষ প্রথম ডোজ টিকা দিয়ে বসে আছে... সেকেন্ড ডোজ কবে আসবে জানে না৷... তার চেয়েও বড়, বিশাল সংখ্যার মানুষ আছে যারা টিকাই পায়নি৷’’

এদিকে টিকার বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা সঠিক ছিল উল্লেখ করে ডা. হাবিবে মিল্লাত বলেন, করোনা ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ বিশ্বের ২০টি দেশের মধ্যে একটি৷ আর গণ-টিকাদানের ক্ষেত্রে বিশ্বের ছয়টি দেশের একটি বাংলাদেশ৷ দেশে প্রায় ১০ কোটি মানুষের করোনা টিকার প্রয়োজন৷ এর মধ্যে ছয় কোটিরও বেশি টিকা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কাছ থেকে পাওয়ার কথা৷ সাপ্লাই চেনের সুবিধার কথা বিবেচনায় নিয়ে সেরাম ইনস্টিটিউটের সাথে টিকার চুক্তি করা হয়েছে৷ ডিসরাপশনের কারণে টিকা পাওয়া যায়নি৷ তবে ডিসরাপসন শুধু বাংলাদেশের ক্ষেত্রেই নয়, তারা কোনো দেশকেই দিচ্ছে না৷  

এদিকে লকডাউনের বিষয়ে সরকারের সমালোচনা করে রুমিন ফারহানা বলেন, সরকারের নাকের ডগার উপর দিয়ে মানুষ এক জেলা থেকে আরেক জেলায় যাচ্ছে৷ এ বিষয়ে সরকারের আরো অনেক বেশি কার্যকর ভূমিকা রাখা উচিত ছিল বলে মনে করেন তিনি৷ সাধারণ মানুষকে সরকারের দেওয়া প্রণোদনা যথেষ্ট নয় বলেও মনে করেন তিনি৷

তবে ডা. হাবিবে মিল্লাত মনে করেন, করোনা ভাইরাসের সতর্কতার বিষয়ে মানুষের মধ্যে সচেতনতার ঘাটতি রয়েছে৷ সরকার জনগণকে যথেষ্ট প্রণোদনা দিচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি৷

আরআর/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়